১৮, আগস্ট, ২০১৯, রোববার | | ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০


ঈদের ছুটিতে ভারত মুখী পর্যটকদের ভিড়

রিপোর্টার নামঃ শহিদুল ইসলাম, বেনাপোল (যশোর) প্রতিনিধি: | আপডেট: ১০ আগস্ট ২০১৯, ০২:২৩ পিএম

ঈদের ছুটিতে ভারত মুখী পর্যটকদের ভিড়
ঈদের ছুটিতে ভারত মুখী পর্যটকদের ভিড়

আসন্ন ঈদ-উল-আযহার ছুটিতে ভারতে যাওয়া পর্যটকদের সংখ্যা বেড়েছে। ভিসার সহজলভ্যতা ও কম খরচের কারণে অনেকে পরিবার-পরিজন নিয়ে ঈদ কাটাতে এবং ঘুরতে ভারত যাচ্ছেন।

সরোজমিনে বেনাপোল চেকপোস্টে ভারতগামী পাসপোর্ট যাত্রীদের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। নিরাপত্তা ও বিশৃংখলা এড়াতে রয়েছে পুলিশসহ কয়েকটি নিরাপত্তা বাহিনী। সকাল ৭ টা থেকে সন্ধ্যা ৬ টা পর্যন্ত বেনাপোল ইমিগ্রেশনে সারাদিনই যাত্রীদের দীর্ঘ লাইন লক্ষ্য করা যায়।

বেনাপোল চেকপোষ্ট এলাকায় সকাল থেকে ভীড় জমায় পাসপোর্টযাত্রীরা অতিষ্ঠ হয়ে উঠে। যারা লাইনে পিছনে আসছে তারা এখানকার কিছু অসাধু আনসার সদস্যদের টাকার বিনিময়ে চলে যাওয়ায় দীর্ঘ সময় দাঁড়িয়ে থাকা যাত্রীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

ভারত গমনকারী পাসপোর্ট যাত্রী অমল বোস বলেন, দীর্ঘ তিন ঘন্টা লাইনে দাঁড়িয়ে আছি। এর আগে কোন দিন এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়নি।
ঢাকা থেকে আসা ক্যান্সার যাত্রী আমেনা খাতুন বলেন, আমি আমার রোগের পরিচয় এবং ক্যান্সার কার্ড দেখালেও আনছার সদস্যরা আমাকে প্রবেশ করতে দেয়নি। অথচ আমার পিছনে থাকা যাত্রীদের টাকার বিনিময়ে লাইন থেকে নিয়ে আগে ভিতরে ঢুকানো হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, গত দুই মাস যাবৎ এরকম অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বেনাপোল চেকপোষ্ট ইমিগ্রেশনে। এর আগে এর চেয়ে দ্বিগুন লোক ভারতে প্রবেশ করলেও এরকম লাইনের সৃষ্টি হয়নি। তারা অভিযোগ করে বলে, ঢাকা থেকে এস,বি আসছে এরকম দোহাই দিয়ে পাসপোর্ট যাত্রীদের ভোগান্তিতে ফেলছে ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ। পাসপোর্ট যাত্রীরা যে ভাবে দ্রুত তাদের আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে যেতে পারবে সে ব্যবস্থা করা উচিৎ। আগে যে ভাবে পাসপোর্টযাত্রীরা ভারতে যাতায়াত করতো তাতে কোন ঝামেলা হয়নি । কিন্তু বর্তমানে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ যাত্রীদের ভোগাচ্ছে ।

অপরদিকে, বেনাপোল স্থল বন্দর কর্তৃপক্ষ ভারতগামী পাসপোর্ট যাত্রীদের নিকট থেকে ৪৫ টাকা টার্মিনাল চার্জ নিলেও তাদের দিতে পারছে না বসার স্থান। মাত্র ৫০ জনের সীট রয়েছে টার্মিনালের ভিতরে। অথচ এ পথে প্রতিদিন তিন থেকে চার হাজার যাত্রী ভারতে প্রবেশ করে। যাত্রীরা টার্মিনাল চার্জ দিয়ে বাহিরে রোদ বৃষ্টিতে ভিজছে। সব মিলিয়ে বেনাপোল চেকপোষ্টে অপরিকল্পিত ব্যবস্থাপনায় পাসপোর্ট যাত্রীরা ভোগান্তির শিকার হচ্ছে।

বেনাপোল ইমিগ্রেশন ওসি আবুল বাশার বলেন, ঈদের ছুটিতে যাত্রী সংখ্যা বৃহস্পতিবার বিকাল থেকে বেশি লক্ষ্য করা গেছে। যাত্রীদের সেবায় আমাদের ডেস্ক একটানা কাজ করে যাচ্ছে।

