২৩, সেপ্টেম্বর, ২০১৯, সোমবার | | ২৩ মুহররম ১৪৪১


ধর্ষণে বাধা দেওয়ায় ছুরিকাঘাতে মামা খুন, গণপিটুনিতে ঘাতক নিহত

রিপোর্টার নামঃ স্টাফ রিপোর্টার: | আপডেট: ২৪ আগস্ট ২০১৯, ১১:০২ এএম

ধর্ষণে বাধা দেওয়ায় ছুরিকাঘাতে মামা খুন, গণপিটুনিতে ঘাতক নিহত
ধর্ষণে বাধা দেওয়ায় ছুরিকাঘাতে মামা খুন, গণপিটুনিতে ঘাতক নিহত

চুয়াডাঙ্গায় স্কুলছাত্রী ধর্ষণে বাধা দেওয়ায় দুর্বৃত্তের ছুরিকাঘাতে হাসান আলী (২৬) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় ওই স্কুলছাত্রীসহ আরও দুজন আহত হয়েছেন। পরে গ্রামবাসীর গণপিটুনিতে দুর্বৃত্ত আকবর আলী (৩৫) নিহত হয়েছেন।

আজ শনিবার ভোরে সদর উপজেলার আমিরপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ছুরিকাঘাতে নিহত হাসান আলী আমিরপুর গ্রামের হামিদুল ইসলামের ছেলে। তিনি ওই ছাত্রীর মামা ছিলেন।

আর গণপিটুনিতে নিহত আকবর আলী দামুড়হুদা উপজেলার পারকৃষ্ণপুর মদনা গ্রামের মৃত আবুল হোসেনের ছেলে। তিনি আমিরপুর গ্রামে হাসান আলীর কাছের একটি বাড়িতে ভাড়া থাকতেন। দীর্ঘদিন ধরে তিনি ওই এলাকাতে সবজির ব্যবসা করতেন।

পুলিশ জানিয়েছে, হামলাকারী যুবক আকবর আলী ওই স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করতে গিয়ে প্রতিরোধের মুখে পড়ে ছুরি চালালে হাসান আলী নামে একজন মারা যান। এর পর গ্রামবাসীর পিটুনিতে মৃত্যু হয় আকবরের।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু জিহাদ মোহাম্মদ ফখরুল আলম খান জানান, ভোররাতে হাসান আলীর বাড়িতে তার স্কুলপড়ুয়া ভাগ্নিকে ধর্ষণের চেষ্টা চালায় আকবর। বাড়ির লোকজনের তাকে ধরে ফেললে সে ছুরিকাঘাত করে হাসান আলী ও তার বাবা হামিদুল ইসলামকে। ছুরিকাঘাতে হাসান আলীর মৃত্যুর পর গ্রামবাসীর পিটুনিতে আকবরও মারা যান।

খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে দুটি লাশ উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। আহত হামিদুলকে চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

আকবরের নারীঘটিত নানা কেলেঙ্কারির খবর পুলিশ জানতে পেরেছে বলেও জানান পুলিশের ওই কর্মকর্তা।

ধর্ষণে বাধা দেওয়ায় ছুরিকাঘাতে মামা খুন, গণপিটুনিতে ঘাতক নিহত

প্রতিবেদক নাম: স্টাফ রিপোর্টার: ,

প্রকাশের সময়ঃ ২৪ আগস্ট ২০১৯, ১১:০২ এএম

চুয়াডাঙ্গায় স্কুলছাত্রী ধর্ষণে বাধা দেওয়ায় দুর্বৃত্তের ছুরিকাঘাতে হাসান আলী (২৬) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় ওই স্কুলছাত্রীসহ আরও দুজন আহত হয়েছেন। পরে গ্রামবাসীর গণপিটুনিতে দুর্বৃত্ত আকবর আলী (৩৫) নিহত হয়েছেন।

আজ শনিবার ভোরে সদর উপজেলার আমিরপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ছুরিকাঘাতে নিহত হাসান আলী আমিরপুর গ্রামের হামিদুল ইসলামের ছেলে। তিনি ওই ছাত্রীর মামা ছিলেন।

আর গণপিটুনিতে নিহত আকবর আলী দামুড়হুদা উপজেলার পারকৃষ্ণপুর মদনা গ্রামের মৃত আবুল হোসেনের ছেলে। তিনি আমিরপুর গ্রামে হাসান আলীর কাছের একটি বাড়িতে ভাড়া থাকতেন। দীর্ঘদিন ধরে তিনি ওই এলাকাতে সবজির ব্যবসা করতেন।

পুলিশ জানিয়েছে, হামলাকারী যুবক আকবর আলী ওই স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করতে গিয়ে প্রতিরোধের মুখে পড়ে ছুরি চালালে হাসান আলী নামে একজন মারা যান। এর পর গ্রামবাসীর পিটুনিতে মৃত্যু হয় আকবরের।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু জিহাদ মোহাম্মদ ফখরুল আলম খান জানান, ভোররাতে হাসান আলীর বাড়িতে তার স্কুলপড়ুয়া ভাগ্নিকে ধর্ষণের চেষ্টা চালায় আকবর। বাড়ির লোকজনের তাকে ধরে ফেললে সে ছুরিকাঘাত করে হাসান আলী ও তার বাবা হামিদুল ইসলামকে। ছুরিকাঘাতে হাসান আলীর মৃত্যুর পর গ্রামবাসীর পিটুনিতে আকবরও মারা যান।

খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে দুটি লাশ উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। আহত হামিদুলকে চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

আকবরের নারীঘটিত নানা কেলেঙ্কারির খবর পুলিশ জানতে পেরেছে বলেও জানান পুলিশের ওই কর্মকর্তা।