২২, সেপ্টেম্বর, ২০১৯, রোববার | | ২২ মুহররম ১৪৪১


এবার ওষুধ শিল্পে যাত্রা করল গুগল

রিপোর্টার নামঃ প্রতিদিনের কাগজ | আপডেট: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:৩১ পিএম

এবার ওষুধ শিল্পে যাত্রা করল গুগল
এবার ওষুধ শিল্পে যাত্রা করল গুগল

টেক জায়ান্ট গুগল এখন শুধুই সার্চ ইঞ্জিন নয়। এবার ওষুধ শিল্পেও প্রযুক্তি বিষয়ক এ প্রতিষ্ঠানটি যাত্রা শুরু করেছে। ওষুধ শিল্পের বড় বড় কোম্পানির সঙ্গে একতাবদ্ধ হয়ে তারা কাজ শুরু করেছে।

গুগল ওষুধ শিল্পের এই অভিযাত্রায় গ্লাস্কোস্মিথক্লাইনের ভ্যাকসিন ব্যবসার সাবেক প্রধানের নেতৃত্বে শুরু করছে। 

ভেরিলি জীববিজ্ঞান নিয়ে কাজ করে। এটি অ্যালফাবেটের একটি প্রতিষ্ঠান। এই ভেরিলি গুগলের ওষুধ শিল্পের যাত্রা দেখভাল করবে। অনেকগুলো ওষুধ কোম্পানির সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে ভেরিলি।

গালভানি বায়োইলেকট্রনিক্স এর উদ্ভাবনে এবং গ্লাস্কোস্মিথক্লাইনের সহায়তায় নিজস্ব ওষুধ কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেছে ভেরিলি। যেখান থেকে বায়োইলেকট্রনিক ওষুধের উন্নয়ন, গবেষণা এবং বাজারজাতকরণে তারা কাজ করছে।

প্রসঙ্গত, ব্যাপক পুনর্গঠনের মাধ্যমে লাভবান হতে ২০১৫ সালে গুগলের সহপ্রতিষ্ঠাতা ল্যারি পেজ এবং সের্গেই ব্রিন গুগলের শাখা-প্রশাখা বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নেন। 

এতে তাদের প্রধান ইন্টারনেট ব্যবসাকে বিভক্ত করে ‘এক্স ল্যাব’ এবং ‘ক্যালিকো’র মতো প্রকল্প চালু করেন। ‘অ্যালফাবেট’ নামের নতুন একটি প্রতিষ্ঠানের আওতায় গুগলসহ এর অন্যান্য প্রতিষ্ঠানগুলোকে এনে কার্যক্রম চলতে থাকে। এর মধ্যে রয়েছে গুগল ম্যাপস, ইউটিউব, ক্রোম এবং অ্যান্ড্রয়েড।

প্রতিদিনের কাগজ /আর এন 

এবার ওষুধ শিল্পে যাত্রা করল গুগল

প্রতিবেদক নাম: প্রতিদিনের কাগজ ,

প্রকাশের সময়ঃ ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:৩১ পিএম

টেক জায়ান্ট গুগল এখন শুধুই সার্চ ইঞ্জিন নয়। এবার ওষুধ শিল্পেও প্রযুক্তি বিষয়ক এ প্রতিষ্ঠানটি যাত্রা শুরু করেছে। ওষুধ শিল্পের বড় বড় কোম্পানির সঙ্গে একতাবদ্ধ হয়ে তারা কাজ শুরু করেছে।

গুগল ওষুধ শিল্পের এই অভিযাত্রায় গ্লাস্কোস্মিথক্লাইনের ভ্যাকসিন ব্যবসার সাবেক প্রধানের নেতৃত্বে শুরু করছে। 

ভেরিলি জীববিজ্ঞান নিয়ে কাজ করে। এটি অ্যালফাবেটের একটি প্রতিষ্ঠান। এই ভেরিলি গুগলের ওষুধ শিল্পের যাত্রা দেখভাল করবে। অনেকগুলো ওষুধ কোম্পানির সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে ভেরিলি।

গালভানি বায়োইলেকট্রনিক্স এর উদ্ভাবনে এবং গ্লাস্কোস্মিথক্লাইনের সহায়তায় নিজস্ব ওষুধ কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেছে ভেরিলি। যেখান থেকে বায়োইলেকট্রনিক ওষুধের উন্নয়ন, গবেষণা এবং বাজারজাতকরণে তারা কাজ করছে।

প্রসঙ্গত, ব্যাপক পুনর্গঠনের মাধ্যমে লাভবান হতে ২০১৫ সালে গুগলের সহপ্রতিষ্ঠাতা ল্যারি পেজ এবং সের্গেই ব্রিন গুগলের শাখা-প্রশাখা বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নেন। 

এতে তাদের প্রধান ইন্টারনেট ব্যবসাকে বিভক্ত করে ‘এক্স ল্যাব’ এবং ‘ক্যালিকো’র মতো প্রকল্প চালু করেন। ‘অ্যালফাবেট’ নামের নতুন একটি প্রতিষ্ঠানের আওতায় গুগলসহ এর অন্যান্য প্রতিষ্ঠানগুলোকে এনে কার্যক্রম চলতে থাকে। এর মধ্যে রয়েছে গুগল ম্যাপস, ইউটিউব, ক্রোম এবং অ্যান্ড্রয়েড।

প্রতিদিনের কাগজ /আর এন