রোববার, ৩১ মে ২০২০, ৭:৪৬ পিএম

ঈদুল-ফিতরের ফজিলত ও তার করণীয় বর্জনীয়

মুফতী মাহমুদ হাসান:
প্রকাশিত: ১২:০৩ পূর্বাহ্ন, ২৩ মে ২০২০, শনিবার


ঈদুল-ফিতরের ফজিলত ও তার করণীয় বর্জনীয়

ছবি : সংগৃহীত ।

📚ঈদুল ফিতর কি?
✒ ঈদ,ফিতর’ শব্দ দুটি আরবি, যার অর্থ হচ্ছে উৎসব, আনন্দ, খুশি, রোজা ভেঙে ফেলা ইত্যাদি। দীর্ঘ এক মাস সিয়াম সাধনা ও ইবাদত-বন্দেগির পর বিশ্ব মুসলিম উম্মাহ শাওয়াল মাসের চাঁদের আগমনে রোজা ভেঙে আল্লাহর বিশেষ শোকরিয়াস্বরূপ যে আনন্দ-উৎসব পালন করেন- শরিয়তের পরিভাষায় তাই ঈদুল ফিতর।
📚ঈদের আনন্দের কারণ কী?
✒ঈদ আনন্দ।  কিন্তু সেই আনন্দ কেন? এমনি এমনিতেই কি কেউ আনন্দিত হয়? না।  হয় যখন আনন্দের কিছু ঘটে।  পরীক্ষায় কৃতিত্বের সঙ্গে উত্তীর্ণ হলে আনন্দিত হয়; কঠিন কোনো কাজ সহজেই সমাপ্ত করতে পারলে আনন্দিত হয়।  পুরস্কৃত হলে আনন্দিত হয়। আনন্দের জন্য তো কোনো কারণ থাকতে হবে! এক মাস রোজার পর এদিনে সেই সাধনার পুরস্কার হিসেবে ক্ষমাপ্রাপ্তিই সেই আনন্দের কারণ।  হজরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) এরশাদ করেন, 📖বায়হাকি শরীর ৩/৩৪৩
📚ঈদুল ফিতরের সূচনা:
✒হজরত আনাস বিন মালিক (রা.) বলেন, প্রতি বছর মুশরিকদের জন্য দুটি দিন ছিল সেদিন তারা আনন্দ-উৎসব করত। রসুল (সা.) যখন মদিনায় আসেন তখন তিনি বলেন, তোমাদের ওই দুটি উৎসবের চেয়ে আরও উত্তম দুটি আনন্দের দিন দেওয়া হলো। ঈদুল ফিতর এবং ঈদুল আজহা। 📖(সুনানে নাসায়ি : ১ম খ-, পৃ. ১৭৭; সুনানে আবু দাউদ ১ম খ-, পৃ. ১৬১,হাদীছ নম্বর-১১৩৬)।
📚ঈদের দিনের ফজিলত :
✒আল আনসারী (রা.) বলেন, রাসুল (স.) বলেন, ঈদুল ফিতরের দিন সকালে সকল ফিরিশতা রাস্তায় রাস্তায় দাঁড়িয়ে যান এবং মুসলমানদের উদ্দেশ্যে বলতে থাকেন, হে মুসলিমগণ! তোমরা দয়ালু প্রতিপালকের দিকে এগিয়ে আস। উত্তম প্রতিদান ও বিশাল সাওয়াব প্রাপ্তির জন্য এগিয়ে আস। তোমাদের রাত্রিবেলার নামাযের নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল, তোমরা সে নির্দেশ মেনে নামায পড়েছ। তোমাদেরকে দিনগুলোতে রোজা রাখতে বলা হয়েছিল, তোমরা সে নির্দেশও পালন করেছ, এক মাস রোজা রেখেছ। গরীব দুঃখীরদের পানাহারের মাধ্যমে নিজ প্রতিপালককে তোমরা পানাহার করিয়েছ। এখন নামায পড়ার মাধ্যমে সেগুলোর প্রতিদান ও পুরস্কার গ্রহণ কর। ঈদের নামায পড়ার পর ফিরিশতাদের মাঝে একজন ঘোষণা দেন, শোন, নামায আদায়কারীরা! তোমাদেরকে মহান রাব্বুল আলামীন মাফ করে দিয়েছেন, সকল গুনাহ থেকে মুক্ত অবস্থায় নিজ নিজ আবাসে ফিরে যাও। আর শোন! এ দিনটি হচ্ছে পুরস্কার প্রদানের দিন। আকাশে এ দিনের নামকরণ করা হয়েছে ‘পুরস্কারের দিন’ 📖(আল মুজামুল কাবীর লিত তাবারানী, হাদীস নম্বর-৬১৭ ও ৬১৮)।
