১৭, আগস্ট, ২০১৯, শনিবার | | ১৫ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০


ভয়াবহ ডেঙ্গু ছড়ানো এডিস মশা থেকে বাঁচার প্রাকৃতিক ৭ উপায়!

রিপোর্টার নামঃ লাইফস্টাইল | আপডেট: ০৯ আগস্ট ২০১৯, ০৭:৫২ পিএম

ভয়াবহ ডেঙ্গু ছড়ানো এডিস মশা থেকে বাঁচার প্রাকৃতিক ৭ উপায়!
ভয়াবহ ডেঙ্গু ছড়ানো এডিস মশা থেকে বাঁচার প্রাকৃতিক ৭ উপায়!

আমরা বাঙালিরা যে কোন বিষয়ে দুভাগে ভাগ হয়ে যাই। তবে একটি বিষয়ে কিন্তু সবাই একমত হতে বাধ্য। আর তা হল এডিস মশার প্রকোপ ও ডেঙ্গুর ভয়াবহতা।

তবে ছোট্ট কিন্তু এই ভয়ঙ্কর প্রাণীটি গন্ধ বা ঘ্রাণ এর ব্যাপারে খুব সেন্সসেটিভ। আর প্রাকৃতিক কিছু ঘ্রাণ দিয়ে চাইলে মশার কামড় থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব। যেমন –

১. নিম পাতাঃ

বাংলাদেশে নিম পাতা খুবই সহজলভ্য। এর কড়া গন্ধ আপনাকে মশা থেকে রক্ষা করবে। নিম পাতা এমনেই ত্বকের জন্য খুব উপকারী। মশা থেকে রেহাই পেতে শরীরে ব্যবহার করতে পারেন। অথবা শুধু কবজিতে একটু স্প্রে দিয়ে রাখতে পারেন।

২. লেমন গ্রাসঃ

খুব সুন্দর ঘ্রাণযুক্ত একটি ঘাস যা মূলত এশিয়াতে উৎপন্ন হয়। বাংলাদেশে এর বহুল পরিচিতি খাবারের একটি উপাদান হিসেবে। খুব বেশি কিছু না একটি স্প্রে বোতলে ২ কাপ পানির সাথে লেমন গ্রাস বাটা বা লেমন গ্রাস ঘ্রাণযুক্ত এসেনশিয়াল ওয়েল মিশিয়ে নিন। এরপর পুরো ঘরে এবং আপনার কাপড়েও এই স্প্রে ছিটিয়ে নিন। চাইলে বাড়িতে লেমন গ্রাসের চাষ করতে পারেন। দেখবেন মশা ধারে কাছে আসছে না। কারণ লেমন গ্রাসের তীব্র গন্ধ আপনার শরীর থেকে আসা কার্বন-ডাই-অক্সাইড ও ল্যাকটিক এসিড এর গন্ধকে ছাপিয়ে যায় যার কারণে মশা মানুষের গায়ের গন্ধ বুঝতে পারেনা।

৩. পুদিনাপাতা বা মেন্থলঃ

মূলত পুদিনা গাছ থেকেই মেন্থলের উৎপত্তি। বিভিন্ন খাবারে সুন্দর ঘ্রাণের জন্য পুদিনাপাতার ব্যবহারতো আছেই। এছাড়া প্রসাধনী সামগ্রিতে মেন্থলের ব্যবহার খুব বেশি দেখা যায়। এখন পুদিনা তেল অর্থাৎ পিপারমিন্ট ওয়েল এর চাহিদা অনেক বেশি। মশা তাড়াতে ছোট স্প্রে বোতল ভর্তি পানিতে ১০ ফোটা পিপারমিন্ট ওয়েল মিশিয়ে নিন। চাইলে কিছু পুদিনা পাতা দিয়ে দিতে পারেন সাথে। এবার ভালো করে ঝাকিয়ে স্প্রে করে দিন আপনার পরিধেয় কাপড়ে এবং শরীরে।

৪. রসুনঃ

বাঙালির নিয়মিত প্রয়োজনে রসুন থাকে সবসময়। তবে আপনি মুখে এক কোয়া রসুন চিবোতে থাকলে এর যে তীব্র গন্ধ তৈরি হবে তাতে আপনাকে খুঁজে পাওয়া মশার জন্য মুশকিল হবে। এছাড়া আপনার ঘরের চারপাশে রসুন স্লাইস করে ফেলে রাখতে পারেন। এতে ঘরে মশা থাকবে না।

