২৩, আগস্ট, ২০১৯, শুক্রবার | | ২১ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০


আগৈলঝাড়ায় ছাত্রীর আকস্মিক মৃত্যুতে তিন সহপাঠি অসুস্থ

রিপোর্টার নামঃ খোকন হাওলাদার, বরিশাল প্রতিনিধি: | আপডেট: ১৪ আগস্ট ২০১৮, ০৬:৫৯ পিএম

আগৈলঝাড়ায় ছাত্রীর আকস্মিক মৃত্যুতে তিন সহপাঠি অসুস্থ
আগৈলঝাড়ায় ছাত্রীর আকস্মিক মৃত্যুতে তিন সহপাঠি অসুস্থ

প্রাইভেট পড়ার সময় হঠাত অসুস্থ্য হয়ে মারা গেছে শিক্ষকের মেয়ে ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী মৈত্রী রায়। মৃত্যুর খবর শুনে মৈত্রীর তিন সহপাঠি অসুস্থ্য হয়ে পরলে তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় স্কুলসহ পুরো এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসলে স্কুল ছুটি ঘোষণা করেছে কর্তৃপক্ষ। ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার সকালে জেলার আগৈলঝাড়া উপজেলার বারপাইকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে।

ওই বিদ্যালয়ের প্রধানশিক্ষক সুনীল কুমার বাড়ৈ জানান, একই বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক পরিমল রায়ের কন্যা ষষ্ট শ্রেণীর ছাত্রী মৈত্রী রায় অন্যান্য দিনের ন্যায় সোমবার সকালে সহপাঠিদের সাথে প্রাইভেট পড়ছিলো। হঠাৎ করে মৈত্রী অসুস্থ্য হয়ে পরলে তাকে উপজেলা হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডাঃ তানভীর আহম্মেদ তাকে মৃতবলে ঘোষণা করেন।

মৈত্রীর পরিবারের বরাত দিয়ে প্রধানশিক্ষক আরও জানান, মৈত্রী জন্মগতভাবে হার্টের সমস্যায় ভুগছিল। দেশে ও ভারতে সে দীর্ঘদিন চিকিৎসা গ্রহন করেছে। এদিকে মৈত্রীর মৃত্যুর খবর শুনে একত্রে প্রাইভেট পড়া শিক্ষার্থী একই গ্রামের হিরা আক্তার, নীলা আক্তার ও নিশি আক্তার অজ্ঞান হয়ে পরলে তাদের উদ্ধার করে উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আগৈলঝাড়ায় ছাত্রীর আকস্মিক মৃত্যুতে তিন সহপাঠি অসুস্থ

প্রতিবেদক নাম: খোকন হাওলাদার, বরিশাল প্রতিনিধি: ,

প্রকাশের সময়ঃ ১৪ আগস্ট ২০১৮, ০৬:৫৯ পিএম

প্রাইভেট পড়ার সময় হঠাত অসুস্থ্য হয়ে মারা গেছে শিক্ষকের মেয়ে ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী মৈত্রী রায়। মৃত্যুর খবর শুনে মৈত্রীর তিন সহপাঠি অসুস্থ্য হয়ে পরলে তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় স্কুলসহ পুরো এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসলে স্কুল ছুটি ঘোষণা করেছে কর্তৃপক্ষ। ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার সকালে জেলার আগৈলঝাড়া উপজেলার বারপাইকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে।

ওই বিদ্যালয়ের প্রধানশিক্ষক সুনীল কুমার বাড়ৈ জানান, একই বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক পরিমল রায়ের কন্যা ষষ্ট শ্রেণীর ছাত্রী মৈত্রী রায় অন্যান্য দিনের ন্যায় সোমবার সকালে সহপাঠিদের সাথে প্রাইভেট পড়ছিলো। হঠাৎ করে মৈত্রী অসুস্থ্য হয়ে পরলে তাকে উপজেলা হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডাঃ তানভীর আহম্মেদ তাকে মৃতবলে ঘোষণা করেন।

মৈত্রীর পরিবারের বরাত দিয়ে প্রধানশিক্ষক আরও জানান, মৈত্রী জন্মগতভাবে হার্টের সমস্যায় ভুগছিল। দেশে ও ভারতে সে দীর্ঘদিন চিকিৎসা গ্রহন করেছে। এদিকে মৈত্রীর মৃত্যুর খবর শুনে একত্রে প্রাইভেট পড়া শিক্ষার্থী একই গ্রামের হিরা আক্তার, নীলা আক্তার ও নিশি আক্তার অজ্ঞান হয়ে পরলে তাদের উদ্ধার করে উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।