মঙ্গলবার, ২৬ মে ২০২০, ৬:২৫ পিএম

ষড়যন্ত্রের জালে বাংলাদেশ ব্যাংকের ময়মনসিংহ অফিস ও কেন্দ্রীয় ভল্ট -নাজনীন আলম

:
প্রকাশিত: ৬:১৪ অপরাহ্ন, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার


টাকশাল হতে গাজীপুর-টংগী-ঢাকা সিটি পার হতে ভয়াবহ যানযটের হাত থেকে রক্ষা পেতে এবং নানাবিধ সুবিধার্থে বিশেষজ্ঞদের পরামর্শে ময়মনসিংহে বাংলাদেশ ব্যাংকের কেন্দ্রীয় ভল্ট প্রতিষ্ঠা এবং একটি মানসম্পন্ন ও সময়োপযোগী শাখা অফিস নির্মাণে দূরদর্শী সিদ্ধান্ত ও উদ্যোগ নেয়া হয়। সে লক্ষ্যে ময়মনসিংহের বাইপাস রোডের বাড়েরায় প্রয়োজনীয় জমি ক্রয়ের পর আংশিক ভবন নির্মাণ করে সীমিত পর্যায়ে ব্যাংকের শাখা অফিসের কার্যক্রম চালু হলেও এখনও ক্যাশ বিভাগ চালু করা হয়নি।
এছাড়া, কেন্দ্রীয় ভল্ট স্থাপনে চলছে নানামূখী অপতৎপরতা। কারো কারো ঈর্শান্বিত ও ষড়যন্ত্রমূলক কর্মকান্ডে আজ এর বাস্তবায়ন হুমকীর সম্মুখীন। যতদূর জানা যায় স্বাধীনতার স্বপক্ষের উর্বর ভূমি ময়মনসিংহের নামের উপর যাদের এলার্জি আছে তারাসহ সরকার বিরোধী কোন কোন নির্বাহী এবং তাদের দোসররা মরিয়া হয়ে উঠেছে মূল নকশা অনুযায়ী ময়মনসিংহে ব্যাংকের কেন্দ্রীয় ভল্ট না করতে এবং বাংলাদেশ ব্যাংক ময়মনসিংহ অফিসকে সংকোচিত করতে।
প্রশাসনিক বিকেন্দ্রীকরণ, অধিকতর নিরাপত্তা, রাজধানীর উপর চাপ কমানোর সরকারী নীতি, ব্যাংকের লোকবল বৃদ্ধিসহ পদোন্নতির সুযোগ সৃষ্টি, ব্যবসা বাণিজ্য ও কর্মসংস্থান বৃদ্ধি, ময়মনসিংহ, বগুড়া, রাজশাহী, রংপুর ও সিলেট অফিসে স্বল্প সময়ে এবং কম খরচে টাকা/সম্পদ পরিবহনে অধিকতর সহায়ক হতে পারে ময়মনসিংহের কেন্দ্রীয় ভল্ট৷ এছাড়া, ভয়াবহ যানজট পেরিয়ে গাজীপুর টাকশাল হতে মতিঝিলে টাকা/সম্পদ পৌছাতে ৪/৫ ঘন্টা সময় লাগে। আর টাকশাল হতে দেশসেরা সড়কে যানযটমুক্তভাবে ময়মনসিংহ পৌঁছতে সময় লাগে ১ঘন্টা ২০ মিনিট। এছাড়া টাকশাল হতে ঢাকা হয়ে চট্রগ্রাম এবং খুলনা পৌঁছাতে যে সময় লাগে টাকশাল হতে ময়মনসিংহ হয়ে যমুনা ব্রীজ পেড়িয়ে খুলনা পৌঁছতে কমপক্ষে ৩/৪ ঘন্টা সময় কম লাগবে। তদ্রুপ টাকশাল হতে ময়মনসিংহ-ভৈরব-কুমিল্লা-ফেনী হয়ে চট্রগ্রাম পৌঁছতেও কয়েক ঘন্টা সময় কম লাগবে।
এছাড়া, নানাবিধ সুবিধা বিদ্যমান থাকায় বর্তমানে ময়মনসিংহ ও এর আশে-পাশে দেশের বেশীরভাগ শিল্প কারখানা প্রতিষ্ঠিত হওয়ায় এ অঞ্চলের অর্থনৈতিক কর্মকান্ড ও গুরুত্ব অনেক বেড়ে গেছে। কৃষিপষ্য ও মৎস্যসহ দেশের ভোগ্য ও রপ্তানীপন্যের বড় অংশ উৎপাদিত হয় এ অঞ্চলে। ভবিষ্যতে দেশজ উৎপাদন ও অর্থনৈতিক কর্মকান্ডের গতি বহুগুনে বৃদ্ধির সম্ভাবনা থাকায় অনুমোদিত মূল নকশা অনুযায়ী কেন্দ্রীয় ভল্ট এবং শাখা অফিস এখানে স্থাপন অধিকতর যুক্তিযুক্ত।
বাংলাদেশ ব্যাংক হেড অফিসের গুরুত্বপূর্ণ জায়গাগুলিতে বসে আছে সরকার বিরোধীরা। বৃহৎ জনগোষ্ঠীকে সরকারের বিরোদ্ধে ক্ষেপিয়ে তুলতে এটা তাদের একটা ষড়যন্ত্রও হতে পারে। দেশের সিংহভাগ জনগনের আকাঙ্খা বাস্তবায়নে এই ঘৃণ্য ষড়যন্ত্র প্রশাসনিক, সামাজিক এবং রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করা অপরিহার্য হয়ে পড়েছে। স্বাধীনতা বিরোধী এবং সরকার বিরোধীদের কারণে মরহুম সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, ড. আতিউর রহমান এবং জনাব ম. মাহফুজুর রহমানসহ সংশ্লিষ্টদের স্বপ্ন বৃথা যেতে পারে না।
অনুমোদিত মূল নকশা অনুযায়ী ময়মনসিংহে বাংলাদেশ ব্যাংকের কেন্দ্রীয় ভল্ট এবং শাখা অফিস স্থাপনে দায়িত্বশীলদের দ্রুত হস্তক্ষেপ এখন অতি জরুরী।
লেখক পরিচিতি: কার্যনির্বাহী সদস্য, ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী লীগ।

মন্তব্য করুন

খবর অনুসন্ধান

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১

সর্বশেষ নিউজ

আরো পড়ুন

Shares