২২, সেপ্টেম্বর, ২০১৯, রোববার | | ২২ মুহররম ১৪৪১


শিক্ষার ইতিবাচক পরিবর্তনে সরকার ও গণমাধ্যম একসঙ্গে কাজ করবে : শিক্ষামন্ত্রী

রিপোর্টার নামঃ নিজস্ব প্রতিনিধি | আপডেট: ০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৯:২১ পিএম

শিক্ষার ইতিবাচক পরিবর্তনে সরকার ও গণমাধ্যম একসঙ্গে কাজ করবে : শিক্ষামন্ত্রী
ইরাবের নব নির্বাচিত কমিটির সদস্যদের সঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী ও অন্যান্য অতিথিরা

শিক্ষার উন্নয়নে সরকারের পাশাপাশি গণমাধ্যম একই লক্ষ্যে কাজ করবে বলে মন্তব্য করেছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তিনি বলেছেন, ‘আমাদের উদ্দেশ্য ও শিক্ষা সাংবাদিকদের উদ্দেশ্য একই।’

আজ রোববার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে ‘এডুকেশন রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশের (ইরাব) নব নির্বাচিত কমিটি ২০১৯-২০২০ এর অভিষেক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন শিক্ষামন্ত্রী।

মন্ত্রী বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শিক্ষাকে যেই জায়গায় নিয়ে যেতে চেয়েছিলেন। শিক্ষাকে বাহন হিসেবে ব্যবহার করে আমাদের দেশকে যেই জায়গায় নিয়ে যেতে চাই। সেই কাজটি করতে হলে শিক্ষা ক্ষেত্রে যে ইতিবাচক পরিবর্তন প্রয়োজন। সেগুলো ঘটছে কী না? সেগুলো আমরা সঠিক ভাবে করতে পারছি কী না? যারা আমরা দায়িত্বপ্রাপ্ত আমরা সঠিকভাবে দায়িত্বগুলো পালন করতে পারছি কী না? কোথাও দুর্নীতি হচ্ছে কী না? অনিয়ম হচ্ছে কী না? কোথাও বিশৃঙ্খলা আছে কী না? সাংবাদিকদের যেই কাজ সত্য বস্তুনিষ্ঠ তথ্য তুলে ধরা এবং তার মাধ্যমে ইতিবাচক পরিবর্তনের দিকে আমাদেরকে নিয়ে যেতে সহায়তা করা। আমি আশা করব শিক্ষাবিট সাংবাদিকরা দায়িত্বশীল হবেন।’

ডা. দীপু মনি বলেন, ‘আপনারও শিক্ষা পরিবারের সদস্য। গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় নির্বাচনের মাধ্যমে আপনাদের একটি কমিটি গঠন করেছেন, নব নির্বাচিত কার্যনির্বাহী কমিটিকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা। ’

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন বলেন, ‘সরকার প্রাথমিক শিক্ষার মান উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। ঝড়ে পড়া রোধে সরকার বৃত্তি উপবৃত্তি দিচ্ছে। গণমাধ্যমকর্মীদেরকে সঙ্গে নিয়ে আমরা এগিয়ে যেতে চাই।’

শিক্ষাউপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেন, ‘বর্তমান সরকার শিক্ষাখাতকে অগ্রাধিকার দিয়ে বিশেষ বরাদ্দ দিচ্ছে সে অনুযায়ী আমরা এখনো সফলতা অর্জন করতে সক্ষম হতে পারিনি। তবে বর্তমান সরকারের হাত ধরেই শিক্ষাখাতে আমূল পরিবর্তন এসেছে।’

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) চেয়ারম্যান ড. কাজী শহীদুল্লাহ বলেন, ‘একসময় দেশের হাতে গোনা কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয় ছিল। এখন দেড়শ’র বেশি বিশ্ববিদ্যালয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা ও শিক্ষার্থী বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মানের দিকেও খেয়াল রাখতে হবে।’

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. সোহরাব হোসাইন বলেন, ‘বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতার আহ্বান জানাই। শিক্ষার উন্নয়নে সরকারের পাশাপাশি আপনাদেরও সহযোগিতা প্রয়োজন।’

অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন দৈনিক যুগান্তরের সিনিয়র প্রতিবেদক ও ইরাবের সভাপতি মুসতাক আহমেদ। সঞ্চলনা করেন দৈনিক সমকালের বিশেষ প্রতিনিধি ও ইরাকের কার্যনির্বাহী সদস্য সাব্বির নেওয়াজ। শুরুতে স্বাগত বক্তব্য দেন ইরাবের সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক ইত্তেফাকের সিনিয়র রিপোর্টার নিজামুল হক।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন- শিক্ষা মন্ত্রণালয়, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি), প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর, ইউজিসি, এনটিআরসিএ, অবসর ও কল্যাণ বোর্ড, বিভিন্ন শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উদ্যোক্তা, সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, উপ-উপাচার্য, বিভিন্ন শিক্ষক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এবং রাজধানীর বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার ইতিবাচক পরিবর্তনে সরকার ও গণমাধ্যম একসঙ্গে কাজ করবে :

