শনিবার, ১৫ আগস্ট ২০২০, ১:৩২ এএম

হাসপাতাল থেকে রোগী ফেরত পাঠানোর অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা

স্টাফ রিপোর্টার:
প্রকাশিত: ৯:৩০ অপরাহ্ন, ২ জুলাই ২০২০, বৃহস্পতিবার


হাসপাতাল থেকে রোগী ফেরত পাঠানোর অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা

ফাইল ফটো

হাইকোর্টকে স্বাস্থ্য অধিদফতর

চিকিৎসা না দিয়ে সাধারণ রোগী ফেরত পাঠানোর কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি বলে হাইকোর্টে প্রতিবেদন দাখিল করেছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। তবে ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কোনো হাসপাতালে চিকিৎসা না দিয়ে রোগী ফেরত পাঠানোর অভিযোগ পাওয়া গেলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক মো. আমিনুল হাসানের স্বাক্ষরিত হাইকোর্টকে দেয়া এক প্রতিবেদনে এ তথ্য পাওয়া গেছে। রিটকারী আইনজীবী এহসানুর রহমান বৃহস্পতিবার এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের প্রতিবেদনে বলা হয়, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় গত ১১ জুন দেশের সব সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোয় কোভিড ও অন্যান্য রোগীর চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করার নির্দেশ দেয়।

এছাড়া অধিদফতরের হাসপাতাল শাখা থেকে ১৮ জুন দেশের সব হাসপাতাল ক্লিনিকে নির্ধারিত ফি’র (ইউজার ফি) বিনিময়ে করোনা রোগীর চিকিৎসা অব্যাহত রাখার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়। ২৯ জুন বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে সব ধরনের রোগীদের চিকিৎসা প্রদানের অনুমোদনপ্রাপ্ত ওআরটি পিসিআরের সুবিধা সম্বলিত যেকোনো প্রতিষ্ঠান থেকে নিদিষ্ট ফি’র বিনিময়ে চিকিৎসা দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়।

এসব নির্দেশ পালনে অপারগতা প্রকাশকারী বা ব্যর্থ প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অভিযোগ পেলে তাদের রেজিস্ট্রেশন স্থগিত বা বাতিলের পদক্ষেপ নেয়া হবে বলে স্মারকে উল্লেখ করা হয়। তবে এখন পর্যন্ত এ ধরনের অভিযোগ পাওয়া যায়নি, তাই কোনো শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। এ ধরনের বিষয়ে কোনো লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেলে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, ৫০ বা তার অধিক শয্যার বেসরকারি হাসপাতালে (যেমন-স্কয়ার, এভার কেয়ার, বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতাল ইত্যাদি) নির্দেশনা মেনে কোভিড-১৯ ও অন্যান্য রোগীদের পৃথকভাবে চিকিৎসা সেবা দেয়া হচ্ছে।

হাইকোর্টের বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিমের ভার্চুয়াল বেঞ্চে এই প্রতিবেদন গত মঙ্গলবার দাখিল করা হয়। প্রতিবেদনটি আদালতে উপস্থাপন করেছিলেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত তালুকদার। তবে রিটকারী আইনজীবীরা এ বিষয়ের ওপর প্রতিবেদন ওইদিন না পাওয়ায় তারা শুনানি করতে সময় নেন। তখন আদালত বিষয়টি নিয়ে ৬ জুলাই পরবর্তী শুনানির দিন ঠিক করেন।

মন্তব্য করুন

সর্বশেষ নিউজ

আরো পড়ুন