২২, সেপ্টেম্বর, ২০১৯, রোববার | | ২২ মুহররম ১৪৪১


জাতিসংঘে ভাষণ দেবেন ইমরান-মোদী

রিপোর্টার নামঃ আন্তর্জাতিক ডেস্ক: | আপডেট: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৪:০২ পিএম

জাতিসংঘে ভাষণ দেবেন ইমরান-মোদী
জাতিসংঘে ভাষণ দেবেন ইমরান-মোদী

একইদিনে জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে ভাষণ দেবেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। কাশ্মীর ইস্যুতে দুই দেশের দীর্ঘ বাগযুদ্ধের পর জাতিসংঘে মুখমুখি হতে যাচ্ছে।

আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘের সাধারণ সভায় তাদের ভাষণ দেবার কথা রয়েছে। 

সভায় প্রথমে ভাষণ দেবেন নরেন্দ্র মোদী এবং এর পরবর্তীতে ভাষণ দেবেন ইমরান খান।যদিও কোনও কোনও সূত্র বলছে, নরেন্দ্র মোদী না ইমরান খানকে আগে ভাষণ দিতে হবে।

তবে গত মাসের প্রথম সপ্তাহে জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করার পর এই প্রথম জাতিসংঘের মঞ্চে হাজির হচ্ছেন এই দুই নেতা। তাই স্বাভাবিকভাবেই এ নিয়ে রাজনৈতিক মহলে তুমুল আগ্রহ তৈরি হয়েছে।

কাশ্মীর ইস্যুতে একদিকে মোদী যেমন আন্তর্জাতিক মহলের সমর্থন আদায়ের চেষ্টা করেছেন। তেমনি ইমরান খানও এ নিয়ে সরব হয়েছেন। এই ইস্যুতে গত এক মাসে বার বারই আন্তর্জাতিক মহলের দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করে চলেছেন তিনি। যদিও এখনও পর্যন্ত এ বিষয়ে বিশেষ সুবিধা করে উঠতে পারেননি ইমরান খান। এমনকি নিজেকে কাশ্মীরিদের ‘প্রতিনিধি’ হিসেবে আখ্যা দিয়ে বিশ্বের দরবারে উপত্যকার মানুষদের কথা তুলে ধরবেন বলেও আগেই মন্তব্য করেছিলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী।

এদিকে কাশ্মীর ইস্যুতে ইতোমধ্যেই রাশিয়ার সমর্থন পেয়েছে ভারত। একই সঙ্গে এটা যে ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়, তা বার বারই বুঝিয়ে দিয়েছে মোদী সরকার। ফলে ২৭ তারিখ সাধারণ সভায় দুই দেশই যে কাশ্মীর ইস্যুতে নিজেদের পক্ষে সমর্থন আদায়ের জোর চেষ্টা করবে তা নিয়ে সন্দেহের অবকাশ নেই।

জাতিসংঘে ভাষণ দেবেন ইমরান-মোদী

প্রতিবেদক নাম: আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ,

প্রকাশের সময়ঃ ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৪:০২ পিএম

একইদিনে জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে ভাষণ দেবেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। কাশ্মীর ইস্যুতে দুই দেশের দীর্ঘ বাগযুদ্ধের পর জাতিসংঘে মুখমুখি হতে যাচ্ছে।

আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘের সাধারণ সভায় তাদের ভাষণ দেবার কথা রয়েছে। 

সভায় প্রথমে ভাষণ দেবেন নরেন্দ্র মোদী এবং এর পরবর্তীতে ভাষণ দেবেন ইমরান খান।যদিও কোনও কোনও সূত্র বলছে, নরেন্দ্র মোদী না ইমরান খানকে আগে ভাষণ দিতে হবে।

তবে গত মাসের প্রথম সপ্তাহে জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করার পর এই প্রথম জাতিসংঘের মঞ্চে হাজির হচ্ছেন এই দুই নেতা। তাই স্বাভাবিকভাবেই এ নিয়ে রাজনৈতিক মহলে তুমুল আগ্রহ তৈরি হয়েছে।

কাশ্মীর ইস্যুতে একদিকে মোদী যেমন আন্তর্জাতিক মহলের সমর্থন আদায়ের চেষ্টা করেছেন। তেমনি ইমরান খানও এ নিয়ে সরব হয়েছেন। এই ইস্যুতে গত এক মাসে বার বারই আন্তর্জাতিক মহলের দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করে চলেছেন তিনি। যদিও এখনও পর্যন্ত এ বিষয়ে বিশেষ সুবিধা করে উঠতে পারেননি ইমরান খান। এমনকি নিজেকে কাশ্মীরিদের ‘প্রতিনিধি’ হিসেবে আখ্যা দিয়ে বিশ্বের দরবারে উপত্যকার মানুষদের কথা তুলে ধরবেন বলেও আগেই মন্তব্য করেছিলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী।

এদিকে কাশ্মীর ইস্যুতে ইতোমধ্যেই রাশিয়ার সমর্থন পেয়েছে ভারত। একই সঙ্গে এটা যে ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়, তা বার বারই বুঝিয়ে দিয়েছে মোদী সরকার। ফলে ২৭ তারিখ সাধারণ সভায় দুই দেশই যে কাশ্মীর ইস্যুতে নিজেদের পক্ষে সমর্থন আদায়ের জোর চেষ্টা করবে তা নিয়ে সন্দেহের অবকাশ নেই।