২২, আগস্ট, ২০১৯, বৃহস্পতিবার | | ২০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০


ফেরার অপেক্ষায় বাংলা চলচ্চিত্রের এক সময়ের শীর্ষ নায়িকা পূর্ণিমা

রিপোর্টার নামঃ বিনোদন ডেস্ক: | আপডেট: ২৭ এপ্রিল ২০১৮, ১২:৩২ পিএম

ফেরার অপেক্ষায় বাংলা চলচ্চিত্রের এক সময়ের শীর্ষ নায়িকা পূর্ণিমা
ফেরার অপেক্ষায় বাংলা চলচ্চিত্রের এক সময়ের শীর্ষ নায়িকা পূর্ণিমা

বাংলা চলচ্চিত্রের এক সময়ের শীর্ষ নায়িকা পূর্ণিমা। ১৯৯৭ সালে জাকির হোসেন রাজু পরিচালিত ‘এ জীবন তোমার আমার’ ছবির মাধ্যমে চলচ্চিত্রে অভিষেক হয় তার। প্রথম দুই-তিনটা ছবি ফ্লপ হলেও নব্বইয়ের দশকের শেষ দিক থেকে টানা এক দশকেরও বেশি সময় ধরে তিনি মৌসুমী-শাবনূরদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে অভিনয় করেছেন। দুহাত ভরে কামিয়েছেন খ্যাতি। পূর্ণিমার সঙ্গে নায়ক রিয়াজের জুটি ছিল সর্বাধিক জনপ্রিয়। অভিনয় প্রতিভা দিয়ে একবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জিতেছেন তিনি।

তবে বেশ কয়েক বছর ধরে অভিনয়ে একেবারেই অনিয়মিত মিষ্টি হাসি ও চেহারার নায়িকা পূর্ণিমা। ২০০৭ সালে বিয়ে করে সংসারী হওয়ার পর থেকেই কমতে থাকে তার কাজের সংখ্যা। ২০১২ সালে এসে সেটা আরও কমে যায়। ২০১২ থেকে ২০১৪- এই তিন বছরে মাত্র তিনটি ছবি মুক্তি পেয়েছে পূর্ণিমার। অন্যদিকে, গত চার বছরে কোনো ছবির কাজই করেননি তিনি। পূর্ণিমা অভিনীত শেষ ছবি ‘লোভে পাপ পাপে মৃত্যু’। ২০১৪ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত সে ছবিতে পুর্ণিমার বিপরীতে ছিলেন নায়ক রিয়াজ ও আমিন খান।
তবে একেবারেই হারিয়ে যাননি নায়িকা। মাঝে মাঝে তার দেখা মেলে ছোট পর্দার নাটকে ও বিভিন্ন অনুষ্ঠান উপস্থাপনায়। নতুন বছরে এসে বড় পর্দায় ফেরারও ইঙ্গিত দিলেন তিনি। সম্প্রতি একটি সাক্ষাৎকারে গণমাধ্যমকে পূর্ণিমা জানালেন, ‘ভালো গল্প ও চরিত্রের অপেক্ষায় আছি। গৎবাঁধা ছবিতে আর অভিনয় করতে চাই না। ভালো গল্প আর চরিত্র পেলে আবারও ক্যামেরার সামনে দাঁড়াব। তাতে যদি আরও কিছুদিন অপেক্ষা করতে হয় আমার আপত্তি নেই।’

তবে বড় পর্দায় অনিয়মিত হওয়ায় কিছুটা খারাপ লাগা কাজ করে পূর্ণিমার। তার কথায়, ‘কিছুটা খারাপ তো লাগেই। তবে বাস্তবতা মেনে নিতেই হবে। আমি এক সময় শীর্ষ নায়িকা ছিলাম। এখন নতুনরা এসেছে। তাদের স্থান ছেড়ে দিতে হবে। আমার আগে যারা শীর্ষে ছিলেন তাদেরও একই কাজ করতে হয়েছে। কিন্তু এটা ভেবে ভালো লাগে যে, আমাদের সময়ে কিছু ভালো ছবি তৈরি হয়েছে। যেগুলো দর্শক এখনও মনে রেখেছেন। নিজেকে তাই সৌভাগ্যবান মনে করি।’
পূর্ণিমা আপাতত ব্যস্ত আরটিভিতে প্রচারিত ‘এবং পূর্ণিমা’ নামের একটি অনুষ্ঠান উপস্থাপনা নিয়ে। কিছুদিন আগে যে অনুষ্ঠানে খল-অভিনেতা মিশা সওদাগরকে করা ধর্ষণ বিষয়ক একটি প্রশ্ন এবং প্রশ্নের প্রেক্ষিতে মিশার দেয়া উত্তরকে ঘিরে দেশজুড়ে শুরু হয়েছিল তোলপাড়। তুমুল সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন দুজনেই। তবে সব সমালোচনাকে পাশ কাটিয়ে এখনও সেই অনুষ্ঠানটি চালিয়ে যাচ্ছেন পূর্ণিমা। সামনে ঈদ উপলক্ষ্যে নির্মিত একটি টেলিছবিতে কাজ করার কথা রয়েছে তার।

