শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৭:১৫ এএম

সদ্যোজাত মেয়ে সন্তানকে দাফনের আগেই লাশ হলেন মা-বাবা

নিজস্ব প্রতিবেদক :
প্রকাশিত: ৯:৪৯ অপরাহ্ন, ৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, বুধবার


সদ্যোজাত মেয়ে সন্তানকে দাফনের আগেই লাশ হলেন মা-বাবা

ছবি : সংগৃহীত

ঢাকায় জন্ম হয় শিশুটির। নাম রাখা হয় তামান্না। এরপর অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে ঢাকারই একটি প্রাইভেট ক্লিনিকে ভর্তি করানো হয়। ভাগ্যের নির্মম পড়িহাস, তামান্নাকে বাঁচানো সম্ভব হলো না। চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করে শিশুটি।

এদিকে সদ্যোজাত মেয়ের নিথর দেহটি ঢাকা থেকে অ্যাাম্বুলেন্সে করে নিজ এলাকা ঝালকাঠিতে নিয়ে যাচ্ছিলেন বাবা-মা। সাথে ছিলেন দাদি ও কাকাসহ আরও একজন। কে জানতো, এই যাত্রাই হবে তাদের শেষ যাত্রা! কে জানতো, ক্ষণজন্মা মেয়েটিকে দাফনের আগেই সকলকে চলে যেতে হবে ওপারে! কে জানতো, একটি সড়ক দুর্ঘটনা কেড়ে নেবে সকলের প্রাণ।

বরিশাল-ঢাকা মহাসড়কের উজিরপুর উপজেলার আটিপাড়া নামক স্থানে বাস, কাভার্ডভ্যান ও অ্যাম্বুলেন্সের ত্রিমুখী সংঘর্ষে একই পরিবারের ৪ জনসহ ৬ জন নিহত হয়েছেন। বুধবার বিকেল পৌনে ৫টার দিকে ঘটে এই মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনা। অ্যাম্বুলেন্সের সকল যাত্রীই প্রাণ হারান। তাদের মধ্যে ৫ জনের পরিচয় মিলেছে।

নিহতরা হলেন, তিন দিন বয়সী মৃত তামান্নার বাবা ঝালকাঠির বাসিন্দা আরিফ রাঢ়ী, মা শিউলী বেগম, দাদি নুরজাহান বেগম, চাচা কাইয়ুম রাঢ়ী, এ্যাম্বুলেন্স চালক মো. আলমগীর ও অজ্ঞাত এক পুরুষ। ধারণা করা হচ্ছে ওই পুরুষ ব্যক্তি নিহতের স্বজন।

উজিরপুর থানার ওসি জিয়াউল আহসান জানান, ঢাকা থেকে শিশুর মরদেহ নিয়ে অ্যাম্বুলেন্সটি ঝালকাঠির উদ্দেশ্যে যাচ্ছিল। দুর্ঘটনা কবলিত স্থান অতিক্রমকালে বিপরীত দিক থেকে আসা কাভার্ডভ্যানকে পেছন থেকে সজোরে ধাক্কা দেয় একটি যাত্রীবাহী বাস।

ওই সময় কাভার্ডভ্যানটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বিপরীতগামী অ্যাম্বুলেন্সের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে অ্যাম্বুলেন্সে থাকা সকল যাত্রী নিহত হয়। পরবর্তীতে পুলিশ ও দমকল ইউনিট অ্যাম্বুলেন্সের মধ্যে আটকে পড়া মরদেহ বের করে।

এর আগে গত ৬ সেপ্টেম্বর ঢাকায় তামান্না নামক শিশুটির জন্ম হয়। এরপর অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে প্রাইভেট একটি ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সে মারা যায়। এরপর মরদেহের দাফন সম্পন্নে ঝালকাঠি যাচ্ছিলো তামান্নার পিতা-মাতা ও দাদিসহ স্বজনরা।

মন্তব্য করুন

সর্বশেষ নিউজ

আরো পড়ুন