📚ঈদের দিন রোজাদারকে ক্ষমা ঘোষণা:
 ✒হজরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) এরশাদ করেন, আল্লাহ তায়ালা ঈদের দিন ফেরেশতাদের মাঝে রোজাদারদের নিয়ে গর্ব করে বলেন, ‘হে ফেরেশতারা আমার কর্তব্যপরায়ণ প্রেমিক বান্দার বিনিময় কী হতে পারে?’
ফেরেশতারা বলেন, হে প্রভু পুণ্যরূপে পুরস্কার দান করাই তো তার প্রতিদান।  আল্লাহ বলেন, আমার বান্দারা তাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব (রোজা) পালন করেছে।  অতএব দোয়া করতে করতে ঈদগাহে গমন করেছে।  আমার মর্যাদা, সম্মান, দয়া ও বড়ত্বের কসম আমি তাদের দোয়া কবুল করব এবং তাদেরকে মাফ করে দেব।  📖(বায়হাকি : ৩/৩৪৩)।
📚ঈদের রাতের ফযীলত:
✒যে সন্ধ্যায় ঈদের চাঁদ দেখা যায় সে রাতকে ঈদের রাত বলা হয়। এ রাতের অনেক গুরুত্ব ও ফযীলতের কথা হাদীসে বর্ণিত হয়েছে। কয়েকটি হাদীস নিম্নে তুলে ধরা হলো।
✅১। হযরত আবু উমামা (রা.) বর্ণনা করেন, নবী (স.) বলেন, যে ব্যক্তি দুই ঈদের রাতে আল্লাহর নিকট সাওয়াব প্রাপ্তির নিয়তে ইবাদত করবে তার হৃদয় সেদিনও জীবিত থাকবে যেদিন সকল হৃদয়ের মৃত্যু ঘটবে। 📖(ইবন মাজাহ, হাদীস নম্বর ১৭৮২, আল মুজামুল আওসাত, হাদীস নম্বর-১৫৯)।
✅২। হযরত উবাদাতা ইবন সামিত (রা.) বলেন, যে ব্যক্তি ঈদুল ফিতর এবং ঈদুল আযহার রাতকে (ইবাদতের মাধ্যমে) জীবিত রাখবে তার দিল ঐ দিন মরবে না যেদিন অন্যদের দিল মরে যাবে। 📖(আত তারগীব ওয়াত তারহীব, ২য় খন্ড, পৃষ্ঠা-৯৮, হাদীস নম্বর-১৬৫৭)।
✅৩। হযরত মু‘আয ইবন জাবাল (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী (স.) বলেন, যে ব্যক্তি পাঁচটি রাত (ইবাদতের মাধ্যমে) জাগ্রত থাকবে তার জন্য জান্নাত ওয়াজিব হয়ে যাবে। (এক). যিলহাজ্জ মাসের ৮ তারিখ রাত, (দুই). যিলহাজ্জ মাসের ৯ তারিখ রাত, (তিন). ঈদুল আযহার রাত, (চার). ঈদুল ফিতরের রাত এবং (পাঁচ). ১৫ শাবানের রাত। 📖(আত তারগীব ওয়াত তারহীব, ২য় খন্ড, পৃষ্ঠা-৯৮, হাদীছ নম্বর-১৬৫৬)।
📚ঈদের দিনের সুন্নতসমূহ:
✔১.অন্যদিনের তুলনায় সকালে ঘুম থেকে জাগ্রত হওয়া। (
📖(বায়হাকী, হাদীস -৬১
বায়হাকী, হাদীস নং-৬১২৬)
✔২.মিসওয়াক করা। 📖(তাবয়ীনুল হাকায়েক-১/৫৩৮)
✔৩.গোসল করা। হাদিসে এসেছে,  রাসূলুল্লাহ (সা.) দুই ঈদের দিন গোসল করতেন। 📖(মুসনাদে বায‍যার, হাদিস: ৩৮৮০)
ইবনে উমর (রা.) থেকে বর্ণিত যে, তিনি ঈদুল ফিতরের দিন ঈদগাহে যাওয়ার পূর্বে গোসল করতেন। 📖(মুয়াত্তা ইমাম মালেক, হাদিস: ৬০৯)
✔৪.শরীয়তসম্মত সাজসজ্জা করা।📖(বুখারী, হাদীস নং-৯৪৮)
✔৫.সামর্থ অনুপাতে উত্তম পোশাক পরিধান করা। ইবনে উমর (রা.) থেকে বর্ণিত যে তিনি দু ঈদের দিনে সুন্দরতম পোশাক পরিধান করতেন। 📖( বায়হাকী : ১৯০১)
✔৬.সুগন্ধি ব্যবহার করা।📖(মুস্তাদরাকে হাকেম, হাদীস নং-৭৫৬০)
