২২, সেপ্টেম্বর, ২০১৯, রোববার | | ২২ মুহররম ১৪৪১


শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন যুবারা

অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপ

রিপোর্টার নামঃ স্পোর্টস ডেস্ক | আপডেট: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৮:৩৭ পিএম

শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন যুবারা
শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন যুবারা

আগেই এশিয়া কাপের সেমিফাইনালে ওঠা নিশ্চিত হয়েছিল বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের।  তবে জুনিয়র টাইগারদের চোখ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার দিকে। শেষ পর্যন্ত মঙ্গলবার মাহমুদুল হাসান জয়ের সেঞ্চুরিতে শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে সে লক্ষ্য পূরণ হয়েছে যুবাদের। এরআগে সংযুক্ত আরব আমিরাত ও নেপালের বিপক্ষে জিতেছিল আকবার আলির দল। 

মঙ্গলবার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৪২ রানে জিতে বাংলাদেশের যুবারা। এদিন টস জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে মাহমুদুল হাসান জয়ের সেঞ্চুরিতে ৭ উইকেটে করে ২৭৩ রান। পরে বল হাতে স্বাগতিকদের  ৪৭.৪ বলে ২৩১ রানে গুটিয়ে দেয় জুনিয়র টাইগাররা। আর তাতে টানা তিন জয়ে  ৬ পয়েন্ট নিয়ে ‘বি’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশ। 

সেমিফাইনালে  প্রতিপক্ষ হিসেবে পেয়েছে ‘এ’ গ্রুপে দ্বিতীয় হওয়া আফগানিস্তানকে পেয়েছে বাংলাদেশ। আগামি ১২ সেপ্টেম্বর ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে নামবে লাল-সবুজ প্রতিনিধিরা। 

গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার মিশনে মঙ্গলবার টস জিতে ২২ গজে নেমে তানজিদ হাসানের সঙ্গে উদ্বোধনী জুটিতে দলকে সাবধানী শুরু এনে দেন মাহমুদুল । ১৭ রান করে তানজিদের বিদায়ের পর বড় ইনিংস খেলতে পারেননি তিনে নামা পারভেজ হোসেনও। তবে তৃতীয় উইকেটে তৌহিদ হৃদয়কে নিয়ে  ১২১ রানের জুটিতে দলকে বড় সংগ্রহের ভিত গড়ে দেন মাহমুদুল। এক পর্যায়ে হৃদয় ফেরেন ৫০ রানে।  মাহমুদুল অবশ্য এক প্রান্ত আগলে খেলছিলেন দারুণ। সে ধারাবাহিকতায় এ তারকার শামীম হোসেন ও অধিনায়ক আকবরের সঙ্গে আরও দুটি কার্যকর জুটি গড়েন মাহমুদুল। শেষ পর্যন্ত দলকে শক্ত অবস্থানে দাঁড় করিয়ে ১৪০ বলে ১৪ চার ও ২ ছয়ে ১২৬ রানে থামেন এ ডানহাতি ব্যাটসম্যান।

শ্রীলঙ্কার হয়ে সর্বোচ্চ ৩টি উইকেট নেন দিলশান মাদুশঙ্কা।

প্রতিপক্ষের সামনে চ্যালেঞ্জিং স্কোর দাঁড় করিয়ে বল হাতে শুরু থেকেই দুর্দান্ত ছিলেন শরিফুল, আশরাফুল, রকিবুলরা। নিয়োমিত বিরতিতে তারা স্বাগতিক ব্যাটসম্যানদের সাজঘরের পথ দেখান। যে কারণে লঙ্কানরা পারেনি বলের সঙ্গে রানের অঙ্ক মেলাতে। সেই চাপেই শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ওভারের ১০ বল আগেই গুটিয়ে যায় দলটি।  স্বাগতিকদের হয়ে সর্বোচ্চ ৪২ রান করেন নয় নম্বরে নামা রোহান সঞ্জয়।

বাংলাদেশের হয়ে রাকিবুল হাসান ৪৯ রানে নেন ৩টি উইকেট। দুটি করে উইকেট পকেটে পুরেন আশরাফুল ইসলাম ও শরিফুল ইসলাম।

শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন যুবারা

প্রতিবেদক নাম: স্পোর্টস ডেস্ক ,

প্রকাশের সময়ঃ ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৮:৩৭ পিএম

আগেই এশিয়া কাপের সেমিফাইনালে ওঠা নিশ্চিত হয়েছিল বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের।  তবে জুনিয়র টাইগারদের চোখ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার দিকে। শেষ পর্যন্ত মঙ্গলবার মাহমুদুল হাসান জয়ের সেঞ্চুরিতে শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে সে লক্ষ্য পূরণ হয়েছে যুবাদের। এরআগে সংযুক্ত আরব আমিরাত ও নেপালের বিপক্ষে জিতেছিল আকবার আলির দল। 

মঙ্গলবার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৪২ রানে জিতে বাংলাদেশের যুবারা। এদিন টস জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে মাহমুদুল হাসান জয়ের সেঞ্চুরিতে ৭ উইকেটে করে ২৭৩ রান। পরে বল হাতে স্বাগতিকদের  ৪৭.৪ বলে ২৩১ রানে গুটিয়ে দেয় জুনিয়র টাইগাররা। আর তাতে টানা তিন জয়ে  ৬ পয়েন্ট নিয়ে ‘বি’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশ। 

সেমিফাইনালে  প্রতিপক্ষ হিসেবে পেয়েছে ‘এ’ গ্রুপে দ্বিতীয় হওয়া আফগানিস্তানকে পেয়েছে বাংলাদেশ। আগামি ১২ সেপ্টেম্বর ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে নামবে লাল-সবুজ প্রতিনিধিরা। 

গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার মিশনে মঙ্গলবার টস জিতে ২২ গজে নেমে তানজিদ হাসানের সঙ্গে উদ্বোধনী জুটিতে দলকে সাবধানী শুরু এনে দেন মাহমুদুল । ১৭ রান করে তানজিদের বিদায়ের পর বড় ইনিংস খেলতে পারেননি তিনে নামা পারভেজ হোসেনও। তবে তৃতীয় উইকেটে তৌহিদ হৃদয়কে নিয়ে  ১২১ রানের জুটিতে দলকে বড় সংগ্রহের ভিত গড়ে দেন মাহমুদুল। এক পর্যায়ে হৃদয় ফেরেন ৫০ রানে।  মাহমুদুল অবশ্য এক প্রান্ত আগলে খেলছিলেন দারুণ। সে ধারাবাহিকতায় এ তারকার শামীম হোসেন ও অধিনায়ক আকবরের সঙ্গে আরও দুটি কার্যকর জুটি গড়েন মাহমুদুল। শেষ পর্যন্ত দলকে শক্ত অবস্থানে দাঁড় করিয়ে ১৪০ বলে ১৪ চার ও ২ ছয়ে ১২৬ রানে থামেন এ ডানহাতি ব্যাটসম্যান।

শ্রীলঙ্কার হয়ে সর্বোচ্চ ৩টি উইকেট নেন দিলশান মাদুশঙ্কা।

প্রতিপক্ষের সামনে চ্যালেঞ্জিং স্কোর দাঁড় করিয়ে বল হাতে শুরু থেকেই দুর্দান্ত ছিলেন শরিফুল, আশরাফুল, রকিবুলরা। নিয়োমিত বিরতিতে তারা স্বাগতিক ব্যাটসম্যানদের সাজঘরের পথ দেখান। যে কারণে লঙ্কানরা পারেনি বলের সঙ্গে রানের অঙ্ক মেলাতে। সেই চাপেই শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ওভারের ১০ বল আগেই গুটিয়ে যায় দলটি।  স্বাগতিকদের হয়ে সর্বোচ্চ ৪২ রান করেন নয় নম্বরে নামা রোহান সঞ্জয়।

বাংলাদেশের হয়ে রাকিবুল হাসান ৪৯ রানে নেন ৩টি উইকেট। দুটি করে উইকেট পকেটে পুরেন আশরাফুল ইসলাম ও শরিফুল ইসলাম।