প্রতিবেদক নাম: নিজস্ব প্রতিনিধি ,

প্রকাশের সময়ঃ ০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৯:২১ পিএম

শিক্ষার উন্নয়নে সরকারের পাশাপাশি গণমাধ্যম একই লক্ষ্যে কাজ করবে বলে মন্তব্য করেছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তিনি বলেছেন, ‘আমাদের উদ্দেশ্য ও শিক্ষা সাংবাদিকদের উদ্দেশ্য একই।’

আজ রোববার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে ‘এডুকেশন রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশের (ইরাব) নব নির্বাচিত কমিটি ২০১৯-২০২০ এর অভিষেক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন শিক্ষামন্ত্রী।

মন্ত্রী বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শিক্ষাকে যেই জায়গায় নিয়ে যেতে চেয়েছিলেন। শিক্ষাকে বাহন হিসেবে ব্যবহার করে আমাদের দেশকে যেই জায়গায় নিয়ে যেতে চাই। সেই কাজটি করতে হলে শিক্ষা ক্ষেত্রে যে ইতিবাচক পরিবর্তন প্রয়োজন। সেগুলো ঘটছে কী না? সেগুলো আমরা সঠিক ভাবে করতে পারছি কী না? যারা আমরা দায়িত্বপ্রাপ্ত আমরা সঠিকভাবে দায়িত্বগুলো পালন করতে পারছি কী না? কোথাও দুর্নীতি হচ্ছে কী না? অনিয়ম হচ্ছে কী না? কোথাও বিশৃঙ্খলা আছে কী না? সাংবাদিকদের যেই কাজ সত্য বস্তুনিষ্ঠ তথ্য তুলে ধরা এবং তার মাধ্যমে ইতিবাচক পরিবর্তনের দিকে আমাদেরকে নিয়ে যেতে সহায়তা করা। আমি আশা করব শিক্ষাবিট সাংবাদিকরা দায়িত্বশীল হবেন।’

ডা. দীপু মনি বলেন, ‘আপনারও শিক্ষা পরিবারের সদস্য। গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় নির্বাচনের মাধ্যমে আপনাদের একটি কমিটি গঠন করেছেন, নব নির্বাচিত কার্যনির্বাহী কমিটিকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা। ’

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন বলেন, ‘সরকার প্রাথমিক শিক্ষার মান উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। ঝড়ে পড়া রোধে সরকার বৃত্তি উপবৃত্তি দিচ্ছে। গণমাধ্যমকর্মীদেরকে সঙ্গে নিয়ে আমরা এগিয়ে যেতে চাই।’

শিক্ষাউপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেন, ‘বর্তমান সরকার শিক্ষাখাতকে অগ্রাধিকার দিয়ে বিশেষ বরাদ্দ দিচ্ছে সে অনুযায়ী আমরা এখনো সফলতা অর্জন করতে সক্ষম হতে পারিনি। তবে বর্তমান সরকারের হাত ধরেই শিক্ষাখাতে আমূল পরিবর্তন এসেছে।’

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) চেয়ারম্যান ড. কাজী শহীদুল্লাহ বলেন, ‘একসময় দেশের হাতে গোনা কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয় ছিল। এখন দেড়শ’র বেশি বিশ্ববিদ্যালয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা ও শিক্ষার্থী বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মানের দিকেও খেয়াল রাখতে হবে।’

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. সোহরাব হোসাইন বলেন, ‘বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতার আহ্বান জানাই। শিক্ষার উন্নয়নে সরকারের পাশাপাশি আপনাদেরও সহযোগিতা প্রয়োজন।’

অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন দৈনিক যুগান্তরের সিনিয়র প্রতিবেদক ও ইরাবের সভাপতি মুসতাক আহমেদ। সঞ্চলনা করেন দৈনিক সমকালের বিশেষ প্রতিনিধি ও ইরাকের কার্যনির্বাহী সদস্য সাব্বির নেওয়াজ। শুরুতে স্বাগত বক্তব্য দেন ইরাবের সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক ইত্তেফাকের সিনিয়র রিপোর্টার নিজামুল হক।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন- শিক্ষা মন্ত্রণালয়, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি), প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর, ইউজিসি, এনটিআরসিএ, অবসর ও কল্যাণ বোর্ড, বিভিন্ন শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উদ্যোক্তা, সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, উপ-উপাচার্য, বিভিন্ন শিক্ষক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এবং রাজধানীর বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক শিক্ষার্থীরা।