১৮, আগস্ট, ২০১৯, রোববার | | ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০


কাশ্মীরের ‘বিশেষ মর্যাদা’ বাতিল না করার আহ্বান জাতিসংঘের

রিপোর্টার নামঃ আন্তর্জাতিক ডেস্ক: | আপডেট: ০৯ আগস্ট ২০১৯, ১০:০২ এএম

কাশ্মীরের ‘বিশেষ মর্যাদা’ বাতিল না করার আহ্বান জাতিসংঘের
কাশ্মীরের ‘বিশেষ মর্যাদা’ বাতিল না করার আহ্বান জাতিসংঘের

জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে, এমন পদক্ষেপ নেয়া থেকে বিরত থাকতে ভারতের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্টনিও গুতেরেস। একই সঙ্গে কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তান এবং ভারতকে সর্বোচ্চ সংযম দেখানোর আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

এছাড়া কাশ্মীর নিয়ে দুই দেশের মাঝে স্বাক্ষরিত শিমলা চুক্তির কথাও স্বরণ করে দিয়েছেন তিনি। ১৯৭২ সালে স্বাক্ষরিত এই চুক্তি অনুযায়ী, ভারত-পাকিস্তান কোন সমস্যা সমাধানে তৃতীয় পক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করতে পারে না।

জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা সংক্রান্ত ভারতীয় সংবিধানের অনুচ্ছেদ ৩৭০ গত সোমবার দেশটির রাজ্যসভায় বাতিল হয়ে যায়। ভারতীয় এই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এখন জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখ পৃথক দুটি কেন্দ্রীয় অঞ্চলে পরিণত হবে।

ভারতের এই পদক্ষেপকে একতরফা এবং বেআইনি বলে মন্তব্য করেছে পাকিস্তান। কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিলের বিষয়টিকে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের অধিবেশনে তোলা হবে বলে জানিয়েছেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

অ্যান্টনিও গুতেরেসের মুখপাত্র স্টেফানে ডুজারিক বলেন, গভীর উদ্বেগের সঙ্গে জম্মু-কাশ্মীর পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন মহাসচিব। সর্বোচ্চ সংযম দেখাতে পাক-ভারত, উভয় দেশের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

ডুজারিক বলেন, ভারত পাকিস্তানের মধ্যে ১৯৭২ সালে স্বাক্ষরিত দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক বিষয়ক শিমলা চুক্তির কথা মনে করিয়ে দিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব। এই চুক্তিতে বলা হয়েছে, জাতিসংঘের সনদ অনুযায়ী শান্তিপূর্ণ উপায়ে জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা নির্ধারিত হবে।

তবে কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তান-ভারতের মাঝে মধ্যস্থতার কোনো ধরনের প্রস্তাব দেননি অ্যান্টনিও গুতেরেস। কাশ্মীরের মর্যাদাহানি হতে পারে এমন পদক্ষেপ না নিতে সব পক্ষকে আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। এই অঞ্চলে জাতিসংঘের অবস্থান সংস্থাটির সনদ অনুযায়ী বলবৎ আছে বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

-ডন

কাশ্মীরের ‘বিশেষ মর্যাদা’ বাতিল না করার আহ্বান জাতিসংঘের

প্রতিবেদক নাম: আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ,

প্রকাশের সময়ঃ ০৯ আগস্ট ২০১৯, ১০:০২ এএম

জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে, এমন পদক্ষেপ নেয়া থেকে বিরত থাকতে ভারতের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্টনিও গুতেরেস। একই সঙ্গে কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তান এবং ভারতকে সর্বোচ্চ সংযম দেখানোর আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

এছাড়া কাশ্মীর নিয়ে দুই দেশের মাঝে স্বাক্ষরিত শিমলা চুক্তির কথাও স্বরণ করে দিয়েছেন তিনি। ১৯৭২ সালে স্বাক্ষরিত এই চুক্তি অনুযায়ী, ভারত-পাকিস্তান কোন সমস্যা সমাধানে তৃতীয় পক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করতে পারে না।

জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা সংক্রান্ত ভারতীয় সংবিধানের অনুচ্ছেদ ৩৭০ গত সোমবার দেশটির রাজ্যসভায় বাতিল হয়ে যায়। ভারতীয় এই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এখন জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখ পৃথক দুটি কেন্দ্রীয় অঞ্চলে পরিণত হবে।

ভারতের এই পদক্ষেপকে একতরফা এবং বেআইনি বলে মন্তব্য করেছে পাকিস্তান। কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিলের বিষয়টিকে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের অধিবেশনে তোলা হবে বলে জানিয়েছেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

অ্যান্টনিও গুতেরেসের মুখপাত্র স্টেফানে ডুজারিক বলেন, গভীর উদ্বেগের সঙ্গে জম্মু-কাশ্মীর পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন মহাসচিব। সর্বোচ্চ সংযম দেখাতে পাক-ভারত, উভয় দেশের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

ডুজারিক বলেন, ভারত পাকিস্তানের মধ্যে ১৯৭২ সালে স্বাক্ষরিত দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক বিষয়ক শিমলা চুক্তির কথা মনে করিয়ে দিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব। এই চুক্তিতে বলা হয়েছে, জাতিসংঘের সনদ অনুযায়ী শান্তিপূর্ণ উপায়ে জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা নির্ধারিত হবে।

তবে কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তান-ভারতের মাঝে মধ্যস্থতার কোনো ধরনের প্রস্তাব দেননি অ্যান্টনিও গুতেরেস। কাশ্মীরের মর্যাদাহানি হতে পারে এমন পদক্ষেপ না নিতে সব পক্ষকে আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। এই অঞ্চলে জাতিসংঘের অবস্থান সংস্থাটির সনদ অনুযায়ী বলবৎ আছে বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

-ডন