শনিবার, ৩০ মে ২০২০, ৩:২৫ এএম

সরকার, প্রশাসন, মানবিকতা এবং খেয়ে বাঁচার সংগ্রাম

:
প্রকাশিত: ৩:৩৫ অপরাহ্ন, ৪ মে ২০২০, সোমবার


বৈশ্বিক করোনা মোকাবেলায় জয়ী হতে এবং পরবর্তী টিকে থাকতে প্রয়োজন- সুদূর প্রসারী, টেকসই ও মানবিক পরিকল্পনা। এসডিজি’র আলোকে ভাবুন- মানুষ,সমাজ ও রাষ্ট্র ব্যবস্থা। বিশ্ব ব্যবস্থাও এর ব্যতিক্রম নয়।এ জন্যে সাসটেইনেবল সাপোর্ট এনশিউর জরুরি।সর্বগ্রে জরুরি কাজ সাধারণ মানুষের দোরগোড়ায় খাবার সরবরাহ । আমারা তো একথা জানিই- ‘নেসেসিটি নোজ নো ল’ অর্থাৎ ক্ষুধার্ত মানুষের কাছে রীতি-নিয়ম বা আইনেরও কোনও মূল্য নেই। যে কারণে আমাদের দেশে লকডাউন কার্যকর হয়ে উঠছে না।এ জন্যে বেশী জরুরি সেবা না থামিয়ে জরুরি সেবা নিশ্চিত করা। রেপিড‍‍‍‍ প্লান এবং রেপিড একশান।পুরনো লালফিতার মতো কোনও অজুহাতও নয়।চাই ডিজিটাল একশান বাটন রোল ক্লিক। সময়ই একথা বলছে। একবেলা খাইয়ে জান বাঁচলো তারপর জানি না, এমন নয়। আজ কাল পরশু তিনদিন, সাত দিন তারপর..।যার যেখানে যতটুকু দায়-দায়িত্ব আর করণীয় পালনের সুযোগ আছে ততটুকু পালন করি- যথার্থভাবে, আন্তরিকতায়, সততায়, স্বচ্ছতায়, মমতায়- যা আবহমান এবং সময়েরও দাবি।
মিডিয়ার কাছে,সমাজের কাছে নিজেদের শ্রেষ্ঠত্বের ঝারিঝুরি, জাহিরি নয়,দুর্দশায় পতিত মানুষের পাশে ঠিকঠাকমতো দায়িত্ব পালন করবেন সামর্থ্যবান কর্তা ও কতৃপক্ষ আছেন যারা- এটা হচ্ছে জনপ্রত্যাশা।এ ক্ষেত্রে সরকারের মূল বাস্তবায়নকারী অর্গান জনপ্রশাসনের টপ থেকে বটম অর্থাৎ তৃনমূল উপজেলা পর্যন্ত।সারা দেশের জেলা প্রশাসনসমুহ তার পার্ট অব গ্রেট সেন্টার। তাই সাধারণ মানুষ তাকিয়ে আছে স্থানীয় প্রশাসনের যথাযথ মঙ্গল কর্মের প্রতিটি পদক্ষেপের দিকে। প্রয়োজনে নড়াচড়া দিয়ে আরও আগাপাস্তলা অবলোকন করতে হবে আরও নিবিরভাবে। আপনাদের কাছে সরকারি খাদ্য সহায়তা যে কর্মসূচী বিদ্যমান, তা বেসিক স্টেকহোল্ডারের প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে হবে।নিরন্ন, অসচ্ছল, সুবিদাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীর পাশে দাঁড়াতে হবে সক্রিয়ভাবে। করোনাকালিন সময়ে চিকিৎসা ব্যবস্থার বাইরে খাদ্য পরিসেবা নিশ্চিত করা অতি জরুরি কাজ।এ জন্যে প্রশাসন, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী [বিশেষভাবে পুলিশ প্রশাসন], স্থানীয় সরকার, রাজনীতিবিদ, উন্নয়ন সংগঠন, পেশাজীবী, ব্যবসায়ী, নাগরিক সমাজ, গনমাধ্যমসহ সকল স্তরের আন্তঃসংযোগ সমন্বয় গুরুত্ব বহন করে। মোটকথা, সাধারণ মানুষের জীবন-জীবিকা, নিরাপত্তাবোধ আর খেয়ে বাঁচার নিশ্চয়তাকে যেন কোনও কিছুই গ্রাস না করতে পারে, তার প্রতি চাই দরদী মানবিক ও আন্তরিক দৃষ্টিপাত। জয়তু জীবন। মঙ্গল হউক সকলের।
স্বাধীন চৌধুরী, গনমাধ্যম, উন্নয়ন ও সংস্কৃতি সংগঠক।

মন্তব্য করুন

খবর অনুসন্ধান