✔৭.ঈদুল ফিতরে ঈদগাহে যাবার আগে মিষ্টিজাতীয় যেমন খেজুর ইত্যাদি খাওয়া। তবে ঈদুল আযহাতে কিছু না খেয়ে ঈদের নামাযের পর নিজের কুরবানীর গোশত আহার করা উত্তম।বুরাইদা (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী করীম (সা.) ঈদুল ফিতরের দিনে না খেয়ে বের হতেন না, আর ঈদুল আজহার দিনে ঈদের নামাজের পূর্বে খেতেন না। সালাত থেকে ফিরে এসে কুরবানীর গোশত খেতেন। (আহমদ : ১৪২২) আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত,তিনি বলেন : রাসূলুল্লাহ (সা.) ঈদুল ফিতরের দিন কয়েকটি খেজুর না খেয়ে বের হতেন না, আর খেজুর খেতেন বে-জোড় সংখ্যায়। 📖📖(বুখারী : ৯০০)
✔৮.সকাল সকাল ঈদগাহে যাওয়া। 📖(আবু দাউদ, হাদীস নং-১১৫৭)
✔৯.ঈদুল ফিতরে ঈদগাতে যাওয়ার পূর্বে সদকায়ে ফিতর আদায় করা। ইবনু উমর (রা.) থেকে বর্ণিত যে, রাসূলুল্লাহ (সা.)লোকদেরকে ঈদের নামাজের উদ্দেশ্যে বের হওয়ার পূর্বেই সাদকাতুল ফিত্‌র আদায় করার নির্দেশ দেন।📖(বুখারী, হাদীস নং-১৪২১)
✔১০.পায়ে হেঁটে ঈদগাহে যাওয়া। আলী রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন : সুন্নত হল ঈদগাহে পায়ে হেঁটে যাওয়া। 📖(তিরমিযী : ১৮৭ )
✔১১.ঈদের নামায ঈদগাহে আদায় করা, বিনা অপরাগতায় মসজিদে আদায় না করা। 📖(বুখারী, হাদীস নং-৯৫৬, আবু দাউদ, হাদীস নং-১১৫৮)
✔১২.যে রাস্তায় ঈদগাতে যাবে, সম্ভব হলে ফিরার সময় অন্য রাস্তা দিয়ে ফিরা। 📖(বুখারী, হাদীস নং-৯৮৬)
✔১৩.ঈদুল ফিতরে ঈদগাহে যাবার সময় আস্তে আস্তে এই তাকবীর পড়তে থাকাঃ
اللَّهُ أَكْبَرُ اللَّهُ أَكْبَرُ لَا إِلَهَ إِلَّا اللَّهُ، وَاللَّهُ أَكْبَرُ اللَّهُ أَكْبَرُ وَلِلَّهِ الْحَمْدُ
তবে ঈদুল আযহায় যাবার সময় পথে এ তাকবীর আওয়াজ করে পড়তে থাকবে। 📖(মুস্তাদরাকে হাকেম, হাদীস নং-১১০৫)
 📚“ঈদ মোবারাক” বলা হয়, এর শরয়ী বিধান
✒ঈদের দিন আনন্দ প্রকাশ করা, দান সদকা করা ও মোবারাকবাদ জানানো মুস্তাহাব। তবে মোবারাকবাদ জানানোর জন্য “ঈদ মোবারাক” শব্দ নির্ধারন করা, একই শব্দ সবসময় ব্যাবহার করা, বা “ঈদ মোবারাক” শব্দটি দিয়েই মোবারাকবাদ জানাতে হবে এমন মনে করা ঠিক নয়। তা মাকরুহ হবে, কেউ কেউ বিদাআত বলেছেন। তাই সতর্ক থাকা উচিত ৷
ﺗﻘﺒﻞ ﺍﻟﻠﻪ ﻣﻨﺎ ﻭﻣﻨﻜﻢ، ﻋﻴﺪﻛﻢ ﻣﺒﺎﺭﻙ, عيد سعيد
উচ্চারন: তাকাব্বালাল্লাহু মিন্না ওয়া মিনকুম, ঈদুকুম মোবারাক, ঈদুন সাঈদুন ৷
এ ধরনের শব্দ দিয়ে মোবারাকবাদ জানানো যাবে ৷
মোবারাকবাদের স্বপক্ষে সাহেবে হুলিয়া সহিহ সনদে অনেক আসারে সাহাবা এনেছেন। যার দ্বারা বুঝা যায় তা সাহাবাগন থেকে প্রমানিত ৷ তাই তা মুস্তাহাব ৷
📖ফতহুল বারী২/৪৪৬;রদ্দুল মুহতার, ১/৭৭৭, ফতওয়ায়ে রহিমিয়া ১/২৮১৷
