সোমবার, ১৩ জুলাই ২০২০, ১১:৪৬ এএম

কোয়েস্ট ওয়ার্ল্ডের সম্মতি ছাড়াই নজরুলের তথ্যচিত্র ইউটিউবে প্রকাশ করে বিপাকে বাঁশরী (বাংলাদেশ)

কলকাতা প্রতিনিধি:
প্রকাশিত: ১০:৫৩ অপরাহ্ন, ২৯ জুন ২০২০, সোমবার


সোমঋতা মল্লিকের পরিকল্পনা ও পরিচালনায়, ছায়ানট (কলকাতা) প্রস্তুত করেছে এক সুবৃহৎ ভিডিও তথ্যচিত্র ‘নজরুলের চুরুলিয়া’ যেটি ডিভিডি আকারে কোয়েস্ট ওয়ার্ল্ড থেকে এই বছরের মে মাসে বিশ্বব্যাপী মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল। বাঁশরী (বাংলাদেশ)-এর সাথে যৌথ উদ্যোগে নির্মিত, এই প্রকল্পে ভাষ্যপাঠে রয়েছেন কাজী নজরুল ইসলামের ভ্রাতুষ্পুত্র কাজী রেজাউল করিম ও সুবিখ্যাত বাচিকশিল্পী শ্রী দেবাশীষ বসু। স্বাগত গঙ্গোপাধ্যায়ের সৃজন-নির্মাণে ডিভিডি ও ডিজিটাল আকারে প্রকাশিতব্য এই তথ্যচিত্রে নজরুলের জীবনের নানা সময়ের স্মৃতি-সম্বলিত স্থানগুলির বিষয়ে নানা জানা-অজানা ইতিহাস তুলে ধরা হয়েছে। আশা করা যায়, সাম্প্রতিক এই করোনা-কেন্দ্রিক পরিস্থিতি মিটে গেলে শীঘ্রই মুক্তি পাবে ‘নজরুলের চুরুলিয়া’।
ছায়ানট (কলকাতা) ও কোয়েস্ট ওয়ার্ল্ডের তরফে, এই তথ্যচিত্রটি সম্বন্ধে ফেসবুকে আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করা হয় ১৮ই ফেব্রুয়ারী ২০২০, সাথে একটি ৩মিনিটের প্রোমো-ভিডিও প্রকাশ করা হয় কোয়েস্ট ওয়ার্ল্ডের ইউটিউব চ্যানেলে।
এমতাবস্থায়, সম্প্রতি এই তথ্যচিত্রটির নিবেদক ছায়ানট (কলকাতা), পরিচালক শ্রীমতি সোমঋতা মল্লিক ও প্রকাশক/পরিবেশক কোয়েস্ট ওয়ার্ল্ড কারও সাথে কোনো রকম যোগাযোগ না করে এবং পরিচালকের মৌখিক অসম্মতি সত্ত্বেও, বাঁশরী (বাংলাদেশ)-এর তরফে সম্পূর্ণ তথ্যচিত্রটির একটি ‘ড্রাফট কপি’ ইউটিউবে প্রকাশ করে দেওয়া হয় এবং ফেসবুকের বিভিন্ন গ্রুপ, প্রোফাইল ও পেজে সেই লিংকটি শেয়ার করা হয়। ভিডিওটিতে ‘ছায়ানট (কলকাতা) নিবেদিত’ থাকলেও, ইচ্ছে করে এই ফেসবুক পোস্টগুলিতে বাঁশরী (বাংলাদেশ) নিজেদের নামটিই প্রথমে লেখেন যা সম্পূর্ণ বেআইনি। পরবর্তীতে সমালোচনার স্বীকার ও কর্তৃপক্ষের দৃষ্টিগোচর হলে আপলোড করা এই ভিডিওটি মাত্র কয়েক ঘন্টার মধ্যেই কপিরাইট আইনের কারণে ইউটিউব কর্তৃপক্ষ বাঁশরী (বাংলাদেশ)-এর চ্যানেল থেকে মুছে সরিয়ে দেন ও ছায়ানট (কলকাতা) ও প্রকাশক/পরিবেশক কোয়েস্ট ওয়ার্ল্ডকে ইমেল করে অবগত করা হয়।
এব্যাপারে তথ্যচিত্রটির নিবেদক ছায়ানট (কলকাতা) পরিচালক শ্রীমতি সোমঋতা মল্লিক ও প্রকাশক/পরিবেশক কোয়েস্ট ওয়ার্ল্ড-এর পক্ষে জানিয়েছেন, ভবিষ্যতে এই তথ্যচিত্রের সম্পূর্ণ ভিডিওটি যদি পুনরায় ইউটিউব, ফেসবুক বা অন্য কোনো সামাজিক মাধ্যমে বাঁশরী (বাংলাদেশ)-এর পক্ষ থেকে আপলোড করা হয়, তাহলে উপযুক্ত আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হবে।
এছাড়া তিনি আরও বলেন, কাজী নজরুল ইসলাম আমাদের দুই দেশেরই এক গর্বের জায়গা। তাঁকে নিয়ে দুই দেশেরই বেশ কিছু মানুষ বা সংস্থা নানা রকম সৃজনশীল কাজ করছেন ও করে চলেছেন। বিগত কয়েক বছরে ছায়ানট (কলকাতা), শ্রীমতি সোমঋতা মল্লিক ও কোয়েস্ট ওয়ার্ল্ড বেশ কিছু চিত্তাকর্ষক কাজ বিশ্বব্যাপী প্রকাশ করেছেন এবং আগামীতেও প্রকাশ করবেন। আপনাদের সবাইকে আমরা এই সব গঠনমূলক কাজে আগের মতোই পাশে পাবো এবং এই বিষয়ে যে কোনো বেআইনি কার্যকলাপের বিরুদ্ধে আপনারা রুখে দাঁড়াবেন এই আশা করছি।

মন্তব্য করুন

সর্বশেষ নিউজ

আরো পড়ুন