২১, জুলাই, ২০১৯, রোববার | | ১৮ জ্বিলকদ ১৪৪০


বাংলাদেশ গেমস আয়োজনের সবুজ সংকেত দিলেন প্রধানমন্ত্রী

রিপোর্টার নামঃ খেলাধুলা ডেস্ক: | আপডেট: ১৫ এপ্রিল ২০১৯, ০৮:৪৭ পিএম

বাংলাদেশ গেমস আয়োজনের সবুজ সংকেত দিলেন প্রধানমন্ত্রী
বাংলাদেশ গেমস আয়োজনের সবুজ সংকেত দিলেন প্রধানমন্ত্রী

দেশের সবচেয়ে বড় ক্রীড়া প্রতিযোগিতা বাংলাদেশ গেমস আয়োজনের সবুজ সংকেত দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সোমবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেন বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ ও মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা। এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ গেমস আয়োজনের বিষয়ে সবুজ সংকেত দিয়েছেন বিওএ’র শীর্ষ দুই কর্মকর্তাকে। বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেন বিওএর মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা।

তবে বাংলাদেশ গেমস এ বছর হবে কি না তা নির্ভর করে সাউথ এশিয়ান (এসএ) গেমসের ওপর। আগামী ১ থেকে ১০ ডিসেম্বর নেপালে হওয়ার কথা দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে বড় এ ক্রীড়া প্রতিযোগিতা। তবে নেপাল এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশকে জানায়নি যে, ওই সময় গেমস হবেই।

এসএ গেমস নিয়ে কিছুটা অনিশ্চয়তা তৈরি হওয়ায় বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন (বিওএ) তাদের সর্বশেষ সভায় সিদ্ধান্ত নিয়েছে এসএ গেমস না হলে তারা বাংলাদেশ গেমস আয়োজন করবে।

সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করে বিষয়টি তাকে অবহিত করেন বিওএ কর্মকর্তারা। ‘এসএ গেমস না হলে আমরা বাংলাদেশ গেমস করতে চাই, সে বিষয়টি অবহিত করেছি প্রধানমন্ত্রীকে। তিনি আমাদের সম্মতি দিয়েছেন’- বলেছেন বিওএ মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা।

এসএ গেমস না হলে কবে নাগাদ বাংলাদেশ গেমস হতে পারে? সৈয়দ শাহেদ রেজা বলেছেন, ‘সেটা ঠিক করবো নেপাল যদি এসএ গেমস না করার সিদ্ধান্ত নেয় তারপর। আপাতত আমরা প্রধানমন্ত্রীর অনুমতি নিয়ে রাখলাম।’

সৈয়দ শাহেদ রেজা বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী আমাদের খেলোয়াড়দের অনুশীলনের বিষয়টি গুরুত্ব দিতে বলেছেন। তিনি বলেছেন, টাকার কোনো সমস্যা হবে না। আমরা যেন খেলোয়াড়দের বছরব্যাপী অনুশীলনে রাখি।’

দেশের খেলাধুলার উন্নয়নে আগামী বাজেটে পর্যাপ্ত বরাদ্দ দিতে প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেছেন বিওএর সভাপতি ও মহাসচিব। এ সময় আন্তর্জাতিক ক্রীড়া আসরে অংশগ্রহণ, প্রশিক্ষণ ও বিদেশে দল পাঠানোসহ নানা বিষয় নিয়েও আলোচনা হয়েছে।

আগামী বছর জাপানের টোকিওতে অনুষ্ঠিতব্য অলিম্পিক গেমসে আয়োজকদের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। বিওএ কর্মকর্তারা সে আমন্ত্রণের কথাও অবহিত করেছেন প্রধানমন্ত্রীকে।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ গেমস সর্বশেষ হয়েছিল ২০১৩ সালে। চার বছর অন্তর এ গেমস হওয়ার নিয়ম থাকলেও নানা সমস্যায় অনিয়মিত হয়ে পড়েছে দেশের সবচেয়ে বড় এ ক্রীড়া আসর। ‘বাংলাদেশ অলিম্পিক’ নামে ১৯৭৮ সালে প্রথম হয়েছে এই গেমস। কিন্তু আর্থিক সমস্যায় অতীতে এ গেমস নিয়মিত হয়নি। বিওএ সর্বশেষ ২০১৩ সালে যে গেমস আয়োজন করেছিল তাও প্রায় ১২ বছর পর।

