২০, এপ্রিল, ২০১৯, শনিবার | | ১৪ শা'বান ১৪৪০

কল্পনাকে জাগ্রত করেই সঠিক সাফল্য অর্জিত হয়

শিক্ষাহীন মানুষের নিজস্ব জ্ঞান স্ব-পরিবেশে সীমাবদ্ধ থাকে। 'শিক্ষা' তার নিজ পরিবেশ সহ বিভিন্ন সমাজ কিংবা সভ্যতা'র সম্পর্ক গড়ে তোলেই যেন সচেতন করে। মনীষীর জীবনকে পর্যালোচনায়, অতীতের আলোকে বর্তমানের স্বরূপ উদঘাটন, দেশ-কালের নানা বৈচিত্র্যময় পরিবেশের ''আদর্শ, নীতি, বিশ্বাস এবং সংস্কার'' এর বিভিন্নতার উপলব্ধি, সহানুভূতির "উদারতা ও প্রসস্ততা" কিংবা বিচারের দ্বীপ্তিতে কল্পনার

সংস্কৃতির আত্মানুসন্ধানে পহেলা বৈশাখের অগ্রযাত্রা

বাংলা পঞ্জিকার ১ম মাস বৈশাখের ১ তারিখেই হয় ‘পয়লা বৈশাখ’ বা ‘পহেলা বৈশাখ’। বাংলা সনের এ দিনটিকেই বলা হয় বাংলা ‘নববর্ষ’। এমন দিনটিকেই বাংলাদেশের মানুষ খুব উৎসবের সঙ্গেই পালন করে আসছে। শুভ ‘নববর্ষ’ উদযাপনে সকল শ্রেণি-পেশার মানুষ জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে অংশ গ্রহণ করে থাকে। বাঙালি মেয়েরা ঐতিহ্যবাহী পোশাক শাড়ী এবং পুরুষেরা

জ্ঞানহীন মানুষের হাতেই শুরু শিক্ষা ও সাক্ষরতা

প্রস্তর যুগের আদিম মানুষ তাদের ক্রিয়াকলাপ, দেবতাকুলের শক্তি এবং লীলা বৈশিষ্ট্যের উপরেই যেন অন্ধবিশ্বাস ছিল, তখন ছিল না মনের ভাব প্রকাশের কোনো "ভাষা"। ঋতু চক্রের পরিবর্তনে জীবনকর্মের প্রয়োজনের তাগিদেই ধীরে ধীরেই নিরক্ষর মানুষ জাতিরাই সৃষ্টি করা শিখ ছিল ''ভাষা''। দীর্ঘ পথের পরিক্রমায় এমন নিরক্ষর মানব জাতি ভাষার সহিত অক্ষর আবিষ্কার

জ্ঞানহীন মানুষের হাতেই শুরু শিক্ষা ও সাক্ষরতা

প্রস্তর যুগের আদিম মানুষ তাদের ক্রিয়াকলাপ, দেবতাকুলের শক্তি এবং লীলা বৈশিষ্ট্যের উপরেই যেন অন্ধবিশ্বাস ছিল, তখন ছিল না মনের ভাব প্রকাশের কোনো "ভাষা"। ঋতু চক্রের পরিবর্তনে জীবনকর্মের প্রয়োজনের তাগিদেই ধীরে ধীরেই নিরক্ষর মানুষ জাতিরাই সৃষ্টি করা শিখ ছিল ''ভাষা''। দীর্ঘ পথের পরিক্রমায় এমন নিরক্ষর মানব জাতি ভাষার সহিত অক্ষর আবিষ্কার

জাতীয় স্বাধীনতা ২৬ মার্চের মধ্য দিয়ে ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশের পূর্ণ

মুক্তিযুদ্ধ আমাদের গর্ব ও অহংকার। এ মুুুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে আমরা পেয়েছি স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধুর- সেই সোনার বাংলাদেশ এবং দিনেদিনেই এসে দাঁড়িয়েছে প্রযুক্তি নির্ভর ডিজিটাল বাংলাদেশ। ১৯৪৭ সালে ব্রিটিশের নিকট থেকে এদেশের জনগণ স্বাধীনতা লাভের পর থেকেই পাকিস্তানের- দুই প্রদেশের মধ্যে যেন বিভিন্ন প্রকার ইস্যু নিয়ে সম্পর্কের অবনতি ঘটে, সেগুলোর

