২৩, আগস্ট, ২০১৯, শুক্রবার | | ২১ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০


কর্তৃপক্ষের গাফিলাতিতে উলিপুর টি-বাঁধে ফের ধ্বস

রিপোর্টার নামঃ নিজস্ব প্রতিবেদক | আপডেট: ২৩ জুলাই ২০১৯, ০৮:৫৭ পিএম

কর্তৃপক্ষের গাফিলাতিতে উলিপুর টি-বাঁধে ফের ধ্বস
কুড়িগ্রামের উলিপুরে তিস্তা নদীর বাম তীর রক্ষায় নির্মিত টি-বাঁধটি ফের ধ্বসে যাচ্ছে। গত ১০ দিনের ব্যবধানে নতুন করে আবারো ৫০ মিটার ধ্বসে গেছে। বাঁধটি ভেঙ্গে গেলে পাশ্ববর্তি কয়েকটি গ্রামের শত শত বাড়ি-ঘর ও আবাদি জমি ভাঙ্গনে নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যাবে। ছবিটি মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার গুনাইগাছ ইউনিয়নের নাগড়াকুড়া এলাকা থেকে তোলা।

কুড়িগ্রামের উলিপুরে তিস্তা নদীর বাম তীর রক্ষায় নির্মিত টি-বাঁধটি ফের ধ্বসে যাচ্ছে। গত  ১০ দিনের ব্যবধানে নতুন করে আবারো ৫০ মিটার ধ্বসে গেছে। বাঁধটি ভেঙ্গে গেলে পাশ্ববর্তি কয়েকটি গ্রামের শত শত বাড়ি-ঘর ও আবাদি জমি ভাঙ্গনে নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যাবে। স্থানীয় মানুষের অভিযোগ, কর্তৃপক্ষের গাফিলাতি কারণে সরকারের লাখ লাখ টাকা অপচয় করা হলেও কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না। কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ড জিও টেক্সটাইল ব্যাগে বালু ভর্তি করে বাঁধটি রক্ষার চেষ্টা করছেন।

মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার গুনাইগাছ ইউনিয়নের নাগড়াকুড়া টি-বাঁধে গিয়ে দেখা যায়, পানির প্রবল স্রোতে বাঁধটির বিশাল অংশ ধ্বসে গেছে। এদিকে ধ্বসে যাওয়া টি-বাঁধটির ১’শ গজ দূরে ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। ফলে  বাঁধটি ভেঙ্গে গেলে পাশ্ববর্তি কয়েকটি গ্রামের শত শত বাড়ি-ঘর ও আবাদি জমি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যাওয়ার আশংকা রয়েছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, সম্প্রতি লাখ লাখ টাকা ব্যয় করে অপরিকল্পিতভাবে বাঁধটি সংস্কার করা হয়। 

কুড়িগ্রাম পাউবো’র উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম বলেন, বালু ভর্তি জিও টেক্সটাইল ব্যাগ ডাম্পিং করে বাঁধটি রক্ষার চেষ্টা করা হচ্ছে। 

উল্লেখ্য, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে বাঁধটি তিস্তা নদীর বা-তীরের ভাঙ্গন রোধে প্রায় ১০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মান করা হয়। 

প্রতিদিনের কাগজ'/এ আর 


কর্তৃপক্ষের গাফিলাতিতে উলিপুর টি-বাঁধে ফের ধ্বস

প্রতিবেদক নাম: নিজস্ব প্রতিবেদক ,

প্রকাশের সময়ঃ ২৩ জুলাই ২০১৯, ০৮:৫৭ পিএম

কুড়িগ্রামের উলিপুরে তিস্তা নদীর বাম তীর রক্ষায় নির্মিত টি-বাঁধটি ফের ধ্বসে যাচ্ছে। গত  ১০ দিনের ব্যবধানে নতুন করে আবারো ৫০ মিটার ধ্বসে গেছে। বাঁধটি ভেঙ্গে গেলে পাশ্ববর্তি কয়েকটি গ্রামের শত শত বাড়ি-ঘর ও আবাদি জমি ভাঙ্গনে নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যাবে। স্থানীয় মানুষের অভিযোগ, কর্তৃপক্ষের গাফিলাতি কারণে সরকারের লাখ লাখ টাকা অপচয় করা হলেও কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না। কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ড জিও টেক্সটাইল ব্যাগে বালু ভর্তি করে বাঁধটি রক্ষার চেষ্টা করছেন।

মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার গুনাইগাছ ইউনিয়নের নাগড়াকুড়া টি-বাঁধে গিয়ে দেখা যায়, পানির প্রবল স্রোতে বাঁধটির বিশাল অংশ ধ্বসে গেছে। এদিকে ধ্বসে যাওয়া টি-বাঁধটির ১’শ গজ দূরে ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। ফলে  বাঁধটি ভেঙ্গে গেলে পাশ্ববর্তি কয়েকটি গ্রামের শত শত বাড়ি-ঘর ও আবাদি জমি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যাওয়ার আশংকা রয়েছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, সম্প্রতি লাখ লাখ টাকা ব্যয় করে অপরিকল্পিতভাবে বাঁধটি সংস্কার করা হয়। 

কুড়িগ্রাম পাউবো’র উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম বলেন, বালু ভর্তি জিও টেক্সটাইল ব্যাগ ডাম্পিং করে বাঁধটি রক্ষার চেষ্টা করা হচ্ছে। 

উল্লেখ্য, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে বাঁধটি তিস্তা নদীর বা-তীরের ভাঙ্গন রোধে প্রায় ১০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মান করা হয়। 

প্রতিদিনের কাগজ'/এ আর