৫. গাঁদাফুলঃ

উজ্জ্বল হলুদ ও কমলা রং এর এই ফুল কিন্তু আমাদের সবার পরিচিত। যে কোন উৎসব অনুষ্ঠানে গাঁদা ফুলের জয়জয়কার। মজার ব্যাপার হল এর তীব্র গন্ধ মশামুক্ত রাখবে আপনাকে। বাড়ির পাশে খালি জায়গা বা বাড়ান্দায় গাঁদা ফুল লাগান। মশামুক্ত যেমন হবে তেমনি বাড়বে সৌন্দর্য। এছাড়া ঘরে ফুলদানিতে রাখতে পারেন টাটকা গাঁদাগুল। শরীর ও মন দুই সুস্থ থাকবে।

৬. তুলসী পাতাঃ

হাতের কাছেই পাওয়া যায় তুলসী পাতা। এর আলাদা গন্ধ মশাদের দূরে রাখে। বিভিন্নভাবে ব্যবহার করতে পারেন চাইলে। হাতের তালুতে তুলসী পাতা ঘষে শরীরে লাগাতে পারেন, চাইলে পুদিনা পাতার মত স্প্রে বানিয়ে ব্যবহার করতে পারেন, বাড়িতে তুলসী গাছ লাগাতে পারেন আর চাইলে খেতেও পারেন। সবটাই উপকারী আপনার জন্য কিন্তু মশার জন্য নয়!

৭. রোজমেরিঃ

আজকাল বিদেশি খাবার বিশেষ করে বার্বিকিউ, স্টেক, বার্গার ইত্যাদি খাবারে রোজমেরি খুব ব্যবহার হয়ে থাকে। বাংলাদেশের এর চাহিদা দিন দিন বাড়ছে। সুপারশপগুলোতে একটু ঢু মারলেই পাওয়া যায় রোজমেরি পাতা। সুন্দর সুগন্ধযুক্ত এই পাতা কিন্তু মশার এবং অন্যান্য পোকামাকরের খুবই অপছন্দ। তাই রোজমেরি স্প্রে শরীরে ব্যবহার করলে মশা থেকে রক্ষা পাবেন।

প্রাকৃতিক উপাদান দিয়ে খুব সহজেই নিজেকে এবং পরিবারকে রক্ষা করতে পারেন এডিস মশার কবল থেকে। তবে সবার আগে প্রয়োজন সচেতনতা। চারপাশ পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখুন যেন এডিস মশার বংশ বৃদ্ধি হতে না পারে। তবেইতো আপনি সুস্থ থাকবেন এবং সুস্থ থাকবে পুরো দেশ।

ভয়াবহ ডেঙ্গু ছড়ানো এডিস মশা থেকে বাঁচার প্রাকৃতিক ৭ উপায়!

প্রতিবেদক নাম: লাইফস্টাইল ,

প্রকাশের সময়ঃ ০৯ আগস্ট ২০১৯, ০৭:৫২ পিএম

আমরা বাঙালিরা যে কোন বিষয়ে দুভাগে ভাগ হয়ে যাই। তবে একটি বিষয়ে কিন্তু সবাই একমত হতে বাধ্য। আর তা হল এডিস মশার প্রকোপ ও ডেঙ্গুর ভয়াবহতা।

তবে ছোট্ট কিন্তু এই ভয়ঙ্কর প্রাণীটি গন্ধ বা ঘ্রাণ এর ব্যাপারে খুব সেন্সসেটিভ। আর প্রাকৃতিক কিছু ঘ্রাণ দিয়ে চাইলে মশার কামড় থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব। যেমন –

১. নিম পাতাঃ

বাংলাদেশে নিম পাতা খুবই সহজলভ্য। এর কড়া গন্ধ আপনাকে মশা থেকে রক্ষা করবে। নিম পাতা এমনেই ত্বকের জন্য খুব উপকারী। মশা থেকে রেহাই পেতে শরীরে ব্যবহার করতে পারেন। অথবা শুধু কবজিতে একটু স্প্রে দিয়ে রাখতে পারেন।

২. লেমন গ্রাসঃ

খুব সুন্দর ঘ্রাণযুক্ত একটি ঘাস যা মূলত এশিয়াতে উৎপন্ন হয়। বাংলাদেশে এর বহুল পরিচিতি খাবারের একটি উপাদান হিসেবে। খুব বেশি কিছু না একটি স্প্রে বোতলে ২ কাপ পানির সাথে লেমন গ্রাস বাটা বা লেমন গ্রাস ঘ্রাণযুক্ত এসেনশিয়াল ওয়েল মিশিয়ে নিন। এরপর পুরো ঘরে এবং আপনার কাপড়েও এই স্প্রে ছিটিয়ে নিন। চাইলে বাড়িতে লেমন গ্রাসের চাষ করতে পারেন। দেখবেন মশা ধারে কাছে আসছে না। কারণ লেমন গ্রাসের তীব্র গন্ধ আপনার শরীর থেকে আসা কার্বন-ডাই-অক্সাইড ও ল্যাকটিক এসিড এর গন্ধকে ছাপিয়ে যায় যার কারণে মশা মানুষের গায়ের গন্ধ বুঝতে পারেনা।