নিজ পরিচয়ে সারাবিশ্বে ও স্বদেশের উজ্জ্বল নক্ষত্র, শ্রেষ্ঠ রাষ্ট্রনায়ক শেখ

মানুষের মূল্য এবং সর্বোচ্চ মূল্যায়ন করাটা তাঁর বংশ পরিচয়ে নয়, কর্মেই তাঁর পরিচয়। তাঁর জন্মগ্রহণ যেখানে বা যে বংশেই হোক কর্মের মানদণ্ডে সেই মানুষকে 'শ্রেষ্ঠত্ব কিংবা নীচুতা’ নির্ণীত করা হয়। জন্ম গত সূত্রেই যেন এক একজন মানুষ তাঁর আসল পরিচয় নির্ণয় করতে চায়, বলতে চাই যে, তাঁর প্রকৃত পরিচয় নিজস্ব

গ্রন্থমেলার একুশের আমেজ, বেড়েছে বই বিক্রি

আজ বুধবার, অমর একুশে গ্রন্থমেলার ২০তম দিন। আগামীকালই আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস। প্রতিবছর এ দিনে মাতৃভাষার জন্য নিজের জীবন দেয়া বীর শহীদদের গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে দেশের জনগণ। একই সাথে এদিন অমর একুশে গ্রন্থমেলায় থাকে বইপ্রেমী ও দর্শনার্থীদের উপচেপড়া ভিড়। ছুটির দিন থাকায় সবাই মেলায় আসেন। কেউ আসেন

"একুশে ফেব্রুয়ারি"

আব্দুল গাফফার চৌধুরী বলিয়া ছিলেন "আমার ভাইয়ের রক্তের রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি"আমি কি ভুলিতে পারি ।অ আ ক খ রফিক ,শফিক,সালাম ,বরকত ,আমরা তোমায় ভালবাসি। নামিয়া ছিলো আন্ধার বায়ান্নতেমাতৃভাষা বাংলার লাগি,করিয়া ছিলো অত্যাচার এক দল পিশাচ বাহিনী। আহারে! এই মাতৃভাষা বাংলার লাগি কত শত রফিক , শফিক, সালাম, বরকত বলিয়াছিলো......রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই,  বাংলা চাই। এক মহাসাগর রক্তের তরে উপহার পাইয়াছি মোদের

কলকাতার নিউটাউনে দুই বাংলার শিল্পীদের সুর ও ছবিতে রবীন্দ্র-নজরুল!

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষ্যে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ও বাংলাদেশের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম স্মরণে দুই বাংলার শিল্পীদের অংশগ্রহনে অনুষ্ঠিত হচ্ছে রবীন্দ্র-নজরুল উৎসব- 'সীমানা ভুলে এক সুরে, রবীন্দ্র-নজরুলে' অনুষ্ঠান। নজরুলতীর্থে (নিউটাউন) দুদিনব্যাপী এ অনুষ্ঠানটি হবে আগামী ২৩ ও ২৪ ফেব্রুয়ারি। অনুষ্ঠানটির আয়োজন করছে ছায়ানট কলকাতা।সোমঋতা মল্লিকের পরিকল্পনা ও পরিচালনায় দুই

ভালোবাসার দিন আজ

ভালোবাসার দিন আজ'আমার আপনার চেয়ে আপন যে জন/খুঁজি তারে আমি আপনায়/আমি শুনি যেন তার চরণের ধ্বনি/আমারি পিয়াসী বাসনায়।' কবি নজরুলের এই আবেগমাখা অনুভূতি আজ ছুঁয়ে আছে কোটি কোটি মানুষের হৃদয়। মনের মনিকোঠায় আজ আলোর নাচন। বহুদিনের সুপ্ত বাসনাগুলো আজ ঠিকরে বেরিয়ে আসতে করছে উথালপাতাল। প্রিয় মানুষটার চোখে চোখ রেখে বলতে

