বৃহস্পতিবার, ২৮ মে ২০২০, ২:০১ এএম

তিন দিন পর বিরক্ত হয়ে আজ রাস্তায় আসছি

নিজস্ব প্রতিবেদক:
প্রকাশিত: ১১:১৯ অপরাহ্ন, ২৯ মার্চ ২০২০, রোববার


তিন দিন পর বিরক্ত হয়ে আজ রাস্তায় আসছি

ছবি: সংগৃহীত

শিমুল রহমান। একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। থাকেন পূর্ব রাজাবাজার। করোনাভাইরাস ইস্যুতে সরকারি নির্দেশনা মেনে গত চার দিন তিনি বাসা থেকে বের না হলেও আজ রবিবার সড়কে বেরিয়েছেন। উদ্দেশ্য বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দেওয়া।

শিমুলের মতো আরও অনেক শিক্ষার্থী ও চাকরিজীবী এ ধরনের ‘অপ্রয়োজনে’ আজ সড়কে বের হয়েছেন। তাদের ভাষ্য, গত কয়েক দিন বাসায় থেকে থেকে বিরক্তি লেগে গেছে তাদের। তাই তারা সড়কে এসেছেন। তবে তারা এটাও মানছেন, এই পরিস্থিতিতে বের হওয়া ঠিক হয়নি।

আজ সড়কে রিকশা, সিএনজি ইজিবাইক ধরনের অনেক যানবাহনও দেখা গেছে, যা গত তিন দিন ছিল না রাজধানীর সড়কে।

দেশজুড়ে করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে সরকার লোকজনের চলাচল সীমিত করতে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে। মূলত আজ রবিবার শুরু হয়েছে এই ছুটি। এর আগে গত বৃহস্পতিবার ছিল স্বাধীনত দিবসের ছুটি, তারপর শুক্র ও শনিবার ছিল সাপ্তাহিক ছুটি। সেই হিসাবে আজ ছিল ছুটির চতুর্থ দিন।

এই ছুটির সঙ্গে গত বৃহস্পতিবার থেকে সরকার সব ধরনের গণপরিবহন বন্ধ ঘোষণা করে। এ ছাড়া সরকারি-বেসকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, অফিস, বিপণিবিতানও বন্ধ। আগামী ৪ এপ্রিল পর্যন্ত দেশের সবাইকে নিজ নিজ ঘরে অবস্থান করার জন্য নির্দেশনা দেয় সরকার। খুব প্রয়োজন না হলে কেউ যেন ঘরের বার না হন।

দেশজুড়ে এই কোয়ারেন্টাইন গত তিন দিন বেশ মানতে দেখা গেছে। রাজধানীর মূল সড়ক তো দূরের কথা বিভিন্ন অলিগলিতেও মানুষের সমাগম একেবারে ছিল না। কিন্তু চার দিনেই যেন হাঁপিয়ে উঠেছে মানুষ। আজ রবিবার দেখা গেল ভিন্ন চিত্র। পান্থপথ, বাংলামোটর, কাওরান বাজার, ফার্মগেট, কলাবাগানসহ বেশ কয়েকটি সড়কে বহুসংখ্যক মানুষকে সড়কে বের হতে দেখা গেছে।

সড়কে বের হওয়া আজিম নামের একজন বলেন, ‘ভাইরে, বাসায় কত বসে থাকা যায়? বিরক্ত হয়ে আজ রাস্তায় আসছি। তবে করোনা ঠেকাতে সরকারের সিদ্ধান্ত মেনে চললে আমাদেরই ভালো হতো।’

কলাবাগানের বাসিন্দা হান্নানের সঙ্গে নিরাপদ দূরত্ব রেখে কথা বলতে গেলে বিরক্ত হন তিনি। উল্টো তিনি এই প্রতিবেদকে সড়কে বের হওয়ার কারণ জানতে চান।

গত কয়েক দিন রাজধানীসহ সারা দেশে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকেও কঠোর হাতে দায়িত্ব পালন করতে দেখা গেছে। আজ তাতে ছিল শিথিলতা।

জরুরি দায়িত্ব পালনে নিয়োজিত চিকিৎসক, নার্স, চিকিৎসা সহকারী ও টেকনোলজিস্ট, সিটি করপোরেশন ও নিরাপত্তা প্রহরীদের ব্যাপার বিশেষ যত্নশীল হওয়ারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে আজ খুব নমনীয় অবস্থানে দায়িত্ব পালন করতে দেখা গেছে। করোনাভাইরাস ঠেকাতে সড়কে দায়িত্ব পালনরত পুলিশ কর্মকর্তারা সাধারণ মানুষকে জড়ো না হওয়ার অনুরোধসহ সচেতনতা তৈরিতে কাজ করেন।

আবদুল হামিদ নামের একজন পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে আমরা মানুষকে বোঝানোর চেষ্টা করছি যেন অপ্রয়োজনে বাসা থেকে বের না হয়। কিন্তু সবাই এটা মানছে না। আমরা নমনীয়ভাবে মানুষকে বোঝানোর চেষ্টা করছি।’

মন্তব্য করুন

খবর অনুসন্ধান

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১

সর্বশেষ নিউজ

আরো পড়ুন

Shares