فعن جُبَيْرِ بْنِ نُفَيْرٍ قَالَ : كَانَ أَصْحَابُ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ إِذَا اِلْتَقَوْا يَوْمَ الْعِيدِ يَقُولُ بَعْضُهُمْ لِبَعْضٍ : تَقَبَّلَ اللَّهُ مِنَّا وَمِنْك . قال الحافظ : إسناده حسن .
وقَالَ الإمام أَحْمَدُ رحمه الله : وَلا بَأْسَ أَنْ يَقُولَ الرَّجُل لِلرَّجُلِ يَوْمَ الْعِيدِ : تَقَبَّلَ اللَّهُ مِنَّا وَمِنْك . نقله ابن قدامة في “المغني” .
وسئل شيخ الإسلام ابن تيمية في “الفتاوى الكبرى” (2/228) : هَلْ التَّهْنِئَةُ فِي الْعِيدِ وَمَا يَجْرِي عَلَى أَلْسِنَةِ النَّاسِ : ” عِيدُك مُبَارَكٌ ” وَمَا أَشْبَهَهُ , هَلْ لَهُ أَصْلٌ فِي الشَّرِيعَةِ , أَمْ لا ؟ وَإِذَا كَانَ لَهُ أَصْلٌ فِي الشَّرِيعَةِ , فَمَا الَّذِي يُقَالُ ؟ফতহুল বারী২/৪৪৬;রদ্দুল মুহতার, ১/৭৭৭, ফতওয়ায়ে রহিমিয়া ১/২৮১
ফতওয়ায়ে রহিমিয়া ১/২৮১৷
=================================================
📚ঈদের দিনে কিছু করণীয় :
✔ক) নিজ পরিবার-পরিজনের সাথে সময় অতিবাহিত করা এবং উত্তম উপদেশ দেয়া। যা পারিবারিক বন্ধনকে সুদৃঢ় করে।
✔খ) আত্মীয়-স্বজন, মাতা-পিতার সাথে দেখা করা ও খোঁজ-খবর নেয়া।
✔গ) পাড়া প্রতিবেশী, গরীব-অসহায় নির্বিশেষে সকলের সাথে মিশা, তাদের খোঁজ খবর নেয়া ও কুশল বিনিময় করা।
✔ঘ) সম্ভব হলে পরস্পরকে দাওয়াত দেয়া এবং আপ্যায়নের ব্যবস্থা করা।
✔ঙ) ঝগড়া, বিবাদ, কলহ, হিংসা, বিদ্বেষ ভুলে সবার সাথে মোলাকাত আলিঙ্গন ও একাকার হয়ে যাওয়া।
✔চ) জীবন মানে সময়ের যোগফল। অর্থহীন কাজে সময় ব্যয় করা ও টিভির অনুষ্ঠান দেখার নামে মূল্যবান জীবন শেষ করা থেকে বিরত থাকা ও বিরত রাখা। বিশেষ করে নিজেকে ও নিজের পরিবার পরিজনকে।
📚ঈদের দিনের বর্জনীয় দিকসমূহ❌
 ❌১. জামাতের সাথে ফরজ সালাত আদায়ে অলসতা করা ❌২. ঈদের দিন সিয়াম পালন করা ❌৩. বিজাতীয় আচরণ প্রদর্শন করা ❌৪. নারী-পুরুষ একে অপরের বেশ ধারণ করা ❌৫. নারীদের খোলামেলা অবস্থায় রাস্তাঘাটে বের হওয়া ❌৬. গান-বাজনা করা, অশ্লীল সিনেমা ও নাটক দেখা ❌৭. অযথা কাজে সময় ব্যয় করা ❌৮. অপচয় ও অপব্যয় করা ❌৯. আতশবাজি করা ❌১০. ঈদের সালাত আদায় না করে কেবল আনন্দ-ফূর্তি করা ইত্যাদি। পরিশেষে বলতে চাই, ঈদের দিনের শরীয়তসম্মত করণীয়গুলো পালন করার মাধ্যমে নিজেকে ধর্মীয় অনুভূতি সম্পন্ন একজন প্রকৃত মুসলিম হিসেবে গড়ে তোলা এবং সমাজিক, পারিবারিক ও রাষ্ট্রে শান্তি, শৃঙ্খলা, ভ্রাতৃত্ব, সাম্য
وصلي الله على نبيك محمد وآله واصحابه اجمعين
লেখক : দারুল হাদীস (এম.এ,ইসলামিক স্টাডিস),জামিয়াতুল আবরার বসুন্ধরা ঢাকা।
আরবি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগ(অনার্স) ঢাকা। দারুল ইফতা (ইসলামিক আইন ও গবেষণা বিভাগ) ঢাকা।
মন্তব্য করুন

সর্বশেষ নিউজ

আরো পড়ুন