চারুকলায় বসন্ত বরণের রজতজয়ন্তী

বাঙালির জাতীয় জীবনে বসন্তের উপস্থিতি আদিকাল থেকেই। কবিতা, গান, নৃত্য আর প্রকৃতির রঙই যেন বসন্ত উৎসবের প্রধান অনুষঙ্গ। চারুকলার বকুলতলা মানেই বসন্ত বরণের উৎসব। আর প্রতিবছর এখানেই এই উৎসবের আয়োজন করে আসছে জাতীয় বসন্ত উৎসব উদযাপন পরিষদ। যদিও চারুকলার শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণেও অনেক ধরনের অনুষ্ঠান হয়ে থাকে।এ বছর বকুলতলায় বসন্ত বরণ

হৃদয়ে অশ্রুবর্ষণ

চিত্ত মোর কিঞ্চিত নীল অজানা হেতুতে ,জানিনা হয়েছে কি অমিল মোর মনের বসুন্ধরাতে ।আজ স্বর্গের সরণিতে যাইবার কালে,হঠাৎ অম্বরে নামিয়া পড়িল ঘন কৃষ্ণ বলাহক। কমল যে মোর সামনে আসিয়া করিল রাজপথে বৈঠক ।কমল মোর কান্ত সেই কান্তর কলত্র মুই, পথ হয়েছে কলঙ্ক যেই কান্তের সাথে শুভদৃষ্টির তরেই ।প্রসূন যেন প্রস্ফুটিত হইবেই ।কি হইলো কিন্ঞ্চিত সাক্ষাতে ?রিদয়ে হইয়াছে অশ্রুবর্ষণ তারি

নলিনীকান্ত ভট্টশালীর মৃত্যুবার্ষিকী আজ

ঢাকা জাদুঘরের (বর্তমানে বাংলাদেশের জাতীয় জাদুঘর) প্রতিষ্ঠাতা কিউরেটর নলিনীকান্ত ভট্টশালীর ৭২তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ বুধবার। জাদুঘরের এ প্রতিষ্ঠাতা ১৯৪৭ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি ঢাকা জাদুঘরের বাণী কুটিরে মারা যান।ড. নলিনীকান্ত জীবনের মূল্যবান সময় ব্যয় করে গড়ে তোলেন ঢাকা জাদুঘর। ঢাকা জাদুঘরই আজ বাংলাদেশের জাতীয় জাদুঘর।তিনি মুন্সীগঞ্জ জেলার টঙ্গিবাড়ি উপজেলার নয়ানন্ধ গ্রামের নানাবাড়িতে

নবাব সিরাজউদ্দৌলার পতনের মূলে ছিল চার বাঙালি

এক মুসলিম নবাব প্রাণপণে চেষ্টা করলেন বাংলা বাঁচাতে। অপরদিকে হিন্দু প্রভাবশালী ব্যক্তিত্বরা ক্রমাগত সাহায্য করে গেল ইংরেজদের। ফলাফল প্রথমে ইংরেজ বাহিনীর কলকাতা দখল এবং পরে বাংলা দখল। ২ জানুয়ারি ১৭৫৭, এমন দিনেই কলকাতা পুনর্দখল করে ইংরেজরা। এরপর পলাশির যুদ্ধে কলকাতা এবং বাংলাকে পরিপূর্ণভাবে দখলে এনেছিল ব্রিটিশরা। বিশ্বাসঘাতকতার সৌজন্যে প্রভাবশালী রায়দুর্লভ

কল্পনা তুই আমার কল্পনা

একদিন, অপেক্ষায় থাকবো সেইদিন, তুই আসবি তোর হাত ধরে হাঁটবো স্বর্গের পথে, মিষ্টি সুবাসে দু'জন মিলে ভালবাসায় ভাসব। পথ শেষ, একটু দূরেই ওই পাহাড়, আঁকব তোকে নিয়ে রংতুলির কত বাহার। যদি কখনো, ফুরিয়ে যায় সব প্রেম তবে আসিস, দিয়ে দিব সব উজার করে থাকবে না আর হেম। তুই কি আমার শাহজাহান  ? নবাব সিরাজউদৌল্লা !তবে, আমিই তোর মমতাজ আর

‘স্বপ্ন পাড়ি’

