শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ২:৩৩ পিএম

প্রশাসন ছাড় দিলেও ছাড় দিবেন না খোকন

নিজস্ব প্রতিবেদক :
প্রকাশিত: ২:০৩ অপরাহ্ন, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, রোববার


প্রশাসন ছাড় দিলেও ছাড় দিবেন না খোকন

ছবি : সংগৃহীত

এবার বিএনপি ও নিজ দলের বিরোধী অংশের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে তোপ দাগালেন নারায়ণগঞ্জ জেলা যুবলীগ সদস্য এমওএফ খোকন। প্রতিপক্ষের প্রতি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে তিনি বলেছেন, ‘যদি কোনো ধরনের ষড়যন্ত্র-কটূক্তি করেন, আমার দলের নেতাই হোক আর দলের বাহিরের হোক, বিন্দু পরিমাণ ছাড় দেবো না। প্রশাসন আপনাদের ছাড় দিলেও আমরা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা ছাড় দেবো না।’

তার এমন বক্তব্য গতকাল শনিবার রাতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে আসামাত্রই তা ভাইরাল হতে শুরু করে। এটি নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে এখন তুমুল উত্তেজনা বিরাজ করছে, যার ফলে যেকোনো সময় অপ্রীতিকর ঘটনার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

জানা যায়, সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার কুতুবপুরের শাহীবাজার কবরস্থানের জমির মসজিদের নিচতলায় মার্কেট নির্মাণ নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা তৈরি হয়। মার্কেট নির্মাণ প্রতিহত করতে হয় মানববন্ধন। সেখানে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের পাশাপাশি বিএনপির বেশ কিছু নেতাকর্মী যোগ দেন। তারা কবরস্থান ও মসজিদ কমিটির সভাপতি ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা আলাউদ্দিন মেম্বার ও সেক্রেটারী হুমায়ুন কবিরের পদত্যাগও দাবি করেন। মানববন্ধনে দেওয়া বক্তব্যে ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল খালেক আওয়ামী লীগ নেতা আলাউদ্দিন হাওলাদারকে ‘কুলাঙ্গার’ বলে অভিহিত করেন।

আর এর প্রতিবাদে পরবর্তী সময়ে আলাউদ্দিন হাওলাদারের উপস্থিতিতে প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করা হয়। সেখানে স্থানীয় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, কৃষক লীগের নেতাকর্মীরা বিএনপি সরকারের শাসনামলের সমালোচনা করেন।

প্রতিবাদ সমাবেশে বিএনপি আমলে কুতুবপুরের বিভিন্ন এলাকায় আস্থানা তৈরি করে রাতের বেলা ডাকাতি করা হতো বলেও অভিযোগ উঠে আসে। এ ছাড়া আলাউদ্দিন তার বক্তব্যে অভিযোগ করে বলেন, ‘অনেকেই বলেন সারা দেশে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায়, কিন্তু কুতুবপুরে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় নেই।’

প্রধানমন্ত্রীর উপহারের আড়াই হাজার টাকা তার এলাকার আওয়ামী লীগের কোনো নেতাকর্মী পাননি বলেও অভিযোগ করেন আলাউদ্দিন। তালিকা জমা দেওয়ার পরেও একজন আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীকেও ওই টাকা দেওয়া হয়নি বলে উল্লেখ করেন তিনি।

সমাবেশে জেলা যুবলীগের সদস্য এমওএফ খোকন বলেন, ‘শুধুমাত্র আওয়ামী লীগ করার কারণে কুতুবপুরে অনেক মায়ের বুক খালি করা হয়েছে। অনেকেই পঙ্গুত্বের জীবনযাপন করছেন, কেউবা রিকশা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করছেন। আমরা যারা আওয়ামী লীগ করি, তাদের লজ্জাশরম আসলে কম। তাই বঙ্গবন্ধুর মার্কা কোথাও দেখলেই সব ভুলে যাই..এত বছর ধরে আমরা ক্ষমতায়, বিএনপির কোনো নেতাকর্মীর ওপরে একটা আঁচড়ও দিইনি।’

‘এরপরে যদি কোনো ধরনের ষড়যন্ত্র-কটূক্তি করেন, আমার দলের নেতাই হোক আর দলের বাহিরের হোক, বিন্দু পরিমাণ ছাড় দেবো না। প্রশাসন আপনাদের ছাড় দিলেও আমরা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা ছাড় দেবো না’, যোগ করেন খোকন।

প্রতিবাদ সমাবেশে আরও উপস্থিত ছিলেন- জেলা কৃষক লীগের দপ্তর সম্পাদক হুমায়ুন কবির, ৫নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেক, আওয়ামী লীগ নেতা লিটন হাওলাদার, যুবলীগ নেতা সেলিম রেজা প্রমুখ।

মন্তব্য করুন

সর্বশেষ নিউজ

আরো পড়ুন