৩. পুদিনাপাতা বা মেন্থলঃ

মূলত পুদিনা গাছ থেকেই মেন্থলের উৎপত্তি। বিভিন্ন খাবারে সুন্দর ঘ্রাণের জন্য পুদিনাপাতার ব্যবহারতো আছেই। এছাড়া প্রসাধনী সামগ্রিতে মেন্থলের ব্যবহার খুব বেশি দেখা যায়। এখন পুদিনা তেল অর্থাৎ পিপারমিন্ট ওয়েল এর চাহিদা অনেক বেশি। মশা তাড়াতে ছোট স্প্রে বোতল ভর্তি পানিতে ১০ ফোটা পিপারমিন্ট ওয়েল মিশিয়ে নিন। চাইলে কিছু পুদিনা পাতা দিয়ে দিতে পারেন সাথে। এবার ভালো করে ঝাকিয়ে স্প্রে করে দিন আপনার পরিধেয় কাপড়ে এবং শরীরে।

৪. রসুনঃ

বাঙালির নিয়মিত প্রয়োজনে রসুন থাকে সবসময়। তবে আপনি মুখে এক কোয়া রসুন চিবোতে থাকলে এর যে তীব্র গন্ধ তৈরি হবে তাতে আপনাকে খুঁজে পাওয়া মশার জন্য মুশকিল হবে। এছাড়া আপনার ঘরের চারপাশে রসুন স্লাইস করে ফেলে রাখতে পারেন। এতে ঘরে মশা থাকবে না।

৫. গাঁদাফুলঃ

উজ্জ্বল হলুদ ও কমলা রং এর এই ফুল কিন্তু আমাদের সবার পরিচিত। যে কোন উৎসব অনুষ্ঠানে গাঁদা ফুলের জয়জয়কার। মজার ব্যাপার হল এর তীব্র গন্ধ মশামুক্ত রাখবে আপনাকে। বাড়ির পাশে খালি জায়গা বা বাড়ান্দায় গাঁদা ফুল লাগান। মশামুক্ত যেমন হবে তেমনি বাড়বে সৌন্দর্য। এছাড়া ঘরে ফুলদানিতে রাখতে পারেন টাটকা গাঁদাগুল। শরীর ও মন দুই সুস্থ থাকবে।

৬. তুলসী পাতাঃ

হাতের কাছেই পাওয়া যায় তুলসী পাতা। এর আলাদা গন্ধ মশাদের দূরে রাখে। বিভিন্নভাবে ব্যবহার করতে পারেন চাইলে। হাতের তালুতে তুলসী পাতা ঘষে শরীরে লাগাতে পারেন, চাইলে পুদিনা পাতার মত স্প্রে বানিয়ে ব্যবহার করতে পারেন, বাড়িতে তুলসী গাছ লাগাতে পারেন আর চাইলে খেতেও পারেন। সবটাই উপকারী আপনার জন্য কিন্তু মশার জন্য নয়!

৭. রোজমেরিঃ

আজকাল বিদেশি খাবার বিশেষ করে বার্বিকিউ, স্টেক, বার্গার ইত্যাদি খাবারে রোজমেরি খুব ব্যবহার হয়ে থাকে। বাংলাদেশের এর চাহিদা দিন দিন বাড়ছে। সুপারশপগুলোতে একটু ঢু মারলেই পাওয়া যায় রোজমেরি পাতা। সুন্দর সুগন্ধযুক্ত এই পাতা কিন্তু মশার এবং অন্যান্য পোকামাকরের খুবই অপছন্দ। তাই রোজমেরি স্প্রে শরীরে ব্যবহার করলে মশা থেকে রক্ষা পাবেন।

প্রাকৃতিক উপাদান দিয়ে খুব সহজেই নিজেকে এবং পরিবারকে রক্ষা করতে পারেন এডিস মশার কবল থেকে। তবে সবার আগে প্রয়োজন সচেতনতা। চারপাশ পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখুন যেন এডিস মশার বংশ বৃদ্ধি হতে না পারে। তবেইতো আপনি সুস্থ থাকবেন এবং সুস্থ থাকবে পুরো দেশ।