১৮, আগস্ট, ২০১৯, রোববার | | ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০


প্রশাসন ও নেতাদের শুভ বুদ্ধির উদয় হলেই সমাজ থেকে মাদক নির্মূল সম্ভব

রিপোর্টার নামঃ মাহমুদুল হাসান রতন: | আপডেট: ২৯ এপ্রিল ২০১৮, ০৯:১৪ পিএম

প্রশাসন ও নেতাদের শুভ বুদ্ধির উদয় হলেই সমাজ থেকে মাদক নির্মূল সম্ভব
প্রশাসন ও নেতাদের শুভ বুদ্ধির উদয় হলেই সমাজ থেকে মাদক
প্রশাসন ও নেতাদের শুভ বুদ্ধির উদয় হলেই সমাজ থেকে মাদক নির্মূল সম্ভব। সাধারন মানুষ মাদক ব্যবসা করতে পারে না। প্রশাসন এবং প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় সমাজে মাদক ব্যবসা পরিচালিত হয়। কিছু মহিলাও সামান্য অর্থের লোভে সন্তানদের মুখে বিষ তুলে দিচ্ছে। যারা মাদক ব্যবসা করে তারা সমাজের ক্ষমতাধর লোক। তারা আমাদের মতো কারো ছত্রছায়ায়, কেউ প্রশাসনের ছত্রছায়ায় আবার কেউ স্থানীয় নেতাদের ছত্রছায়ায় থেকে এসব ব্যবসা চালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। যদিও মাদকের ব্যাপারে প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ বারবার বলছে জিরোটলারেন্স। কিন্তু বাস্তবে প্রশাসনের কিছু অসৎ লোকের পরোক্ষ সহযোগিতায় তা ক্রমশই জোড়দার হচ্ছে। বিশেষ করে সীমান্ত এলাকায় এর অবস্থান প্রকট। প্রশাসনকে মাসিক হপ্তা দিয়েই চলে রমরমা মাদক ব্যবসা। এমনকি মাঝে মধ্যে কিছু কিছু মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে সোপর্দ করলেও অল্প সময়ের মধ্যে তারা জামিনে বেড়িয়ে আসতে সক্ষম হয়। আইনের কুটির জোড় কম থাকায় মাদক ব্যবসায়ীদের শাস্তি হয় না। তাই ওরা কাউকে তোয়াক্কা না করেই মাদক ব্যবসার সয়লাভ গড়ে তুলতে সক্ষম হচ্ছে। তাই এই মাদকের ধ্বংসাত্মক পরিস্থিতি থেকে বেড়িয়ে আসতে হলে প্রশাসনকে আগে মাদক নির্মূল হতে হবে। সম্পাদক: প্রতিদিনের কাগজ।

প্রশাসন ও নেতাদের শুভ বুদ্ধির উদয় হলেই সমাজ থেকে মাদক

প্রতিবেদক নাম: মাহমুদুল হাসান রতন: ,

প্রকাশের সময়ঃ ২৯ এপ্রিল ২০১৮, ০৯:১৪ পিএম

প্রশাসন ও নেতাদের শুভ বুদ্ধির উদয় হলেই সমাজ থেকে মাদক নির্মূল সম্ভব। সাধারন মানুষ মাদক ব্যবসা করতে পারে না। প্রশাসন এবং প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় সমাজে মাদক ব্যবসা পরিচালিত হয়। কিছু মহিলাও সামান্য অর্থের লোভে সন্তানদের মুখে বিষ তুলে দিচ্ছে। যারা মাদক ব্যবসা করে তারা সমাজের ক্ষমতাধর লোক। তারা আমাদের মতো কারো ছত্রছায়ায়, কেউ প্রশাসনের ছত্রছায়ায় আবার কেউ স্থানীয় নেতাদের ছত্রছায়ায় থেকে এসব ব্যবসা চালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। যদিও মাদকের ব্যাপারে প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ বারবার বলছে জিরোটলারেন্স। কিন্তু বাস্তবে প্রশাসনের কিছু অসৎ লোকের পরোক্ষ সহযোগিতায় তা ক্রমশই জোড়দার হচ্ছে। বিশেষ করে সীমান্ত এলাকায় এর অবস্থান প্রকট। প্রশাসনকে মাসিক হপ্তা দিয়েই চলে রমরমা মাদক ব্যবসা। এমনকি মাঝে মধ্যে কিছু কিছু মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে সোপর্দ করলেও অল্প সময়ের মধ্যে তারা জামিনে বেড়িয়ে আসতে সক্ষম হয়। আইনের কুটির জোড় কম থাকায় মাদক ব্যবসায়ীদের শাস্তি হয় না। তাই ওরা কাউকে তোয়াক্কা না করেই মাদক ব্যবসার সয়লাভ গড়ে তুলতে সক্ষম হচ্ছে। তাই এই মাদকের ধ্বংসাত্মক পরিস্থিতি থেকে বেড়িয়ে আসতে হলে প্রশাসনকে আগে মাদক নির্মূল হতে হবে। সম্পাদক: প্রতিদিনের কাগজ।