১০, এপ্রিল, ২০২০, শুক্রবার

জামায়াত-শিবির নিষিদ্ধ চায় ছাত্রলীগ

নিজস্ব প্রতিবেদক:
প্রকাশিত: ১১:১২ পূর্বাহ্ন, ৩ মার্চ ২০২০, মঙ্গলবার


জামায়াত-শিবির নিষিদ্ধ চায় ছাত্রলীগ

ছবি- সংগৃহীত

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ এবং খুলনার কয়রা উপজেলায় ছাত্রলীগের দুই নেতাকে স্থানীয় শিবির নেতারা হত্যা করেছে বলে অভিযোগ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির নেতাদের। তারা বলেন, বেগমগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা রকিবুল ইসলাম ও খুলনার কয়রা উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হাদীউজ্জামান রাসেলকে হত্যা করেছে স্থানীয় শিবির। এর প্রতিবাদে রক্তের জবাব রক্তে দেবে ছাত্রলীগ বলে জানান ক্ষুব্ধ নেতারা। এছাড়া জামায়াত-শিবিরকে বাংলাদেশ থেকে নিষিদ্ধের দাবিও জানান ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতারা।

সোমবার (২ মার্চ) রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে বিক্ষোভ করে এসব কথা বলেন বিক্ষুদ্ধ ছাত্রলীগ।

এ সময় ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সভাপতি আল-নাহিয়ান খান জয় বলেন, বাংলাদেশের আনাচে-কানাচে যেখানেই শিবিরকে পাবে, সেখানেই তাদের গণধোলাই দিবে। সব দায়ভার আমি নেব। ছাত্রলীগ যুগের পর যুগ সন্ত্রাসীদের নির্মূল করে এসেছে। আমরা আর সহ্য করব না বলেও জানান তিনি।

জয় বলেন, শিবিরকে ধ্বংস করতে বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া সংগঠন ছাত্রলীগ একাই যথেষ্ট। আমরা যখন পতাকা উত্তোলন দিবস পালন করি, শিবির তখন এ দেশের সূর্য সন্তানদের হত্যা করে। আর এই বাংলার মাটিতে কোনো শিবিরকে থাকতে দেব না। দ্রুত সময়ের মধ্যে ছাত্রলীগ নেতা রকিবুল ইসলাম ও হাদীউজ্জামান রাসেল হত্যার বিচার নিশ্চিত করতে হবে। আমরা এই সোনার বাংলাদেশ থেকে জামায়াত-শিবির নিষিদ্ধ চাই

বিক্ষোভে ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য বলেন, নোয়াখালীতে সন্ত্রাসী শিবির চায়ের দোকানে হামলা চালিয়ে ছাত্রলীগের তিন নেতাকর্মীকে গুলিবিদ্ধ করেছে। তার মধ্যে একজন সোমবার (২ মার্চ) মারা গেছেন। ছাত্রলীগ কখনো সন্ত্রাসীদের মদদ দেয় না। অথচ এই ছাত্রলীগের নেতাকর্মীকে এভাবে হত্যা করেছে শিবির। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। দ্রুত সময়ের মধ্যে এই সন্ত্রাসীদের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড নিশ্চিত করতে হবে।

তিনি বলেন, শিবিরের চোখের দিকে তাকালেই আমরা বুঝতে পারি কে শিবির। স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি সর্বদা ছাত্রলীগের ওপর হামলা করে আসছে। সারাদেশে তারা এই সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড পরিচালনা করছে। আমরা এই চিত্র দেখতে চাই না। অতিদ্রুত বাংলাদেশ থেকে জামায়াত-শিবির নিষিদ্ধ করতে হবে।

ছাত্রলীগের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা সভাপতি সঞ্জিত চন্দ্র দাস বলেন, ‘আমরা রক্তের জবাব রক্তে দেব। আর সন্ত্রাসী সংগঠনকে বাংলাদেশে থাকতে দেওয়া হবে না। যেখানেই জামায়াত-শিবির দেখা যাবে, সেখানেই তাদের নির্মূল করবে ছাত্রলীগ।’

তিনি বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিবির নির্মূল করো তোমরা। তোমাদের সকল দায়িত্ব আমি নিলাম। আর কোনো শিবিরকে এই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকতে দেওয়া হবে না। আমরা এই অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ থেকে জামায়াত-শিবির নিষিদ্ধ চাই।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন বলেন, আর কত রক্ত চায় জামায়াত-শিবির? আর কত রক্ত দিলে এই জামায়াত-শিবির বাংলাদেশ ছেড়ে চলে যাবে? প্রয়োজনে আরও রক্ত দেবে ছাত্রলীগ, জীবন দেবে ছাত্রলীগ। তবুও আর কোনো সন্ত্রাসী সংগঠনকে এই দেশে থাকতে দেব না। আর কোনো জামায়াত-শিবির এ বাংলাদেশে থাকতে পারবে না। জামায়াত-শিবির নিষিদ্ধ করে বাংলাদেশকে পবিত্র করতে হবে।

উল্লেখ্য, এই হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে বিক্ষোভ থেকে মঙ্গলবার (৩ মার্চ) বেলা ১১টায় সারাদেশে ছাত্রলীগের সকল ইউনিটকে একযোগ বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ পালন করতে নির্দেশ দেওয়া হয়।

মন্তব্য করুন

খবর অনুসন্ধান

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০  

সর্বশেষ নিউজ

আরো পড়ুন

Shares