১৮, আগস্ট, ২০১৯, রোববার | | ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০


সরকার মশা মারার নাটক করছে, বললেন মান্না

রিপোর্টার নামঃ স্টাফ রিপোর্টার: | আপডেট: ০৬ আগস্ট ২০১৯, ১১:৪৪ পিএম

সরকার মশা মারার নাটক করছে, বললেন মান্না
সরকার মশা মারার নাটক করছে, বললেন মান্না

সরকার এ পর্যন্ত মশা মারার কার্যকর কোনো ওষুধ আমদানি করতে পারেনি বলে অভিযোগ করেছেন নাগরিক ঐক্যের এই আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না। তিনি বলেন, তারা মশা মারার নাটক করছে।

আজ মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে জাতীয় মুক্তি মঞ্চ আয়োজিত ‘দেশের সার্বিক বিরাজমান পরিস্থিতি-উত্তরণের উপায়’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে মান্না এসব কথা বলেন।

মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ‘এদের (সরকার) হাতে দেশের মানুষ নিরাপদ নয়। এরা এখন পর্যন্ত মশা মারার কার্যকর ওষুধ আমদানি করতে পারেনি। কিন্তু মশা মারার নাটক করছে। বর্তমান ওষুধটি কার্যকর নয়,এমন রিপোর্ট গত দুই-তিন বছর ধরে পত্রিকায় দেখা গেলেও শুধুমাত্র পছন্দের কোম্পানিকে অন্যায়ভাবে কাজ পাইয়ে দেওয়ার জন্য একই ওষুধ কেনা হয়েছে।’

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার উদ্ধৃতি দিয়ে মান্না বলেন, ‘সরকারি হিসাবে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা অত্যন্ত কম করে দেখানো হয়। ডেঙ্গুতে আক্রান্ত সব রোগী সরকারি নজরদারির মধ্যে নেই। চিকিৎসা নিতে আসা মাত্র ২ শতাংশ রোগী সরকারি নজরদারির মধ্যে পড়ে। ৯৮ শতাংশের কোনো তথ্য থাকে না। আবার আক্রান্তদের মধ্যে ৮৫ শতাংশই চিকিৎসা নেন না।’

ডেঙ্গুতে দেশ ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির মধ্যে রয়েছে জানিয়ে মান্না বলেন, ‘ডেঙ্গুর ভয়াবহ বিস্তারের কারণে দেশ আজ এক ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির মধ্যে আছে। সারা বিশ্বের মিডিয়ায় বাংলাদেশের ডেঙ্গু পরিস্থিতি সম্পর্কে বলা হয়েছে-এটা এর মধ্যেই মহামারীর পর্যায়ে পৌঁছে গেছে। দেশের সবকটি জেলা এখন ডেঙ্গু কবলিত। পত্রিকায় প্রকাশিত এ পর্যন্ত ৮০ জনের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে। অথচ মাত্র কয়েকদিন আগে আমরা দেখেছি, এই ডেঙ্গু নিয়ে সরকারের স্বাস্থ্যমন্ত্রী এবং সিটি করপোরেশনের দুই মেয়র কী বাগাড়ম্বর করেছেন। তারা অনর্থক বিরোধী দলীয় রাজনীতিকে দোষারোপ করেছেন।’

ডেঙ্গুর বিষয়ে আগাম সতর্কতা জানিয়ে হাইকোর্ট থেকে সিটি করপোরেশনকে নোটিশ দিয়েছিল গত ফেব্রুয়ারি মাসেই। মার্চ মাসে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর দুই সিটি করপোরেশনকে ডেঙ্গু নিয়ে সতর্কতা জারি করেছিল। কিন্তু কোনো কিছুই সরকারকে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়াতে পারেনি বলেও জানান নাগরিক ঐক্যের এই আহ্বায়ক।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী এবং দুই মেয়রের পদত্যাগ দাবি করে মান্না বলেন, ‘এখন পর্যন্ত একটা কার্যকর মশার ওষুধ আমদানি করে মশা মারার ব্যবস্থা করা যায়নি। এই ভয়াবহ ব্যর্থতার জন্য স্বাস্থ্যমন্ত্রী এবং দুই সিটি করপোরেশনের মেয়রের এক্ষুণি পদত্যাগ করতে হবে।’

আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন কর্নেল (অব.) অলি আহমদ ও বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম প্রমুখ।

সরকার মশা মারার নাটক করছে, বললেন মান্না

প্রতিবেদক নাম: স্টাফ রিপোর্টার: ,

প্রকাশের সময়ঃ ০৬ আগস্ট ২০১৯, ১১:৪৪ পিএম

সরকার এ পর্যন্ত মশা মারার কার্যকর কোনো ওষুধ আমদানি করতে পারেনি বলে অভিযোগ করেছেন নাগরিক ঐক্যের এই আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না। তিনি বলেন, তারা মশা মারার নাটক করছে।

আজ মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে জাতীয় মুক্তি মঞ্চ আয়োজিত ‘দেশের সার্বিক বিরাজমান পরিস্থিতি-উত্তরণের উপায়’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে মান্না এসব কথা বলেন।

মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ‘এদের (সরকার) হাতে দেশের মানুষ নিরাপদ নয়। এরা এখন পর্যন্ত মশা মারার কার্যকর ওষুধ আমদানি করতে পারেনি। কিন্তু মশা মারার নাটক করছে। বর্তমান ওষুধটি কার্যকর নয়,এমন রিপোর্ট গত দুই-তিন বছর ধরে পত্রিকায় দেখা গেলেও শুধুমাত্র পছন্দের কোম্পানিকে অন্যায়ভাবে কাজ পাইয়ে দেওয়ার জন্য একই ওষুধ কেনা হয়েছে।’

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার উদ্ধৃতি দিয়ে মান্না বলেন, ‘সরকারি হিসাবে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা অত্যন্ত কম করে দেখানো হয়। ডেঙ্গুতে আক্রান্ত সব রোগী সরকারি নজরদারির মধ্যে নেই। চিকিৎসা নিতে আসা মাত্র ২ শতাংশ রোগী সরকারি নজরদারির মধ্যে পড়ে। ৯৮ শতাংশের কোনো তথ্য থাকে না। আবার আক্রান্তদের মধ্যে ৮৫ শতাংশই চিকিৎসা নেন না।’

ডেঙ্গুতে দেশ ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির মধ্যে রয়েছে জানিয়ে মান্না বলেন, ‘ডেঙ্গুর ভয়াবহ বিস্তারের কারণে দেশ আজ এক ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির মধ্যে আছে। সারা বিশ্বের মিডিয়ায় বাংলাদেশের ডেঙ্গু পরিস্থিতি সম্পর্কে বলা হয়েছে-এটা এর মধ্যেই মহামারীর পর্যায়ে পৌঁছে গেছে। দেশের সবকটি জেলা এখন ডেঙ্গু কবলিত। পত্রিকায় প্রকাশিত এ পর্যন্ত ৮০ জনের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে। অথচ মাত্র কয়েকদিন আগে আমরা দেখেছি, এই ডেঙ্গু নিয়ে সরকারের স্বাস্থ্যমন্ত্রী এবং সিটি করপোরেশনের দুই মেয়র কী বাগাড়ম্বর করেছেন। তারা অনর্থক বিরোধী দলীয় রাজনীতিকে দোষারোপ করেছেন।’

ডেঙ্গুর বিষয়ে আগাম সতর্কতা জানিয়ে হাইকোর্ট থেকে সিটি করপোরেশনকে নোটিশ দিয়েছিল গত ফেব্রুয়ারি মাসেই। মার্চ মাসে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর দুই সিটি করপোরেশনকে ডেঙ্গু নিয়ে সতর্কতা জারি করেছিল। কিন্তু কোনো কিছুই সরকারকে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়াতে পারেনি বলেও জানান নাগরিক ঐক্যের এই আহ্বায়ক।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী এবং দুই মেয়রের পদত্যাগ দাবি করে মান্না বলেন, ‘এখন পর্যন্ত একটা কার্যকর মশার ওষুধ আমদানি করে মশা মারার ব্যবস্থা করা যায়নি। এই ভয়াবহ ব্যর্থতার জন্য স্বাস্থ্যমন্ত্রী এবং দুই সিটি করপোরেশনের মেয়রের এক্ষুণি পদত্যাগ করতে হবে।’

আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন কর্নেল (অব.) অলি আহমদ ও বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম প্রমুখ।