২৩, সেপ্টেম্বর, ২০১৯, সোমবার | | ২৩ মুহররম ১৪৪১


বিশ্বম্ভরপুরে বেড়িবাঁধ কেটে বেল্ট বসিয়ে বালুবিক্রি করছে ব্যাবসায়িরা

রিপোর্টার নামঃ সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি | আপডেট: ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০১:২০ পিএম

বিশ্বম্ভরপুরে বেড়িবাঁধ কেটে  বেল্ট বসিয়ে বালুবিক্রি করছে ব্যাবসায়িরা
বিশ্বম্ভরপুরে বেড়িবাঁধ কেটে বেল্ট বসিয়ে বালুবিক্রি করছে ব্যাবসায়িরা

সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার সলুকাবাদ ইউনিয়নের আদাং বেড়িবাঁধ কেটে বেল্ট বসিয়ে বালু ব্যাবসায়িদের ডাম্পিংকরা বালু বিক্রসহ বেরিবাঁধের উপড় বালুমজুদ করে বিভিন্ন কার্গো বাল্কহেডে বিক্রি করে আসছে ব্যাবসায়ীরা ।

সরেজমিনে বিশ্বম্ভ^রপুর উপজেলার সলুকাবাদ ইউনিয়নের আদাং গ্রামে গেলে এমন চিত্র ফুঁটে উটে। স্থানীয়দের সাথে আলাপ করে জানাযায়, চলতি নদীর পাড়ে বেরিবাঁধের উপড় বালুষ্টক করে দির্ঘদিন থেকে ব্যাবসা করে আসছেন স্থানীয় বালু ব্যাবসায়ী সহ আরও অন্যান্য এলাকার ব্যাবসায়ীরা। 

জিনারপুর বাজারের উত্তরপাশ থেকে পুরান মুথুরকান্দি আদাং জুরে বেরিবাঁধ কেটে নিজেদের মত বেল্ট বসিয়ে নৌকায় বালু তুলছেন ব্যাবসায়ীরা আবার কোন কোন জায়গায় বেরিবাঁধের উপড় বালুষ্টেক দেয়ায়  আদাং বেরিবাধেঁর  উপড়  দিয়ে মানুষ চলাচল করতে চরম দুর্ভোগের মধ্যে পরেছে স্থানীয় জনসাধারণ বেড়িবাঁধ বন্ধ করেই খান্ত নয়,  বেড়িবাঁধ কেটে বাঁধের মাটিও বিক্রি করেছে বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কিছু স্থানীয়রা ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

 এ বিষয়ে আদাং গ্রামের বালুপাথর ব্যাবসায়ি  জালাল উদ্দিন জানান আমাদের নদী বন্ধ হওয়ায় কিছুদিন পুর্বে হঠাৎ নদীতে পানি বৃদ্ধি হওয়ায় বেড়িবাঁধের উপর বালু রাখতে হয়েছে।তাতে মানুষের চলাচলের কিছুটা বিন্ন ঘটেছে, আসলে এটি ঠিক হয়নি, রাস্তা কেটে বেল্ট বসানো এটাও ঠিক হয়নি, আশাকরি কিছু দিনের ভিতর বালু সব বিক্রি হয়ে যাবে । 

প্রায় শতাধিক বালু ডাম্পিং করে বালুর পাহাড় করেছেন এমন কিছু বালু ব্যাবসায়ীদের সাথে যোগাযোগ করতে গেলেও তাদের কে ড্রাম্পিংর কাছে পাওয়া যায়নি। মনিপুরি হাটির বাবুল মিয়া আদাং এর ইব্রাহিম, রামপুরের কাইয়ূম, রফিক মিয়া, মুসলিম পুরের কামাল লাল পুরের শহিদ  মনিপুর হাটির রওশন আলী,ভান্ডারী সহ আরো অনেকের বালু ডাম্পিং  করেছেন  এই বেড়িবাঁধে।