বাংলাদেশ গেমস আয়োজনের সবুজ সংকেত দিলেন প্রধানমন্ত্রী

প্রতিবেদক নাম: খেলাধুলা ডেস্ক: ,

প্রকাশের সময়ঃ ১৫ এপ্রিল ২০১৯, ০৮:৪৭ পিএম

দেশের সবচেয়ে বড় ক্রীড়া প্রতিযোগিতা বাংলাদেশ গেমস আয়োজনের সবুজ সংকেত দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সোমবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেন বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ ও মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা। এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ গেমস আয়োজনের বিষয়ে সবুজ সংকেত দিয়েছেন বিওএ’র শীর্ষ দুই কর্মকর্তাকে। বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেন বিওএর মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা।

তবে বাংলাদেশ গেমস এ বছর হবে কি না তা নির্ভর করে সাউথ এশিয়ান (এসএ) গেমসের ওপর। আগামী ১ থেকে ১০ ডিসেম্বর নেপালে হওয়ার কথা দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে বড় এ ক্রীড়া প্রতিযোগিতা। তবে নেপাল এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশকে জানায়নি যে, ওই সময় গেমস হবেই।

এসএ গেমস নিয়ে কিছুটা অনিশ্চয়তা তৈরি হওয়ায় বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন (বিওএ) তাদের সর্বশেষ সভায় সিদ্ধান্ত নিয়েছে এসএ গেমস না হলে তারা বাংলাদেশ গেমস আয়োজন করবে।

সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করে বিষয়টি তাকে অবহিত করেন বিওএ কর্মকর্তারা। ‘এসএ গেমস না হলে আমরা বাংলাদেশ গেমস করতে চাই, সে বিষয়টি অবহিত করেছি প্রধানমন্ত্রীকে। তিনি আমাদের সম্মতি দিয়েছেন’- বলেছেন বিওএ মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা।

এসএ গেমস না হলে কবে নাগাদ বাংলাদেশ গেমস হতে পারে? সৈয়দ শাহেদ রেজা বলেছেন, ‘সেটা ঠিক করবো নেপাল যদি এসএ গেমস না করার সিদ্ধান্ত নেয় তারপর। আপাতত আমরা প্রধানমন্ত্রীর অনুমতি নিয়ে রাখলাম।’

সৈয়দ শাহেদ রেজা বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী আমাদের খেলোয়াড়দের অনুশীলনের বিষয়টি গুরুত্ব দিতে বলেছেন। তিনি বলেছেন, টাকার কোনো সমস্যা হবে না। আমরা যেন খেলোয়াড়দের বছরব্যাপী অনুশীলনে রাখি।’

দেশের খেলাধুলার উন্নয়নে আগামী বাজেটে পর্যাপ্ত বরাদ্দ দিতে প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেছেন বিওএর সভাপতি ও মহাসচিব। এ সময় আন্তর্জাতিক ক্রীড়া আসরে অংশগ্রহণ, প্রশিক্ষণ ও বিদেশে দল পাঠানোসহ নানা বিষয় নিয়েও আলোচনা হয়েছে।

আগামী বছর জাপানের টোকিওতে অনুষ্ঠিতব্য অলিম্পিক গেমসে আয়োজকদের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। বিওএ কর্মকর্তারা সে আমন্ত্রণের কথাও অবহিত করেছেন প্রধানমন্ত্রীকে।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ গেমস সর্বশেষ হয়েছিল ২০১৩ সালে। চার বছর অন্তর এ গেমস হওয়ার নিয়ম থাকলেও নানা সমস্যায় অনিয়মিত হয়ে পড়েছে দেশের সবচেয়ে বড় এ ক্রীড়া আসর। ‘বাংলাদেশ অলিম্পিক’ নামে ১৯৭৮ সালে প্রথম হয়েছে এই গেমস। কিন্তু আর্থিক সমস্যায় অতীতে এ গেমস নিয়মিত হয়নি। বিওএ সর্বশেষ ২০১৩ সালে যে গেমস আয়োজন করেছিল তাও প্রায় ১২ বছর পর।