নীল আকাশে তাকিয়ে দেখি মেঘের কত খেলা দেখছো নাকি দেখছো খুকি রংধনুর ওই মেলা !সাদা টিপ ঢেকে আছে ওই আকাশেতে দেখা তো যায় না তাকে মেঘেরি কারণেতে ,এক টুকরো মেঘ দেখো করছে কত হেলা হচ্ছে দেখো হচ্ছে আবার কত রকম ভেলা। কখনো দেখো ঘোড়া সাজছে কখনো আবার গাড়ি যাবে নাকি যাবে খুকি মেঘেদের ওই বাড়ি! তোমায় নিয়ে দেব

পল্লী কবি জসীমউদ্দীনের ১১৬তম জন্মদিন আজ

পল্লী কবি জসীমউদ্দীনের ১১৬তম জন্মদিন আজ। ১৯০৩ সালের আজকের এ দিনে ফরিদপুরের সদর উপজেলার তাম্বুলখানা গ্রামে জসীমউদ্দীন জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা আনসার উদ্দিন মোল্লা ছিলেন স্কুলশিক্ষক। মা আমিনা খাতুন ওরফে রাঙাছুট।ছোটবেলা থেকেই কবি সাহিত্য চর্চা শুরু করেন। তিনি ফরিদপুর ওয়েলফেয়ার স্কুল ও ফরিদপুর জেলা স্কুলে অধ্যয়ন করেন। ১৯২৯ সালে কলকাতা

কাজ চলছে কিশোরদের জন্য লেখা নজরুলের ৫১টি কবিতার সংকলন

ছায়ানট (কলকাতা) এর উদ্যোগে, কোয়েস্ট ওয়ার্ল্ড থেকে প্রকাশিত, সোমঋতা মল্লিকের পরিকল্পনা ও পরিচালনায়, 'ইতি নজরুল', 'ঝিঙে ফুল', এবং সাম্প্রতিক অডিও অ্যালবাম 'জানা-অজানা নজরুল' এর সাফল্যের পর, এখন কাজ চলছে কাজী নজরুল ইসলামের কিশোরদের জন্য লেখা ৫১টি কবিতার সংকলন। এছাড়াও ছায়ানট (কলকাতা) আয়োজিত আগামী নজরুল মেলাতে প্রকাশিত হতে চলেছে প্রবাসে নজরুলচর্চা

সমসাময়িক চেতনায় সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীতে শেখ হাসিনার সামাজিক উন্নয়ন

কাজের পরিকল্পনার চেয়ে কাজে লেগে যাওয়ার গুরুত্বটাই অনেক বেশি। তাই ভাবনা-বাহুল্যের প্রয়োজন নেই প্রয়োজনীয়তা হলো কর্মের সাফল্য কিংবা অর্জন। সুতরাং যাকে ভাবতে হবে, তা কাজে রূপদান করে সে ভাবনাকেই সার্থক করতে হবে। প্রাচীন শাস্ত্রে রয়েছে,- ''কর্মহি সত্যমেব জীবন'' অর্থাৎ কর্মের মধ্যেই সকল মানব জীবনের সাফল্যের বীজ নিহিত। সে জন্য কাজ

ঠাকুরগাঁওয়ে আলোকচিত্র প্রদর্শনীতে দেশের পাশাপাশি স্থান পেয়েছিল ‘বিদেশি ছবি’

ঠাকুরগাঁও ফটোগ্রাফিক সোসাইটির পাঁচদিন ব্যাপী ‘আলোকচিত্র প্রদর্শনী’ শেষ হয়েছে। এই আলোকচিত্র প্রদর্শনীতে এবার বাংলাদেশের পাশাপাশি স্থান পেয়েছিল ভারত, ড্রেনমার্কসহ বেশ কয়েকটি দেশের ছবি। দেশের বিভিন্ন স্কুল-কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়সহ সব বয়সের আলোকচিত্রীদের তোলা ১০৪টি ছবি এই প্রদর্শনীতে স্থান পায়।  মুক্তিযুদ্ধ, দেশীয় ঐতিহ্য, জীবন, প্রকৃতিসহ নানা বিষয়ের ওপর ছবি প্রদর্শনীত হয়। এসব আলোকচিত্র দেখার জন্য