এ বিষয়ে বিস্বম্ভরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সমীর বিশ্বাস বলেন, বেড়িবাঁধ কেটে বেল্ট বসিয়ে কার্গো বা বাল্গহেড নৌকায় বালু তুলার বিষয়টি আমার জানা ছিল না  আমি দ্রুত বিষয়টি দেখছি। 

বিশ্বম্ভরপুরে বেড়িবাঁধ কেটে বেল্ট বসিয়ে বালুবিক্রি করছে ব্যাবসায়িরা

প্রতিবেদক নাম: সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি ,

প্রকাশের সময়ঃ ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০১:২০ পিএম

সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার সলুকাবাদ ইউনিয়নের আদাং বেড়িবাঁধ কেটে বেল্ট বসিয়ে বালু ব্যাবসায়িদের ডাম্পিংকরা বালু বিক্রসহ বেরিবাঁধের উপড় বালুমজুদ করে বিভিন্ন কার্গো বাল্কহেডে বিক্রি করে আসছে ব্যাবসায়ীরা ।

সরেজমিনে বিশ্বম্ভ^রপুর উপজেলার সলুকাবাদ ইউনিয়নের আদাং গ্রামে গেলে এমন চিত্র ফুঁটে উটে। স্থানীয়দের সাথে আলাপ করে জানাযায়, চলতি নদীর পাড়ে বেরিবাঁধের উপড় বালুষ্টক করে দির্ঘদিন থেকে ব্যাবসা করে আসছেন স্থানীয় বালু ব্যাবসায়ী সহ আরও অন্যান্য এলাকার ব্যাবসায়ীরা। 

জিনারপুর বাজারের উত্তরপাশ থেকে পুরান মুথুরকান্দি আদাং জুরে বেরিবাঁধ কেটে নিজেদের মত বেল্ট বসিয়ে নৌকায় বালু তুলছেন ব্যাবসায়ীরা আবার কোন কোন জায়গায় বেরিবাঁধের উপড় বালুষ্টেক দেয়ায়  আদাং বেরিবাধেঁর  উপড়  দিয়ে মানুষ চলাচল করতে চরম দুর্ভোগের মধ্যে পরেছে স্থানীয় জনসাধারণ বেড়িবাঁধ বন্ধ করেই খান্ত নয়,  বেড়িবাঁধ কেটে বাঁধের মাটিও বিক্রি করেছে বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কিছু স্থানীয়রা ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

 এ বিষয়ে আদাং গ্রামের বালুপাথর ব্যাবসায়ি  জালাল উদ্দিন জানান আমাদের নদী বন্ধ হওয়ায় কিছুদিন পুর্বে হঠাৎ নদীতে পানি বৃদ্ধি হওয়ায় বেড়িবাঁধের উপর বালু রাখতে হয়েছে।তাতে মানুষের চলাচলের কিছুটা বিন্ন ঘটেছে, আসলে এটি ঠিক হয়নি, রাস্তা কেটে বেল্ট বসানো এটাও ঠিক হয়নি, আশাকরি কিছু দিনের ভিতর বালু সব বিক্রি হয়ে যাবে । 

প্রায় শতাধিক বালু ডাম্পিং করে বালুর পাহাড় করেছেন এমন কিছু বালু ব্যাবসায়ীদের সাথে যোগাযোগ করতে গেলেও তাদের কে ড্রাম্পিংর কাছে পাওয়া যায়নি। মনিপুরি হাটির বাবুল মিয়া আদাং এর ইব্রাহিম, রামপুরের কাইয়ূম, রফিক মিয়া, মুসলিম পুরের কামাল লাল পুরের শহিদ  মনিপুর হাটির রওশন আলী,ভান্ডারী সহ আরো অনেকের বালু ডাম্পিং  করেছেন  এই বেড়িবাঁধে।

এ বিষয়ে বিস্বম্ভরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সমীর বিশ্বাস বলেন, বেড়িবাঁধ কেটে বেল্ট বসিয়ে কার্গো বা বাল্গহেড নৌকায় বালু তুলার বিষয়টি আমার জানা ছিল না  আমি দ্রুত বিষয়টি দেখছি।