শুক্রবার, ৫ জুন ২০২০, ১:৪৯ এএম

প্রকাশ্যে গৃহবধুর শাড়ী খুলে নিলেন আ.লীগ নেতা

প্রতিদিনের কাগজ ডেস্ক:
প্রকাশিত: ১১:০৯ অপরাহ্ন, ৯ মে ২০২০, শনিবার


প্রকাশ্যে গৃহবধুর শাড়ী খুলে নিলেন আ.লীগ নেতা

প্রতিকী ছবি ।

খুলনার ডুমুরিয়ায় আসাদুজামান ওরফে আসাদ (৫০) নামের এক আওয়ামীলীগ নেতা, স্থানীয় একজনের জমি দখল করতে সন্ত্রাসী অভিযান চালিয়েছে। দখলের প্রতিবাদ করায় তারা ওই বাড়ির বিবাহিত এক মেয়ের শাড়ী খুলে নিয়ে যায়। পুলিশ জানায়, বারবার তাদের এসব সন্ত্রাসী কার্যক্রমে বাধা দেওয়া হলেও স্থানীয় এক প্রভাবশালী আওয়ামী লীগের নেতার কারণে কোন ভাবেই আসাদকে থামানো যাচ্ছে না। এই করোনার ক্রান্তিকালের মধ্যে থামছে না তার পায়তারা।

শনিবার (৯ মে) সকাল ১০ টার দিকে ডুমুরিয়া উপজেলার খর্ণিয়া গ্রামে আবু তালেবের বাড়িতে এ সন্ত্রাসী অভিযান চালায় আওয়ামী লীগ নেতা আসাদুজামান ওরফে আসাদ।

আবু তালেবের ছেলে কামরুল ইসলাম বলেন, ‘আজ সকাল ১০ টার দিকে খর্ণিয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামানের নেতৃত্বে হায়দার, সুমন, নাজিম, মোজাফ্ফারসহ ২৫ থেকে ৩০ মিলে আমার বাড়িতে হামলা চালায়। প্রথমে তারা আমার বসত বাড়ির পিছনের বাগান থেকে আম, কাঁঠাল, পেয়ার, কলাসহ যাবতীয় ফলমূলসহ গাছ কেটে নষ্ট করে। পরবর্তীতে আমার বোনের ছেলেকে (১৪) তারা ধরে নিয়ে যায়। এসময়ে আমার বোন (৩০) তার ছেলে উদ্ধার করতে গেলে রাস্তার মাঝখানে তার শাড়ী টেনে খুলে ফেলে। তারপর তারা তাকে শ্লীলতাহানির চেষ্টা করে। এময়ে পুলিশ আসলে তারা পালিয়ে যায়।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমার প্রতিবেশী গৌতম পালের সাথে ৩.৫৬ একর জমি নিয়ে আমাদের দীর্ঘদিনের বিরোধ আছে। এই জমি নিয়ে গৌতম পাল আদালতে মোট ৯ বার আফিল করেছে। প্রত্যেক বারই আমরা জিতেছি। বর্তমানে তারা আবারো আফিল করে রেখেছে। এই জমি থেকে আমাদের সারাতে মূলত আসাদুজ্জামান হামলা চালিয়েছে। তারা মধ্যযুগীয় কায়দায় আমাদেরকে বারবার নির্যাতন করে আসছে। আসাদ মূলত ভাড়ায় অন্যদের জমি দখল করে দেয়। যা থানা পুলিশ জানে।

ডুমুরিয়া থানার এসআই ইমদাদ বলেন, ‘আমি আজ থানার ডিইটি অফিসার ছিলাম। সকাল ১০ টার দিকে জমির মালিক কালরুল জানায় আজকে আবার আসাদ তাদের জমি দখল করতে আসছে। আমি আসাদকে ফোন দিয়ে কোন প্রকার ঝামেলা সৃষ্টি না করতে অনুরোধ করি। তিনি আমাকে বলেন আপনি ওসি এসপির নির্দেশ মেনে চলেন আর উপরের আওয়ামী লীগ নেতার নির্দেশ মেনে চলি। আমার কিছু করার নাই। আমি তাৎক্ষণিক ওসিকে জানালে তিনি ফোর্স রেডি করতে বলেন। আমি এস আই আইয়ুবের নেতৃত্বে সেখানে ফোর্স পাঠায়।’

এস আই আইয়ুর বলেন, ‘আমি ঘটনা স্থলে পৌঁছানোর সাথে সাথে আসাদ তার বাহিনী নিয়ে পালিয়ে যায়। কামরুলের পরিবারের পক্ষ থেকে জানা তার বোনকে রাস্তায় শ্লীলতাহানি করেছে। এসময়ে তার বোনর সাথে হাতাহাতিতে তাদের একজনের হাত কিছুটা কেটে গেছে। আমরা আসাদ বাহিনীর কেউকে আটক করতে পারিনি। তারা পালিয়েছে। কামরুলের পরিবারকে মামলা করার পরামর্শ দিয়েছি।’

ডুমুরিয়া থানার ওসি আমিনুল ইসলাম বিপ্লব বলেন, ‘গত দুই মাস আগে ওই আওয়ামী লীগ নেতা আসাদ একই বাড়িতে হামলা চালিয়েছিল। ঘটনাটি আমি পুলিশের উপরের মহলকে জানিয়েছি। আজ ডিউটি অফিসার তাকে নিষেধ করার শর্তেও আবার হামলা চালিয়েছে। ভুক্তভোগী পরিবারের কাছ থেকে লিখিত অভিযোগ পেলে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মন্তব্য করুন

সর্বশেষ নিউজ

আরো পড়ুন