২০, আগস্ট, ২০১৯, মঙ্গলবার | | ১৮ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০


বৃদ্ধাশ্রমে প্রেম, বিয়ের পিঁড়িতে ২০২ বছরের বর-কনে!

রিপোর্টার নামঃ আন্তর্জাতিক ডেস্ক: | আপডেট: ০৭ জুলাই ২০১৯, ০৭:২৫ পিএম

বৃদ্ধাশ্রমে প্রেম, বিয়ের পিঁড়িতে ২০২ বছরের বর-কনে!
বৃদ্ধাশ্রমে প্রেম, বিয়ের পিঁড়িতে ২০২ বছরের বর-কনে!

বৃদ্ধাশ্রমে প্রেম, বিয়ের পিঁড়িতে ২০২ বছরের বর-কনে! শিরোনামটি পড়ে অনেকেই হয়তো অবাক হয়েছেন। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের ওহাইও রাজ্যের একটি বৃদ্ধাশ্রমে শতবর্ষী একটি জুটি প্রেমের পর বিয়ের পিঁড়িতে বসেছে। যেখানে বর-কনের মোট বয়স ২০২।

জানা গেছে, ১০০ বছর বয়সী বর জন কুক এবং ১০২ বছর বয়সী কনে ফিলিস কুক সিলভানিয়া শহরের একটি বৃদ্ধাশ্রমে আছেন অনেকদিন ধরেই। বছরখানেক আগে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক শুরু হয়। সম্প্রতি এই জুটির বিয়ে হয় বৃদ্ধাশ্রমেই।

এ ব্যাপারে বর জন স্থানীয় গণমাধ্যমে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘পরিকল্পনা করে আমরা কিছু করিনি। আমাদের সম্পর্ক দেখে এখানকার কর্মীরা আমাদের বিয়ের কথা বললেন। আমরাও রাজী হয়ে গেলাম।’

জন এবং ফিলিস তাদের জীবনসঙ্গীদের হারিয়েছেন অনেক বছর আগে। ফিলিস জানান, যেকোন প্রেমের সম্পর্কের সফল পরিণতি হচ্ছেই বিয়ে। প্রেমে পড়া মানুষের জীবনের খুব স্বাভাবিক ঘটনা। তবে আমাদের এই বয়সে প্রেমে পড়াটা অস্বাভাবিক মনে হলেও আমরা সত্যিই পরষ্পরের প্রেমে পড়েছি’।

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের দুইজনের অনেক বিষয়ে মিল আছে।পরষ্পরের সঙ্গে সময় কাটানো আমরা দারুণ উপভোগ করি’।

কোন কাজটি আপনাদের সবচেয়ে প্রিয়? এমন প্রশ্নের জবাবে জন বলেন, ‘ এ বিষয়ে আমি কোনও মন্তব্য করতে চাই না’।

শতবর্ষী এই নতুন দম্পতি জানান, পরষ্পরের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ এবং নিজের মতো করে থাকতে দেওয়াই যেকোন সম্পর্ক সফল রাখার গোপন রহস্য।

বৃদ্ধাশ্রমে এই নতুন দম্পতির আলাদা আলাদা রুম থাকলেও খাবারের সময় কিংবা বাইরে বসে একসঙ্গে গল্প করে দারুণ সময় পার করেন তারা।

বৃদ্ধাশ্রমে প্রেম, বিয়ের পিঁড়িতে ২০২ বছরের বর-কনে!

প্রতিবেদক নাম: আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ,

প্রকাশের সময়ঃ ০৭ জুলাই ২০১৯, ০৭:২৫ পিএম

বৃদ্ধাশ্রমে প্রেম, বিয়ের পিঁড়িতে ২০২ বছরের বর-কনে! শিরোনামটি পড়ে অনেকেই হয়তো অবাক হয়েছেন। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের ওহাইও রাজ্যের একটি বৃদ্ধাশ্রমে শতবর্ষী একটি জুটি প্রেমের পর বিয়ের পিঁড়িতে বসেছে। যেখানে বর-কনের মোট বয়স ২০২।

জানা গেছে, ১০০ বছর বয়সী বর জন কুক এবং ১০২ বছর বয়সী কনে ফিলিস কুক সিলভানিয়া শহরের একটি বৃদ্ধাশ্রমে আছেন অনেকদিন ধরেই। বছরখানেক আগে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক শুরু হয়। সম্প্রতি এই জুটির বিয়ে হয় বৃদ্ধাশ্রমেই।

এ ব্যাপারে বর জন স্থানীয় গণমাধ্যমে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘পরিকল্পনা করে আমরা কিছু করিনি। আমাদের সম্পর্ক দেখে এখানকার কর্মীরা আমাদের বিয়ের কথা বললেন। আমরাও রাজী হয়ে গেলাম।’

জন এবং ফিলিস তাদের জীবনসঙ্গীদের হারিয়েছেন অনেক বছর আগে। ফিলিস জানান, যেকোন প্রেমের সম্পর্কের সফল পরিণতি হচ্ছেই বিয়ে। প্রেমে পড়া মানুষের জীবনের খুব স্বাভাবিক ঘটনা। তবে আমাদের এই বয়সে প্রেমে পড়াটা অস্বাভাবিক মনে হলেও আমরা সত্যিই পরষ্পরের প্রেমে পড়েছি’।

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের দুইজনের অনেক বিষয়ে মিল আছে।পরষ্পরের সঙ্গে সময় কাটানো আমরা দারুণ উপভোগ করি’।

কোন কাজটি আপনাদের সবচেয়ে প্রিয়? এমন প্রশ্নের জবাবে জন বলেন, ‘ এ বিষয়ে আমি কোনও মন্তব্য করতে চাই না’।

শতবর্ষী এই নতুন দম্পতি জানান, পরষ্পরের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ এবং নিজের মতো করে থাকতে দেওয়াই যেকোন সম্পর্ক সফল রাখার গোপন রহস্য।

বৃদ্ধাশ্রমে এই নতুন দম্পতির আলাদা আলাদা রুম থাকলেও খাবারের সময় কিংবা বাইরে বসে একসঙ্গে গল্প করে দারুণ সময় পার করেন তারা।