শুক্রবার, ৩ জুলাই ২০২০, ৪:১৩ পিএম

চসিক নির্বাচনের দিন আধাবেলা অফিস খোলা, গাড়ি চলাচল সীমিত

নিজস্ব প্রতিবেদক:
প্রকাশিত: ৫:৪৯ অপরাহ্ন, ১৪ মার্চ ২০২০, শনিবার


চসিক নির্বাচনের দিন আধাবেলা অফিস খোলা, গাড়ি চলাচল সীমিত

ছবি- সংগৃহীত

টানা বন্ধে ভোটার উপস্থিতি কমার আশঙ্কায় চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনের দিন আধাবেলা অফিস খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। ভোটারদের চলাচলের স্বার্থে নির্বাচন চলাকালীন সময়ে সীমিত আকারে যানবাহন চালু থাকবে বলেও জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা। আগামী ২৯ মার্চ অনুষ্ঠেয় চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচন (চসিক) এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়িত হবে।

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচন উপলক্ষে নির্বাচন কর্মকর্তা ম্যাজিস্টেট এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাথে আজ চট্টগ্রাম সার্কিট হাউজে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় তিনি এই সিদ্ধান্তের কথা জানান।

সিইসি বলেন, ভোটের দিন যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকলে দূর-দূরান্ত থেকে ভোটাররা ভোটকেন্দ্রে আসতে পারেন না। অনেকে প্রতিবাদস্বরূপ ভোটকেন্দ্রেই আসেন না। সে কারণে আমরা চিন্তা করেছি, ভোটের দিন সীমিত আকারে যানবাহন চালু রাখব। তবে যানচলাচল পুরোপুরি উন্মুক্ত হবে না। আমরা সীমিত আকারে যানচলাচল চালু রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

সিইসি জানান, সরকারি-বেসরকারি অফিস-আদালত ও কল-কারখানাগুলো ভোটের দিন দুপুর ১২টা পর্যন্ত চালু রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন।

নির্বাচন নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে যে শঙ্কা ছিল তা ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের পর অনেকটাই দূর হয়েছে বলে মনে করছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা।

চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার এবিএম আজাদ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. সাইদুল ইসলাম চৌধুরী ও সিএমপি কমিশনার মো. মাহাবুবুর রহমান।

প্রার্থীদের পোলিং এজেন্টকে নিজ দায়িত্বে নির্বাচনী কেন্দ্রে যাওয়ার পরামর্শ দিয়ে সিইসি বলেন, ‘একটি সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য পোলিং এজেন্টের ভূমিকা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। এক্ষেত্রে পোলিং এজেন্টদেরকে অবশ্যই ভোটকেন্দ্রে আসতে হবে। তবে প্রায়ই আমরা একটি অভিযোগ পাই যে, এজেন্টদের কেন্দ্র থেকে কোনো একটি পক্ষ বের করে দিয়েছে। এক্ষেত্রে পরবর্তীতে তদন্ত করে সত্যতা পাওয়া যায় না। দেখা যায়,, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এজেন্ট আসেননি। আমি প্রার্থীদের বলবো, আপনারা দায়িত্বশীল এজেন্ট বাছাই করে কেন্দ্রে পাঠান। কেন্দ্রের ভেতরে তাদের নিরাপত্তার দায়িত্ব পুলিশ নেবে।’

জাল ভোট দেওয়ার সুযোগ না থাকায় ইভিএমকে একটি সফল উদ্যোগ উল্লেখ করে কে এম নূরুল হুদা ভবিষ্যতে সব নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করা হবে বলে জানান।

মন্তব্য করুন

সর্বশেষ নিউজ

আরো পড়ুন