ফেরার অপেক্ষায় বাংলা চলচ্চিত্রের এক সময়ের শীর্ষ নায়িকা পূর্ণিমা

প্রতিবেদক নাম: বিনোদন ডেস্ক: ,

প্রকাশের সময়ঃ ২৭ এপ্রিল ২০১৮, ১২:৩২ পিএম

বাংলা চলচ্চিত্রের এক সময়ের শীর্ষ নায়িকা পূর্ণিমা। ১৯৯৭ সালে জাকির হোসেন রাজু পরিচালিত ‘এ জীবন তোমার আমার’ ছবির মাধ্যমে চলচ্চিত্রে অভিষেক হয় তার। প্রথম দুই-তিনটা ছবি ফ্লপ হলেও নব্বইয়ের দশকের শেষ দিক থেকে টানা এক দশকেরও বেশি সময় ধরে তিনি মৌসুমী-শাবনূরদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে অভিনয় করেছেন। দুহাত ভরে কামিয়েছেন খ্যাতি। পূর্ণিমার সঙ্গে নায়ক রিয়াজের জুটি ছিল সর্বাধিক জনপ্রিয়। অভিনয় প্রতিভা দিয়ে একবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জিতেছেন তিনি।

তবে বেশ কয়েক বছর ধরে অভিনয়ে একেবারেই অনিয়মিত মিষ্টি হাসি ও চেহারার নায়িকা পূর্ণিমা। ২০০৭ সালে বিয়ে করে সংসারী হওয়ার পর থেকেই কমতে থাকে তার কাজের সংখ্যা। ২০১২ সালে এসে সেটা আরও কমে যায়। ২০১২ থেকে ২০১৪- এই তিন বছরে মাত্র তিনটি ছবি মুক্তি পেয়েছে পূর্ণিমার। অন্যদিকে, গত চার বছরে কোনো ছবির কাজই করেননি তিনি। পূর্ণিমা অভিনীত শেষ ছবি ‘লোভে পাপ পাপে মৃত্যু’। ২০১৪ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত সে ছবিতে পুর্ণিমার বিপরীতে ছিলেন নায়ক রিয়াজ ও আমিন খান।
তবে একেবারেই হারিয়ে যাননি নায়িকা। মাঝে মাঝে তার দেখা মেলে ছোট পর্দার নাটকে ও বিভিন্ন অনুষ্ঠান উপস্থাপনায়। নতুন বছরে এসে বড় পর্দায় ফেরারও ইঙ্গিত দিলেন তিনি। সম্প্রতি একটি সাক্ষাৎকারে গণমাধ্যমকে পূর্ণিমা জানালেন, ‘ভালো গল্প ও চরিত্রের অপেক্ষায় আছি। গৎবাঁধা ছবিতে আর অভিনয় করতে চাই না। ভালো গল্প আর চরিত্র পেলে আবারও ক্যামেরার সামনে দাঁড়াব। তাতে যদি আরও কিছুদিন অপেক্ষা করতে হয় আমার আপত্তি নেই।’

তবে বড় পর্দায় অনিয়মিত হওয়ায় কিছুটা খারাপ লাগা কাজ করে পূর্ণিমার। তার কথায়, ‘কিছুটা খারাপ তো লাগেই। তবে বাস্তবতা মেনে নিতেই হবে। আমি এক সময় শীর্ষ নায়িকা ছিলাম। এখন নতুনরা এসেছে। তাদের স্থান ছেড়ে দিতে হবে। আমার আগে যারা শীর্ষে ছিলেন তাদেরও একই কাজ করতে হয়েছে। কিন্তু এটা ভেবে ভালো লাগে যে, আমাদের সময়ে কিছু ভালো ছবি তৈরি হয়েছে। যেগুলো দর্শক এখনও মনে রেখেছেন। নিজেকে তাই সৌভাগ্যবান মনে করি।’
পূর্ণিমা আপাতত ব্যস্ত আরটিভিতে প্রচারিত ‘এবং পূর্ণিমা’ নামের একটি অনুষ্ঠান উপস্থাপনা নিয়ে। কিছুদিন আগে যে অনুষ্ঠানে খল-অভিনেতা মিশা সওদাগরকে করা ধর্ষণ বিষয়ক একটি প্রশ্ন এবং প্রশ্নের প্রেক্ষিতে মিশার দেয়া উত্তরকে ঘিরে দেশজুড়ে শুরু হয়েছিল তোলপাড়। তুমুল সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন দুজনেই। তবে সব সমালোচনাকে পাশ কাটিয়ে এখনও সেই অনুষ্ঠানটি চালিয়ে যাচ্ছেন পূর্ণিমা। সামনে ঈদ উপলক্ষ্যে নির্মিত একটি টেলিছবিতে কাজ করার কথা রয়েছে তার।