২৩, আগস্ট, ২০১৯, শুক্রবার | | ২১ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০


যে কারণে শাকিবের বিরুদ্ধে মামলা করতে পারেন জাজ!

রিপোর্টার নামঃ বিনোদন ডেস্ক: | আপডেট: ০৭ আগস্ট ২০১৯, ০৮:১১ পিএম

যে কারণে শাকিবের বিরুদ্ধে মামলা করতে পারেন জাজ!
যে কারণে শাকিবের বিরুদ্ধে মামলা করতে পারেন জাজ!

চিত্রনায়ক শাকিব খানের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান এস কে ফিল্মস ঈদ উপলক্ষে প্রায় দেড়শ প্রেক্ষাগৃহে নিজস্ব প্রজেক্টর ও সার্ভার বসানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আর এ কারণেই এবার জাজ মামলা করতে পারে বলে জানিয়েছে। তবে তাদের এই উদ্যোগে স্বাগত জানিয়েছে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতি।

জানা গেছে, শাকিব খানের প্রেক্ষাগৃহে উন্নত প্রজেক্টর ও সার্ভারের প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে সোমবার( ৬ আগস্ট) রাতে রাজধানীর একটি হোটেলে প্রদর্শক সমিতির কার্যনির্বাহী সদস্যরা সভা করে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের হল–মালিকদের নতুন প্রদর্শন ব্যবস্থার সঙ্গে সম্পৃক্ত হওয়ার আহ্বান জানান।

এমন পরিস্থিতিতে জাজ মাল্টিমিডিয়া কর্তৃপক্ষ দাবি করছে, কয়েক বছর আগে ৩১২টি প্রেক্ষাগৃহের সঙ্গে চুক্তি করে সার্ভার ও প্রজেক্টর বসিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করছে তারা। তিন মাস আগে তিন বছরের জন্য চুক্তির নবায়নও হয়েছে।

জাজের প্রধান নির্বাহী আলিমুল্লাহ খোকন বলেন, ‘এখনো এসব প্রতিষ্ঠানে সার্ভার এবং প্রজেক্টর পড়ে আছে। আমাদের সাউন্ড সিস্টেমস আছে এসব প্রতিষ্ঠানে। কোনো চুক্তি বাতিল করতে হলে তিন মাসের নোটিশ দিতে হয়। চুক্তিপত্র ভেঙে জোরপূর্বক আমাদের প্রেক্ষাগৃহে প্রজেক্টর ও সার্ভার বসানো হলে মামলা করব।’

এসময় তিনি আরো বলেন, ‘কমবেশি সবার কাছেই আমাদের বকেয়া আছে। টাকা না দেওয়ার জন্য তারা নতুন সরবরকারীর দ্বারস্থ হয়েছে।’

যে কারণে শাকিবের বিরুদ্ধে মামলা করতে পারেন জাজ!

প্রতিবেদক নাম: বিনোদন ডেস্ক: ,

প্রকাশের সময়ঃ ০৭ আগস্ট ২০১৯, ০৮:১১ পিএম

চিত্রনায়ক শাকিব খানের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান এস কে ফিল্মস ঈদ উপলক্ষে প্রায় দেড়শ প্রেক্ষাগৃহে নিজস্ব প্রজেক্টর ও সার্ভার বসানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আর এ কারণেই এবার জাজ মামলা করতে পারে বলে জানিয়েছে। তবে তাদের এই উদ্যোগে স্বাগত জানিয়েছে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতি।

জানা গেছে, শাকিব খানের প্রেক্ষাগৃহে উন্নত প্রজেক্টর ও সার্ভারের প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে সোমবার( ৬ আগস্ট) রাতে রাজধানীর একটি হোটেলে প্রদর্শক সমিতির কার্যনির্বাহী সদস্যরা সভা করে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের হল–মালিকদের নতুন প্রদর্শন ব্যবস্থার সঙ্গে সম্পৃক্ত হওয়ার আহ্বান জানান।

এমন পরিস্থিতিতে জাজ মাল্টিমিডিয়া কর্তৃপক্ষ দাবি করছে, কয়েক বছর আগে ৩১২টি প্রেক্ষাগৃহের সঙ্গে চুক্তি করে সার্ভার ও প্রজেক্টর বসিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করছে তারা। তিন মাস আগে তিন বছরের জন্য চুক্তির নবায়নও হয়েছে।

জাজের প্রধান নির্বাহী আলিমুল্লাহ খোকন বলেন, ‘এখনো এসব প্রতিষ্ঠানে সার্ভার এবং প্রজেক্টর পড়ে আছে। আমাদের সাউন্ড সিস্টেমস আছে এসব প্রতিষ্ঠানে। কোনো চুক্তি বাতিল করতে হলে তিন মাসের নোটিশ দিতে হয়। চুক্তিপত্র ভেঙে জোরপূর্বক আমাদের প্রেক্ষাগৃহে প্রজেক্টর ও সার্ভার বসানো হলে মামলা করব।’

এসময় তিনি আরো বলেন, ‘কমবেশি সবার কাছেই আমাদের বকেয়া আছে। টাকা না দেওয়ার জন্য তারা নতুন সরবরকারীর দ্বারস্থ হয়েছে।’