শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ২:৪৯ পিএম

‘রুবাইয়াত-ই-হাফিজ’-এর সম্পূর্ণ পাঠ খুব শীঘ্রই অডিও অ্যালবাম হিসেবে প্রকাশিত হচ্ছে

কলকাতা প্রতিবেদক:
প্রকাশিত: ৯:০৪ অপরাহ্ন, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, রোববার


কাজী নজরুল ইসলামের অনূদিত গ্রন্থ

ছায়ানট (কলকাতা)-র নিবেদনে, বিশিষ্ট বাচিকশিল্পী শ্রী দেবাশিস বসুর কন্ঠে কাজী নজরুল ইসলামের অনূদিত গ্রন্থ ‘রুবাইয়াত-ই-হাফিজ’-এর সম্পূর্ণ পাঠ খুব শীঘ্রই অডিও অ্যালবাম হিসেবে ও বিভিন্ন ডিজিটাল মাধ্যমে প্রকাশিত হতে চলেছে। ভাবনা ও পরিকল্পনায় সোমঋতা মল্লিক, প্রকাশনা ও বিশ্ব-পরিবেশনায় কোয়েস্ট ওয়ার্ল্ড, নির্মাণ-সৃজনে স্বাগত গঙ্গোপাধ্যায়।
কাজী নজরুল ইসলামের কলমে… “আমি তখন স্কুল পালিয়ে যুদ্ধে গেছি। সে আজ ইংরিজি ১৯১৭ সালের কথা। সেইখানে প্রথম আমার হাফিজের সাথে পরিচয় হয়। আমাদের বাঙালি পল্টনে একজন পাঞ্জাবি মৌলবি সাহেব থাকতেন। একদিন তিনি দীওয়ান- ই- হাফিজ থেকে কতকগুলি কবিতা আবৃত্তি করে শোনান। শুনে আমি এমনই মুগ্ধ হয়ে যাই যে, সেইদিন থেকেই তাঁর কাছে ফারসি ভাষা শিখতে আরম্ভ করি। তাঁরই কাছে ক্রমে ফারসি কবিদের প্রায় সমস্ত বিখ্যাত কাব্যই পড়ে ফেলি। তখন থেকেই আমার হাফিজের ‘দীওয়ান’ অনুবাদের ইচ্ছা হয়। কিন্তু তখনও কবিতা লিখবার মতো যথেষ্ট সাহস সঞ্চয় করে উঠতে পারিনি। এর বৎসর কয়েক পরে হাফিজের ‘দীওয়ান’ অনুবাদ করতে আরম্ভ করি। অবশ্য তাঁর রুবাইয়াৎ নয় -গজল। বিভিন্ন মাসিক পত্রিকায় তা প্রকাশিতও হয়েছিল। ত্রিশ-পঁয়ত্রিশটি গজল অনুবাদের পর আর আমার ধৈর্যে কুলোল না, এবং ওইখানেই ওর ইতি হয়ে গেল। তারপর এস. সি. চক্রবর্তী এন্ড সন্সের সত্বাধিকারী মহাশয়ের জোর তাগিদে ওর অনুবাদ শেষ করি। যেদিন অনুবাদ শেষ হল, সেদিন আমার খোকা বুলবুল চলে গেছে। আমার জীবনের যে ছিল প্রিয়তম, যা ছিল শ্রেয়তম তারই নজরানা দিয়ে শিরাজের বুলবুল কবিকে বাংলায় আমন্ত্রণ করে আনলাম।

মন্তব্য করুন

সর্বশেষ নিউজ

আরো পড়ুন