ঈদের ছুটিতে ভারত মুখী পর্যটকদের ভিড়

প্রতিবেদক নাম: শহিদুল ইসলাম, বেনাপোল (যশোর) প্রতিনিধি: ,

প্রকাশের সময়ঃ ১০ আগস্ট ২০১৯, ০২:২৩ পিএম

আসন্ন ঈদ-উল-আযহার ছুটিতে ভারতে যাওয়া পর্যটকদের সংখ্যা বেড়েছে। ভিসার সহজলভ্যতা ও কম খরচের কারণে অনেকে পরিবার-পরিজন নিয়ে ঈদ কাটাতে এবং ঘুরতে ভারত যাচ্ছেন।

সরোজমিনে বেনাপোল চেকপোস্টে ভারতগামী পাসপোর্ট যাত্রীদের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। নিরাপত্তা ও বিশৃংখলা এড়াতে রয়েছে পুলিশসহ কয়েকটি নিরাপত্তা বাহিনী। সকাল ৭ টা থেকে সন্ধ্যা ৬ টা পর্যন্ত বেনাপোল ইমিগ্রেশনে সারাদিনই যাত্রীদের দীর্ঘ লাইন লক্ষ্য করা যায়।

বেনাপোল চেকপোষ্ট এলাকায় সকাল থেকে ভীড় জমায় পাসপোর্টযাত্রীরা অতিষ্ঠ হয়ে উঠে। যারা লাইনে পিছনে আসছে তারা এখানকার কিছু অসাধু আনসার সদস্যদের টাকার বিনিময়ে চলে যাওয়ায় দীর্ঘ সময় দাঁড়িয়ে থাকা যাত্রীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

ভারত গমনকারী পাসপোর্ট যাত্রী অমল বোস বলেন, দীর্ঘ তিন ঘন্টা লাইনে দাঁড়িয়ে আছি। এর আগে কোন দিন এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়নি।
ঢাকা থেকে আসা ক্যান্সার যাত্রী আমেনা খাতুন বলেন, আমি আমার রোগের পরিচয় এবং ক্যান্সার কার্ড দেখালেও আনছার সদস্যরা আমাকে প্রবেশ করতে দেয়নি। অথচ আমার পিছনে থাকা যাত্রীদের টাকার বিনিময়ে লাইন থেকে নিয়ে আগে ভিতরে ঢুকানো হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, গত দুই মাস যাবৎ এরকম অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বেনাপোল চেকপোষ্ট ইমিগ্রেশনে। এর আগে এর চেয়ে দ্বিগুন লোক ভারতে প্রবেশ করলেও এরকম লাইনের সৃষ্টি হয়নি। তারা অভিযোগ করে বলে, ঢাকা থেকে এস,বি আসছে এরকম দোহাই দিয়ে পাসপোর্ট যাত্রীদের ভোগান্তিতে ফেলছে ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ। পাসপোর্ট যাত্রীরা যে ভাবে দ্রুত তাদের আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে যেতে পারবে সে ব্যবস্থা করা উচিৎ। আগে যে ভাবে পাসপোর্টযাত্রীরা ভারতে যাতায়াত করতো তাতে কোন ঝামেলা হয়নি । কিন্তু বর্তমানে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ যাত্রীদের ভোগাচ্ছে ।

অপরদিকে, বেনাপোল স্থল বন্দর কর্তৃপক্ষ ভারতগামী পাসপোর্ট যাত্রীদের নিকট থেকে ৪৫ টাকা টার্মিনাল চার্জ নিলেও তাদের দিতে পারছে না বসার স্থান। মাত্র ৫০ জনের সীট রয়েছে টার্মিনালের ভিতরে। অথচ এ পথে প্রতিদিন তিন থেকে চার হাজার যাত্রী ভারতে প্রবেশ করে। যাত্রীরা টার্মিনাল চার্জ দিয়ে বাহিরে রোদ বৃষ্টিতে ভিজছে। সব মিলিয়ে বেনাপোল চেকপোষ্টে অপরিকল্পিত ব্যবস্থাপনায় পাসপোর্ট যাত্রীরা ভোগান্তির শিকার হচ্ছে।

বেনাপোল ইমিগ্রেশন ওসি আবুল বাশার বলেন, ঈদের ছুটিতে যাত্রী সংখ্যা বৃহস্পতিবার বিকাল থেকে বেশি লক্ষ্য করা গেছে। যাত্রীদের সেবায় আমাদের ডেস্ক একটানা কাজ করে যাচ্ছে।